kalerkantho

সোমবার। ২৭ মে ২০১৯। ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ২১ রমজান ১৪৪০

ডিসি সম্মেলন ৫ দিন চলার পরিকল্পনা

বাহরাম খান   

২৪ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ডিসি সম্মেলন ৫ দিন চলার পরিকল্পনা

বার্ষিক ‘জেলা প্রশাসক সম্মেলন’ প্রথমবারের মতো পাঁচ দিন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। আগামী ১৪ থেকে ১৮ জুলাই এ সম্মেলন হবে। প্রতিবছর তিন দিনের সম্মেলনে ২৫ থেকে ৩০টি বৈঠক হয়। অল্প সময়ে এত বৈঠক নিয়ে জেলা প্রশাসকদের আপত্তি ছিল। বিষয়টি আমলে নিয়ে এবার পাঁচ দিনব্যাপী সম্মেলনের পরিকল্পনা সাজিয়েছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। এবার মোট অধিবেশন থাকছে ২৯টি, এর মধ্যে কার্য-অধিবেশন ২৪টি।

মাঠ প্রশাসনের শীর্ষস্থানীয় কর্তাদের নিয়ে বছরের মধ্যভাগে করা এই সম্মেলনটি ‘ডিসি সম্মেলন’ হিসেবে বেশি পরিচিত। গতকাল মঙ্গলবার মন্ত্রিপরিষদসচিবের সভাপতিত্বে সচিবালয়ে এ বছরের ডিসি সম্মেলনের অনুষ্ঠানের প্রস্তুতিমূলক সভায় এই পরিকল্পনা ও তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর সম্মতি পেলেই এটি চূড়ান্ত করা হবে। বৈঠকে উপস্থিত থাকা মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের একটি সূত্র কালের কণ্ঠকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

জানা গেছে, প্রতিবছর তিন দিন করে ডিসি সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় ঢাকায়। ৬৪ জেলার ডিসিরা এই তিন দিনে ৫৮টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের মন্ত্রী এবং সচিবদের সঙ্গে বৈঠকে মিলিত হন। প্রধানমন্ত্রী তাঁর কার্যালয়ে ডিসি সম্মেলনের উদ্বোধন করেন এবং শেষ দিনে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাতের মাধ্যমে সম্মেলন শেষ হয়। তবে এবার প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতির পাশাপাশি প্রধান বিচারপতি ও জাতীয় সংসদের স্পিকারের সঙ্গে আলাদাভাবে সাক্ষাতের প্রস্তাব রাখা হয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের দায়িত্বশীল একজন কর্মকর্তা এ প্রতিবেদককে বলেন, মাত্র তিন দিনে এতগুলো বৈঠকে অংশ নিতে গিয়ে প্রতিদিন রাত ৯টা-১০টা বেজে যেত। তাই এ বছর ডিসি সম্মেলন দুই দিন বাড়ানো হয়েছে। আশা করি এবারের প্রতিদিনের কার্যক্রম ৫টার মধ্যেই শেষ হয়ে যাবে।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের নেওয়া এ সিদ্ধান্ত ও কার্যসূচি এখন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠানো হবে। প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন করলে সম্মেলনের অন্যান্য আনুষঙ্গিক কার্যক্রম শুরু করবে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, ১৪ জুলাই অর্থাৎ প্রথম দিন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে সম্মেলনের উদ্বোধন হওয়ার পর ডিসিদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী মুক্ত আলোচনায় অংশ নেবেন। এদিন একটি কার্য-অধিবেশন অনুষ্ঠিত হবে। দ্বিতীয় দিনে টানা ছয়টি কার্য-অধিবেশনে ১৯টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের মন্ত্রী-সচিবদের সঙ্গে বৈঠক করবেন ডিসিরা। এরপর সন্ধ্যায় রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন বঙ্গভবনে। তৃতীয় দিন টানা পাঁচটি অধিবেশনে ১২টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের মন্ত্রী-সচিবদের সঙ্গে বৈঠক করবেন। এরপর বিকেলে প্রধান বিচারপতির সঙ্গে সাক্ষাতের সময় নির্ধারিত আছে। চতুর্থ দিনের জন্য নির্ধারিত আটটি কার্য অধিবেশনে ১৯টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের মন্ত্রী-সচিবদের সঙ্গে বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। শেষ অর্থাৎ পঞ্চম দিনে চারটি অধিবেশনে চারটি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের বৈঠক নির্ধারিত আছে। এদিন বিকেলেই জাতীয় সংসদে স্পিকারের সঙ্গে সাক্ষাতের মাধ্যমে শেষ হবে ডিসিদের সম্মেলনের আনুষ্ঠানিকতা।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (জেলা ও মাঠ প্রশাসন অধিশাখা) সাইদুর রহমান মঙ্গলবার সন্ধ্যায় কালের কণ্ঠকে বলেন, এবারই প্রথম পাঁচ দিনে ডিসি সম্মেলন করার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। এর আগে তিন দিনের সময় থাকলেও কার্যত চার দিনই লেগে যেত।

মন্তব্য