kalerkantho

বুধবার । ২৬ জুন ২০১৯। ১২ আষাঢ় ১৪২৬। ২৩ শাওয়াল ১৪৪০

ইসলামময় জীবন

কখন বসে নামাজ পড়া যাবে

১২ জুন, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কখন বসে নামাজ পড়া যাবে

♦ দাঁড়িয়ে নামাজ পড়তে সক্ষম ব্যক্তির জন্য ফরজ ও ওয়াজিব নামাজ বসে পড়া সহিহ নয়। (সহিহ বুখারি, হাদিস : ১০৫০)

♦ দাঁড়িয়ে নামাজ পড়তে সক্ষম ব্যক্তির জন্য নফল নামাজ বসে পড়া জায়েজ। (সহিহ বুখারি, হাদিস : ১০৪৯)

♦ যে ব্যক্তি বসে নামাজ পড়বে সে তাশাহহুদের মতো করে বসবে। (মুসান্নাফে ইবনে আবি শায়বা : ২/৫২৭)

♦ দাঁড়িয়ে নফল নামাজ শুরু করা ব্যক্তি বসে তা পরিপূর্ণ করতে পারে, তাতে কোনো অসুবিধা নেই। (সহিহ বুখারি, হাদিস : ৪/২৭৪)

♦ বাহনের (পশু হলে, যেমন ঘোড়ার) ওপর ফরজ নামাজ সহিহ হয় না। (সহিহ বুখারি, হাদিস : ১০৩৫)

♦ বাহনের ওপর ওয়াজিব নামাজ সহিহ হয় না। (তাহাবি : ২/২৫৯) সুতরাং বিতর নামাজ, মানতের নামাজ এবং এমন নফল নামাজ, যার কাজা ওয়াজিব হয়েছে ইত্যাদি নামাজ বাহনের ওপর পড়া জায়েজ হবে না। (তাহাবি : ২/২৫৯; ইবনে আবি শায়বা : ২/৩০৩)

♦ নামাজির কোনো অপারগতা থাকলে, যেমন—বাহন থেকে নামলে দুশমনের ভয় আছে, অথবা কোনো জন্তুর হামলার ভয়, অথবা বেশি কাদা ইত্যাদি অবস্থায় ফরজ-ওয়াজিব সবই বাহনের ওপর পড়া যাবে। তেমনি যে ব্যক্তি নিজে বাহনে চড়তে পারে না, বরং তাকে উঠিয়ে দিতে হয়, এমন ব্যক্তির জন্যও এই বিধান। (সহিহ বুখারি, হাদিস : ৯৪৪)

♦ সুন্নতে মুয়াক্কাদা বাহনের ওপরও জায়েজ। (সহিহ বুখারি,           হাদিস : ১০৪৯) তবে ফজরের সুন্নত এই হুকুমের অন্তর্ভুক্ত নয়; বরং তা ওয়াজিবের হুকুমের অন্তর্ভুক্ত। কারণ এই সুন্নতগুলোর গুরুত্ব স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি। (মুসলিম, হাদিস : ১১৯৩)

♦ শহর বা বাইরে বাহনের ওপর নফল নামাজ পড়া হলে তা ইশারার মাধ্যমে পড়া বৈধ, বাহন যেদিকে যাবে যাক। (সহিহ বুখারি,       হাদিস : ১০৩৪; মুসনাদে আহমাদ : ১৫১১৩)

♦ ইমাম আবু হানিফা (রহ.)-এর মতে, কোনো ওজর ছাড়াও জাহাজের ওপর বসে নামাজ পড়া জায়েজ। (সুনানে কুবরা, হাদিস : ৫৭০২)

♦ ইমাম আবু ইউসুফ (রহ.)-এর মতে, কোনো ওজর ছাড়া জাহাজে বসে নামাজ পড়া জায়েজ নেই। (দারাকুতনি, হাদিস : ১৪৯)

♦ রুকু-সিজদায় সক্ষম ব্যক্তির জন্য জাহাজে ইশারা করে নামাজ পড়া সহিহ নয়। (সহিহ বুখারি, হাদিস : ১০৫০)

♦ যদি জাহাজ কিনারায় বাঁধা অবস্থায় থাকে, তখন দাঁড়িয়ে নামাজ পড়তে সক্ষম ব্যক্তির জন্য বসে নামাজ পড়া জায়েজ নেই।

♦ জাহাজ থেকে স্থলে আসতে অপারগ হলে জাহাজে নামাজ পড়া জায়েজ; চলন্ত অবস্থায় হোক বা নোঙর করা অবস্থায় হোক। (সুনানে কুবরা, হাদিস : ৫৭০২; ইবনে আবি শায়বা : ২/২৬৭)

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা