kalerkantho

জোকস : অল্প বয়সেই বিয়ে করে ফেলেছিলাম, দোস্ত...

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৫ নভেম্বর, ২০১৮ ১৬:৪১ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



জোকস : অল্প বয়সেই বিয়ে করে ফেলেছিলাম, দোস্ত...

মন্টুর বাপ খুব পেরেশান হয়ে কিছু খুঁজছিল নিজের রুমে। অকেক্ষণ বিষয়টি খেয়াল করার পর বস তাকে ডাকলেন-

বস: কী খুঁজছো অমন করে?

মন্টুর বাপ: পানিফলের হালুয়া এনেছিলাম স্যার, স্মরণশক্তি বাড়ানোয় খুব কাজে দেয়।

বস: তো?

মন্টুর বাপ: কিন্তু এখন তো মনেই করতে পারছি না কোথায় রেখেছিলাম!

                                                (২)

শফিক: দোস্ত, জীবনে শান্তি জিনিসটা আসলে কী, বলতো?

রফিক: বলতে পারছি না রে, দোস্ত।

শফিক: কেন!

রফিক: অল্প বয়সেই বিয়ে করে ফেলেছিলাম তো...

                                                (৩)
স্বপ্না: দরোজার ওপাশে কে?

রিতা: আমি।

স্বপ্না: আমি কে?

রিতা: আরে বুদ্ধু, তুই স্বপ্না, নিজেকেও চিনতে পারছিস না!

                                                (৪)

জেলখানায় পুরনো আর নয়া দুই কয়েদিতে দোস্তি হয়ে গেল। দুজনে গল্প করছে... 

পুরনো কয়েদি: তোমার মতো ভাল মানুষ ধরা খাইলা কেমনে?

নয়া কয়েদি: ব্যাংক লুটতে গেছিলাম। তো টাকার বস্তা নিয়ে ওখানেই গুণতে বসে যাই...

পুরনো কয়েদি: কী আশ্চর্য! এ কাজ করতে গেলে গেলে কেন!

নয়া কয়েদি: কী করবো! সামনেই দেখলাম লেখা: কাউন্টার ত্যাগ করার আগে টাকা গুণে নিন। পরে ব্যাংক কর্তৃপক্ষকে দায়ী করা চলবে না...

                                                (৫) 

শিক্ষক: বিদ্যুৎ বিভাগের মালিক কে, বল দেখি মন্টু?

মন্টু: আমার মামা, ম্যাডাম।

শিক্ষক: বলে কি ছেলে! তোমার মামা মালিক হতে যাবে কেন?

মন্টু: কারণ, বিদ্যুৎ চলে গেলেই বাবা চিৎকার করে বলে- শালার কারেন্ট আবার গেল!

                                                (৬)

মন্টুর বাপ: কী পাকাচ্ছো এতো মনোযোগ দিয়ে?

মন্টুর মা: আলুর দম করছি। কিন্তু আলু তো গলছেই না!

মন্টুর বাপ: কিছুক্ষণ আলুর সঙ্গে মধুমাখা সুরে গল্প করো... সেই যে প্রথম দিকে আমার সঙ্গে যেমন করতে!

মন্টুর মা: তবে রে... (হাতের চামচ নিয়ে দৌড়ে যায় স্বামীর দিকে। মন্টুর বাপ দৌড়ে পালায়) 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা