kalerkantho

শুক্রবার । ২৪ মে ২০১৯। ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৮ রমজান ১৪৪০

মনোনয়নপ্রার্থীদের সাক্ষাৎকার নিচ্ছে জাতীয় পার্টি

সব সিদ্ধান্তের ভার এরশাদের ওপর

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২১ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মনোনয়নপ্রার্থীদের সাক্ষাৎকার নিচ্ছে জাতীয় পার্টি

জাতীয় পার্টি ৩০০ আসনে নির্বাচন করবে কি না? মহাজোট বা অন্য কোনো জোটে যাবে কি না? জোটে গেলে দল কোন কোন আসনে লড়বে—এ সবকিছুর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার ভার দেওয়া হয়েছে পার্টির চেয়ারম্যান সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের ওপর। গতকাল দুপুরের গুলশানের একটি কনভেনশন হলে জাতীয় পার্টির মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার গ্রহণের সূচনা বক্তব্যে দলের কেন্দ্রীয় নেতারা এরশাদকে এ দায়িত্ব দেন।

স্বাগত বক্তব্যে জাতীয় পার্টির মহাসচিব এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার এরশাদের উদ্দেশে বলেন, ‘আপনি সঠিক পথেই হাঁটছেন, দলের সব কিছুর সিদ্ধান্ত নেবেন আপনি, জাতীয় পার্টির সবাই আপনার

সাথে আছে, কেউ আপনাকে ছেড়ে যাবে না। সবাই আপনাকে বিশ্বাস করেন।’

অনুষ্ঠানে এরশাদ বলেন, জাতীয় পার্টি দুঃসময় পেরিয়ে জেগে উঠেছে। এবার অনেক লোক পার্টির মনোনয়ন ফরম কিনেছেন। এতে বোঝা যায়, জাতীয় পার্টি সাংগঠনিক রূপ নিয়েছে। এটা আমাদের ধরে রাখতে হবে।’

এরশাদের বক্তব্যের মধ্যেই নেতাকর্মীরা সরব হয়ে ওঠে। দাবি ওঠে ৩০০ আসনে প্রার্থী দিতে হবে। নেতাকর্মীদের দাবির জবাবে পার্টির চেয়ারম্যান বলেন, ‘আপনারা শান্ত হোন, ভরসা রাখুন, আমার ওপর ছেড়ে দিন। আমরা ৩০০ আসনে দলীয় প্রার্থীর নাম ঘোষণা করব। তবে রাজনৈতিক কারণে যদি কোনো জোটে যেতে হয়, সে সিদ্ধান্তও আমি নেব।’

এরশাদ বলেন, ‘আজ এখানে এত লোক। এতে প্রমাণিত হয়েছে জাতীয় পার্টি বিলীন হয়নি। আপনারা আমার ওপর আস্থা রাখুন, চেয়ারম্যান হিসেবে আমাকে সঠিক দায়িত্ব পালন করতে হবে। সবাইকে প্রার্থী করতে পারব না। আমি যাকে যোগ্য মনে করব তাকে প্রার্থী করব, অন্যদের সেটা মেনে নিতে হবে।’

গত ১১ নভেম্বর থেকে পাঁচ দিন জাতীয় পার্টি দলীয় মনোনয়ন ফরম বিক্রি করে। এবার দুই হাজার ৮৬৫ জন নেতা এবার জাতীয় পার্টির মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন। গতকাল থেকে মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার শুরু হলো। কয় দিন চলবে, তা নির্ধারণ করা হয়নি।

পার্টির মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার জানিয়েছেন, এর মধ্যে থেকে বাছাই করে ৮০০ জনের সাক্ষাৎকার নেওয়া হবে। তাঁদের মধ্যে থেকে ঠিক করা হবে ৩০০ জন প্রার্থী।

মন্তব্য