kalerkantho

সোমবার। ১৭ জুন ২০১৯। ৩ আষাঢ় ১৪২৬। ১৩ শাওয়াল ১৪৪০

ধারাবাহিক তাফসির

ঈমানদাররা মুহূর্তের মধ্যে পুলসিরাত পার হবে

গ্রন্থনা : মুফতি কাসেম শরীফ

২৩ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ঈমানদাররা মুহূর্তের মধ্যে পুলসিরাত পার হবে

৭২. পরে আমি (পুলসিরাত থেকে) মুত্তাকিদের উদ্ধার করব। আর জালিমদের সেখানে নতজানু অবস্থায় রেখে দেব। (সুরা : মারিয়াম, আয়াত : ৭২)

তাফসির : আগের আয়াতে বলা হয়েছিল, সবাইকে পুলসিরাত পাড়ি দিতে হবে। আলোচ্য আয়াতে বলা হয়েছে, পুলসিরাতের বিভীষিকাময় পথ থেকে মহান আল্লাহ ঈমানদার-মুত্তাকিদের রক্ষা করবেন। আর অবিশ্বাসীরা নতজানু অবস্থায় জাহান্নামে নিক্ষিপ্ত হবে। পুলসিরাতের প্রকৃত স্বরূপ সম্পর্কে বিস্তারিত জানা যায় না। তাই কোরআন ও হাদিসে এ বিষয়ে যা বর্ণিত হয়েছে, তা মনেপ্রাণে বিশ্বাস করা ঈমানের দাবি।

ইসলামে এমন কয়েকটি বিষয় রয়েছে, যেগুলো নিতান্ত ‘গায়েবের ওপর ঈমান’ আনার সঙ্গে সম্পৃক্ত। সেগুলো যুক্তিতর্কের ঊর্ধ্বে। পুরসিরাতের ওপর ঈমান আনা সে বিষয়গুলোর অন্যতম।

পুলসিরাত পার হওয়া সম্পর্কে হাদিস শরিফে এসেছে, সেদিন কেউ বিদ্যুতের গতিতে, কেউ বাতাসের গতিতে, কেউ ঘোড়ার গতিতে, কেউ আরোহীর গতিতে, কেউ দৌড়িয়ে, আবার কেউ হাঁটার গতিতে পুলসিরাত অতিক্রম করবে। (বুখারি, হাদিস : ৭০০১)

উম্মুল মুমিনিন আয়েশা সিদ্দিকা (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, জাহান্নামের ওপর একটি পুল আছে, যা চুলের চেয়েও বেশি চিকন আর তরবারির চেয়েও বেশি ধারালো। এর ওপর লোহার শিকল ও কাঁটা থাকবে। মানুষ এর ওপর দিয়েই গমন করবে। কেউ চোখের পলকে, কেউ বিদ্যুত্গতিতে, কেউ বায়ুবেগে আর কেউ উত্তম ঘোড়া ও উটের গতিতে পার হবে। আর ফেরেশতারা বলতে থাকবে, ‘হে আল্লাহ! আমাদের নিরাপদে অতিক্রম করাও, হে আল্লাহ! নিরাপদে পার করাও।’ পরে কেউ মুক্তি পাবে আর কেউ আহত হবে, কেউ উপুড় হয়ে পড়বে আর অনেকে অধোমুখী হয়ে জাহান্নামে পড়ে যাবে। (মুসনাদে আহমাদ : ২৪৮৪৭)

নজর ইবনে আনাস বিন মালিক তাঁর পিতা থেকে বর্ণনা করেন, তিনি বলেন, আমি রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর কাছে কিয়ামতের দিন শাফায়াত কামনা করেছিলাম। মহানবী (সা.) বলেন, আমি তোমার জন্য সুপারিশ করব। আমি বললাম, হে আল্লাহর রাসুল! আমি আপনাকে কোথায় খোঁজ করব? তিনি বলেন, তুমি আমাকে প্রথম তালাশ করবে পুলসিরাতের পাশে। বললাম, যদি পুলসিরাতে আপনার সাক্ষাৎ না পাই? তিনি বলেন, তাহলে হাউজে কাউসারের পাশে তালাশ করবে। আমি বললাম, যদি সেখানেও না পাই? তিনি বলেন, তাহলে মিজানের পাশে তালাশ করবে। এই তিনটি স্থানে আমি থাকব। (তিরমিজি, হাদিস : ২৩৭০)

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা