kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২০ জুন ২০১৯। ৬ আষাঢ় ১৪২৬। ১৬ শাওয়াল ১৪৪০

ধনবাড়ীতে চলন্ত বাসে পোশাক কর্মীকে গণধর্ষণ

চার বাস শ্রমিকের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি   

২৩ মে, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চার বাস শ্রমিকের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীতে চলন্ত বাসে এক পোশাক কর্মীকে গণধর্ষণ মামলায় চার পরিবহন শ্রমিককে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে তাদের প্রত্যেককে এক লাখ টাকা করে জরিমানা করেছে আদালত। গতকাল বুধবার দুপুরের দিকে টাঙ্গাইলের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক বেগম খালেদা ইয়াসমিন এ রায় দেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন বিনিময় পরিবহন বাসের চালক টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী উপজেলার ফকিরবাড়ী গ্রামের জয়নাল আবেদীনের ছেলে হাবিবুর রহমান নয়ন, হেলপার একই উপজেলার দয়ারামবাড়ী গ্রামের আরশেদ আলীর ছেলে আব্দুল খালেক ভুট্ট ও চতুটিয়া গ্রামের মৃত কছিম উদ্দিনের ছেলে মো. আশরাফুল এবং সুপারভাইজার নিজবর্ণি গ্রামের মৃত আব্দুল মোতালেবের ছেলে রেজাউল করিম জুয়েল। রায় ঘোষণার সময় আদালতে তিন আসামি উপস্থিত ছিলেন। অপর আসামি রেজাউল করিম জুয়েল জামিন নিয়ে পলাতক রয়েছে। ধর্ষণের শিকার ওই নারী গাজীপুরের চন্দ্রায় একটি পোশাক প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানে কাজ করতেন। টাঙ্গাইলের আদালত পরিদর্শক আনোয়ারুল ইসলাম এসব তথ্য জানান।                                                   

মামলার বিররণে জানা যায়, ২০১৬ সালের ১ এপ্রিল টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী বাসস্ট্যান্ড থেকে ভোর পাঁচটার দিকে বিনিময় পরিবহনের একটি বাসে কালিয়াকৈরের উদ্দেশ্যে রওনা দেন ওই পোশাককর্মী। এ সময় বাসে যাত্রী না থাকার সুযোগে বাসটি কিছুদুর যাওয়ার পর সুপারভাইজার বাসের জানালা দরজা বন্ধ করে দেয়। গাড়ির চালক হাবিবুর রহমান নয়ন ওই নারীকে ভয়ভীত প্রদর্শন করে পিছনের সিটে নিয়ে ধর্ষণ করে। পরে বাসের সুপারভাইজার রেজাউল করিম ও হেলপার ভুট্রুও তাকে ধর্ষণ করে। এক পর্যায় বাসটি টাঙ্গাইল-ময়মনসিংহ সড়কের মধুপুরে এক ফাঁকা জায়গায় থামিয়ে বাস থেকে ওই নারীকে নামিয়ে দেয়া হয়। তিনি (ওই নারী) মধুপুর বাসস্ট্যান্ড গিয়ে তাঁর স্বামীকে ঘটনা জানান। পরে তাকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ব্যাপারে মামলা দায়ের করা হলে পুলিশ ঘটনার সঙ্গে জড়িত অভিযোগে বাসের চালক, হেলপার ও সুপার ভাইজারকে ওইদিনই গ্রেপ্তার করে। পুলিশ তদন্ত শেষে চারজনকে আসামী করে আদালতে অভিযোগপত্র দেয়।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী টাঙ্গাইল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালের বিশেষ পিপি নাসিমুল আক্তার বলেন, এই রায়ে ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা হয়েছে।

 

মন্তব্য