kalerkantho

অনিবার্য কারণে আজ শেয়ারবাজার প্রকাশিত হলো না। - সম্পাদক

জন্মাষ্টমী উদ্যাপন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৬ আগস্ট, ২০১৬ ০০:০০ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



জন্মাষ্টমী উদ্যাপন

ধর্মীয় ভাবগম্ভীর পরিবেশে গতকাল বৃহস্পতিবার শ্রীকৃষ্ণের জন্মতিথি জন্মাষ্টমী উদ্যাপিত হয়েছে। রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে এ উপলক্ষে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা, কৃষ্ণপূজা, আলোচনা সভাসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করা হয়। এ উপলক্ষে গতকাল ছিল সরকারি ছুটি। রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ দুপুরে বঙ্গভবনে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। রাষ্ট্রপতি অতিথিদের স্বাগত জানান ও তাদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন। বাংলাদেশ বেতার, টেলিভিশনসহ বেসরকারি স্যাটেলাইট চ্যানেলে সম্প্রচারিত হয় বিশেষ অনুষ্ঠান।

রাজধানীতে মহানগর সর্বজনীন পূজা উদ্যাপন কমিটি ও বাংলাদেশ পূজা উদ্যাপন পরিষদ শোভাযাত্রার আয়োজন করে। এতে হাজারো মানুষ অংশ নেয়। বিকেল ৩টায় ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দির থেকে শোভাযাত্রাটি বের হয়। পলাশী হয়ে শহীদ মিনার, হাইকোর্টের সামনে দিয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন ভবন, গুলিস্তান হয়ে নবাবপুরে গিয়ে বাহাদুর শাহ পার্কে গিয়ে শেষ হয়। পলাশীর মোড়ে শোভাযাত্রার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু। শোভাযাত্রার উদ্বোধন করেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র সাঈদ খোকন। দিনটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ বঙ্গভবনে হিন্দু সম্প্রদায়ের নাগরিকদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। শুভেচ্ছা বিনিময়কালে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ বিদ্যমান ভ্রাতৃত্ব ও বন্ধুত্বের বন্ধন আরো দৃঢ় করতে সব ধর্মের লোকের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। একতা ও ধর্মনিরপেক্ষতার প্রতি দেশের মানুষের দৃঢ় আস্থা রয়েছে। দেশের অগ্রগতি ও সমৃদ্ধি অর্জনের জন্য বিদ্যমান ভ্রাতৃত্ব ও বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের মিলিত প্রচেষ্টা রয়েছে। শ্রীকৃষ্ণের প্রধান আদর্শ ছিল সমাজে মানুষের মধ্যে সংঘাত অবসানে সত্যিকার ভালোবাসা ও সম্প্রীতি গড়ে তোলা—এ কথা উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি বলেন, শ্রীকৃষ্ণ জীবনব্যাপী মানবতার মুক্তির পথ খুঁজেছেন।

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা, ধর্মবিষয়ক মন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান এবং আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সতীশ চন্দ্র রায়, সিপিডির বিশিষ্ট ফেলো দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য, গায়ক সুবীর নন্দী, বিশিষ্ট চিকিৎসক সামন্ত লাল সেন, অরূপ রতন চৌধুরী এ সময় উপস্থিত ছিলেন। পাশাপাশি হিন্দু ধর্মীয় ব্যক্তিত্ব, হিন্দু সম্প্রদায়ের নেতারা এবং হিন্দু সম্প্রদায়ের বিভিন্ন পেশার ব্যক্তিরা সংবর্ধনায় অংশ নেয়।

চট্টগ্রাম মহানগরে জন্মাষ্টমীর মহাশোভাযাত্রায় লাখো মানুষের ঢল নামে। সকালে নগরের জে এম সেন হল এলাকা থেকে শোভাযাত্রা বের হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে। এ ছাড়া দিনব্যাপী ধর্মীয় নানা অনুষ্ঠানের মাধ্যমে যথাযোগ্য মর্যাদায় জন্মাষ্টমী পালন করেছে হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা। চট্টগ্রাম থেকে নিজস্ব প্রতিবেদক জানান, শ্রীশ্রী জন্মাষ্টমী উদ্যাপন পরিষদ-কেন্দ্রীয় কমিটি আয়োজিত চট্টগ্রামে শোভাযাত্রার উদ্বোধন করেন সাবেক সংসদ সদস্য ও চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নুরুল আলম চৌধুরী। দিলীপ দাশের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মোছলেম উদ্দিন আহমদ ও সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান, শ্রীশ্রী জন্মাষ্টমী উদ্যাপন পরিষদ কেন্দ্রীয় সভাপতি ও রাউজান পৌরসভার মেয়র দেবাশীষ পালিত, রাখাল দাশগুপ্ত, চসিক মেয়র প্যানেলের সদস্য চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, সংগঠনের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট চন্দন তালুকদার, সাবেক কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট তপন কান্তি দাশ প্রমুখ।

উদ্বোধনের পর শোভাযাত্রাটি আন্দরকিল্লা, লালদীঘি, কোতোয়ালি, নিউ মার্কেট, তুলসীধাম, ডিসি হিল, চেরাগী পাহাড় হয়ে জে এম সেন হল প্রাঙ্গণে পৌঁছে। তবে তখন শোভাযাত্রার শেষ অংশ ছিল আন্দরকিল্লা পর্যন্ত বিস্তৃত। এ সময় প্রায় পাঁচ কিলোমিটার এলাকা প্রদক্ষিণকালে হাজার হাজার নারী-পুরুষ বিভিন্ন স্থানে দাঁড়িয়ে বাড়ির ছাদ থেকে ফুল ও উলুধ্বনি দিয়ে মহাশোভাযাত্রাকে স্বাগত জানায়। ঢাক-ঢোলের বোল, ব্যান্ডের বাজনা, ভগবান শ্রীকৃষ্ণের বিভিন্ন রূপে সেজে, কৃষ্ণ জয়গানে মুখর হয়ে ওঠে পুরো এলাকা। এতে নগর ও জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে লাখো মানুষ অংশ নেয় বলে আয়োজকরা জানান।

গতকাল সকাল থেকেই চট্টগ্রামের জে এম সেন হল মাঠে আয়োজিত জন্মাষ্টমী অনুষ্ঠানেও ভক্ত ও দর্শনার্থীদের উপচে পড়া ভিড় লক্ষ করা যায়। দুপুর ১২টায় উৎসব মঞ্চে পান্না পালের সভাপতিত্বে মাতৃসম্মেলন উদ্বোধন করেন চট্টগ্রাম রামকৃষ্ণ মিশনের অধ্যক্ষ শ্রীমৎ শক্তিনাথানন্দজী মহারাজ। আর্শীবাদক ছিলেন ইসকনের শ্রীল চিন্ময়কৃষ্ণ দাস ব্রহ্মচারী, শ্রীমৎ স্বামী লক্ষ্মী নারায়ণ কৃপানন্দ পুরী মহারাজ। আলোচনায় অংশ নেন অধ্যক্ষ রীতা দত্ত, অধ্যাপক রূপন ধর ও অধ্যাপক পপি সাহা। এ ছাড়া নগর এবং জেলার বিভিন্ন স্থানেও জন্মাষ্টমী উপলক্ষে শোভাযাত্রাসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠান হয়েছে।

খুলনা অফিস জানায়, জন্মাষ্টমী উপলক্ষে দুপুরে ধর্মীয় আলোচনা সভা ও বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের হয়। বাংলাদেশ পূজা উদ্যাপন পরিষদ খুলনা মহানগর ও জেলা শাখা যৌথভাবে নগরীর আর্য ধর্মসভা মন্দির প্রাঙ্গণে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। পূজা উদ্যাপন পরিষদ খুলনা মহানগর শাখার সভাপতি শ্যামল হালদারের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সংসদ সদস্য মিজানুর রহমান মিজান। বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন খুলনা বিভাগীয় কমিশনার মো. আব্দুস সামাদ, খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার নিবাস চন্দ্র মাঝি, খুলনা জেলা প্রশাসক নাজমুল আহসান, খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের উপকমিশনার (দক্ষিণ) মোল্লা জাহাঙ্গীর হোসেন প্রমুখ। বক্তব্য দেন বাংলাদেশ পূজা উদ্যাপন পরিষদ খুলনা জেলা সভাপতি বিজয় কুমার ঘোষ, সাধারণ সম্পাদক প্রশান্ত কুমার কুণ্ডু, রতন দেবনাথ প্রমুখ। আলোচনা সভা শেষে দুপুর ২টার দিকে নগরীর আর্য ধর্মসভা মন্দির থেকে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের হয়ে নগরীর প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

সংশোধনী : গতকাল কালের কণ্ঠে ‘আজ শুভ জন্মাষ্টমী’ শীর্ষক সংবাদে অসাবধানতাবশত শ্রীকৃষ্ণের বাবার নাম বাসুদেব ছাপা হয়েছে। প্রকৃতপক্ষে শ্রীকৃষ্ণের বাবার নাম হবে বসুদেব। এ ছাড়া ‘অবতার হয়ে বারবার পৃথিবীতে এসেছিলেন শ্রীকৃষ্ণ’ বাক্যাংশটিতে শ্রীকৃষ্ণের স্থলে ভগবান হবে। কারণ, ভগবান পৃথিবীতে অবতার হয়ে বারবার আসেন। শ্রীকৃষ্ণ একবারই জন্ম নেন।

 

মন্তব্য