kalerkantho

মঙ্গলবার। ১৮ জুন ২০১৯। ৪ আষাঢ় ১৪২৬। ১৪ শাওয়াল ১৪৪০

বগুড়া সদরে আ. লীগের প্রার্থী নিকেতা মহাজোটে ক্ষোভ

বিএনপির মনোনয়নে এখনো ধোঁয়াশা

নিজস্ব প্রতিবেদক, বগুড়া   

২১ মে, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



বগুড়া সদরে আ. লীগের প্রার্থী নিকেতা মহাজোটে ক্ষোভ

পর পর দুইবার বগুড়া-৬ (সদর) আসনটি মহাজোটকে ছাড় দেওয়া হলেও এবার এই আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী দিয়েছে। রবিবার রাতে বিষয়টি চূড়ান্ত হওয়ার পর থেকেই মহাজোটের শরিক দল জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। তারা বলছে, প্রতিবারের মতো জোটের জন্য এই আসনটি ছাড় দেওয়া না হলে তারাও দলীয়ভাবে নির্বাচনে অংশ নেবে।

তবে বগুড়া-৬ সংসদীয় আসনের উপনির্বাচনে সোমবার পর্যন্ত বিএনপি অংশ নেবে কি না কিংবা অংশ নিলে কোন প্রক্রিয়ায় কাকে মনোনয়ন দেবে তা স্পষ্ট করেনি। বিষয়টি নিয়ে দলীয় নেতাকর্মীরা ধোঁয়াশার মধ্যেই রয়েছে।

আওয়ামী লীগের নির্বাচনী বোর্ড দলের বগুড়া জেলা শাখার যুগ্ম সম্পাদক টি জামান নিকেতাকে দলীয় প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা দিয়েছে। ঘোষণার পর থেকেই আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে আনন্দের বন্যা বইছে। তারা বলছে, দীর্ঘ ১০ বছর পর আবারও নৌকা প্রতীক নিয়ে দল নির্বাচন করার সুযোগ পেল। অবশ্যই ব্যাপক ভোটে জয় লাভ করে তাদের প্রার্থী বগুড়ার উন্নয়নে অবদান রাখবেন।

এদিকে জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আব্দুস সালাম বাবু জানান, ২০০৮ সালের নির্বাচনের পর বগুড়া-৬ আসনটি মহাজোটকে দেওয়া হয়। এখানে তাঁদের শক্তিশালী প্রার্থী হচ্ছেন জেলা জাতীয় পার্টির সদস্যসচিব নুরুল ইসলাম ওমর। তাঁরা আশা করছেন শেষ সময়ে হলেও আওয়ামী লীগ তাদের প্রার্থী প্রত্যাহার করে নিয়ে এই আসনটিতে আগের মতোই মহাজোটকে ছাড় দেবে।

এই আসনের সাবেক এমপি ও জেলা জাতীয় পার্টির সদস্যসচিব নুরুল ইসলাম ওমর বলেন, ‘আওয়ামী লীগ প্রার্থী দিয়েছে ঠিক আছে। তবে জাতীয় পার্টি থেকে আমার মনোনয়নও চূড়ান্ত করা হয়েছে।’ এই আসনে মহাজোটকে ছাড় না দেওয়া হলে তিনি জাতীয় পার্টি থেকেই নির্বাচনে অংশ নেবেন বলে জানান। তিনি বলেন, বিগত পাঁচ বছর সংসদ সদস্য হিসেবে উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে উন্নয়ন পৌঁছে দিয়েছি। উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আবারও মাঠে থাকব।

এ অবস্থায় শেষ পর্যন্ত উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগ একাই অংশ নেবে, নাকি মহাজোটবদ্ধ হয়ে লড়বে তা নিয়ে সৃষ্ট প্রশ্নের উত্তর দিতে পারছে না কেউই। জাতীয় পার্টি ও জাসদের কয়েকজন নেতা বলেন, যদি আওয়ামী লীগ এককভাবে নির্বাচন করে সে ক্ষেত্রে তাঁরাও বিকল্প ব্যবস্থা নিতে পারেন। আর এই বিকল্প হলো জাতীয় পার্টির প্রার্থী হয়ে সাবেক এমপি নুরুল ইসলাম ওমর লাঙল প্রতীক নিয়ে এবং জাসদের প্রার্থী হয়ে সাবেক এমপি রেজাউল করিম তানসেন মশাল প্রতীকে নির্বাচন করতে পারেন।

অন্যদিকে বগুড়া জেলা বিএনপির আহ্বায়ক ও সাবেক এমপি জি এম সিরাজ বলেন, ‘দলের হাইকমান্ডের সিদ্ধান্ত মান্য করাই জেলা কমিটির কাজ। দল নির্বাচনে গেলে এবং সে ক্ষেত্রে আমাকে বা অন্য কাউকে মনোনয়ন দিলে আমরা হাইকমান্ডের নির্দেশ মোতাবেক কাজ করব।’ মনোনয়ন দাখিলের দুই দিন আগে ২১ মে বিএনপি এই আসনের উপনির্বাচনের ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে বলেও তিনি জানান।

এদিকে বগুড়ার স্বতন্ত্র প্রার্থীদের মধ্যে সৈয়দ কবির আহম্মেদ মিঠু সরাসরি তাঁর কর্মী-সমর্থকদের নির্বাচনের মাঠে নামিয়ে দিয়েছেন। আরেকজন স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক সংসদ সদস্য ও শিল্পপতি সাইফুর রহমান রাজ ভাণ্ডারীও ভোটের মাঠে রয়েছেন।

ভাণ্ডারী জানান, তাঁর পরিবার বগুড়াবাসীর জন্য অনেক করেছে। এখন তিনিও সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে এই অঞ্চলের মানুষের জন্য কাজ করে যেতে চান।

বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ও সদরের প্রার্থী টি জামান নিকেতা বলেন, ‘আমাদের বড় দল হলেও এখানে কোনো ভেদাভেদ নেই, কোন্দল নেই। নেত্রী আমাকে মনোনয়ন দিয়েছেন। এখন সবাই নৌকার জন্য কাজ করছে। আমরা সম্মিলিত প্রচেষ্টায় জয়ী হব ইনশাআল্লাহ।’

উল্লেখ্য, বগুড়া-৬ আসন থেকে নির্বাচিত বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ না নেওয়ায় গত ৩০ এপ্রিল তাঁর আসনটি শূন্য ঘোষণা করেন স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী। এই আসনের উপনির্বাচনে আগামী ২৩ মে মনোনয়ন দাখিলের শেষ দিন ও ২৪ জুন অনুষ্ঠিত হবে ভোট।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা