kalerkantho

শনিবার । ২৫ মে ২০১৯। ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৯ রমজান ১৪৪০

দুদকের মামলা

তিন বছর সাজার পর বিএনপি নেতা রফিকুল গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২১ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



তিন বছর সাজার পর বিএনপি নেতা রফিকুল গ্রেপ্তার

সম্পদের হিসাব না দেওয়ার অভিযোগ দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা মামলায় সাবেক মন্ত্রী, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য রফিকুল ইসলাম মিয়াকে তিন বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। গতকাল মঙ্গলবার ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৬-এর বিচারক ড. শেখ গোলাম মাহবুব এ রায় দেন।

কারাদণ্ডের পাশাপাশি রফিকুল ইসলামকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। জরিমানার টাকা দিতে ব্যর্থ হলে তাঁকে আরো তিন মাস কারাভোগ করতে হবে বলে রায়ে উল্লেখ করা হয়েছে।

গতকাল এ রায় ঘোষণা করার সময় আইনজীবী ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া আদালতে হাজির ছিলেন না। পলাতক আসামি হিসেবেই রায় ঘোষণা করা হয়। পরে আদালত তাঁর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির নির্দেশ দেন। আদালত বলেছেন যে তিনি গ্রেপ্তার হওয়ার পর রায় কার্যকর হবে। এরপর সন্ধ্যায় রফিকুল ইসলাম মিয়াকে ইস্কাটনের বাসা থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

তবে বিএনপির চেয়ারপারসনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান বলেন, সন্ধ্যায় দলের গুলশান কার্যালয় থেকে নিজ বাসায় ফেরার পথে রফিকুল ইসলাম মিয়াকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

পুলিশের গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) উত্তর বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনার (এডিসি) শাহজাহান সাজু বলেন, তাঁর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা রয়েছে। এ কারণে তাঁকে সন্ধ্যায় ইস্কাটনের বাসা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০০১ সালের ৭ এপ্রিল রফিকুল ইসলামকে সম্পদের হিসাব জমা দিতে দুর্নীতি দমন কমিশন একটি নোটিশ দেয়। একই বছরের ১০ জুন তিনি নোটিশটি গ্রহণ করেন। কিন্তু নোটিশ গ্রহণ করার পরও তিনি সম্পদের হিসাব জমা দেননি। পরে ২০০৪ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর কমিশনের কর্মকর্তা লিয়াকত হোসেন বাদী হয়ে রাজধানীর উত্তরা থানায় মামলা করেন। গত বছরের ১৪ নভেম্বর রফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়। বাদীসহ ছয়জন এই মামলায় সাক্ষ্য দেন।

মন্তব্য