kalerkantho

সোমবার। ১৭ জুন ২০১৯। ৩ আষাঢ় ১৪২৬। ১৩ শাওয়াল ১৪৪০

ইসলামী তত্ত্বকথা

যেভাবে সমাজে পাপের সূচনা ও বিস্তার ঘটে

ইসলামী জীবন ডেস্ক   

২৩ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সমাজে পাপের সূচনা হয় বিত্তশালী ও নেতৃস্থানীয়দের মাধ্যমে। একটি সমাজ পাপে ভরে যাওয়ার আগে ওই জাতির নেতৃস্থানীয় পদে এমন লোকেরা অধিষ্ঠিত হয়, যারা বিলাসপ্রিয়, পাপাচারী ও ইন্দ্রিয়সেবী। অথবা শাসনকর্তা না হলেও ওই জাতির মধ্যে এ ধরনের লোকের আধিক্য সৃষ্টি করে দেওয়া হয়। উভয় অবস্থার পরিণতি এই যে তারা পাপাচার ও বিলাসিতার স্রোতে গা ভাসিয়ে আল্লাহর অবাধ্যতায় লিপ্ত হয়। পাশাপাশি অন্যদের জন্যও পাপাচারের ক্ষেত্র তৈরি করে।

সাধারণ মানুষ স্বাভাবিকভাবেই ওই বিত্তশালী ও শাসকশ্রেণির চরিত্র ও কর্মের দ্বারা প্রভাবিত হয়। ফলে তাদের অনুসরণে সাধারণ মানুষও পাপাচারে জড়িয়ে পড়তে থাকে। তাদের বেপরোয়া জীবনাচার অন্যদের মধ্যে অতি দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। তখন ওই সমাজে ক্ষয় ও লয় শুরু হয়। আর সমাজের এই ক্ষয় ও লয় একসময় পুরো সমাজকে আচ্ছন্ন করে ফেলে। ফলে সেখানকার সম্মানিত ও সৎ হিসেবে পরিচিত লোকেরাও পাপের গণ্ডি পার হতে পারে না। তারাও তখন পাপে লিপ্ত হয়। এ বিষয়ে কোরআনে এসেছে, ‘যখন আমি কোনো জনবসতি ধ্বংস করতে চাই, তখন তার সমৃদ্ধিশালী লোকদের (সৎকর্ম করতে) নির্দেশ দিয়ে থাকি। কিন্তু তারা সেখানে অসৎ কাজ করতে থাকে। আর তখন (আজাবের) ফয়সালা ওই জনবসতির ওপর অবধারিত হয়ে যায়। আমি তা সম্পূর্ণভাবে বিধ্বস্ত করে দিই।’ (সুরা : বনি ইসরাঈল, আয়াত : ১৬)
 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা