kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০২২ । ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ৮ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

ভারতে আইফোন ১৪ উৎপাদনের প্রস্তুতি নিচ্ছে অ্যাপল

অনলাইন ডেস্ক   

২৪ আগস্ট, ২০২২ ১৯:০২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ভারতে আইফোন ১৪ উৎপাদনের প্রস্তুতি নিচ্ছে অ্যাপল

ছবি: ইন্টারনেট

চলমান রাজনৈতিক অস্থিরতা এবং করোনার প্রভাবে আইফোনের পরবর্তী সংস্করণের উৎপাদন ভারতে সরিয়ে নেওয়ার পরিকল্পনা করছে অ্যাপল। চীনে আইফোন ১৪ বাজারে আসার দুই মাস পর ভারতে ফোনটি উৎপাদনের কথা রয়েছে। আগে আইফোনের নতুন সংস্করণ আসলে ভারতের বাজারে আসতে তা ছয় থেকে নয় মাস সময় লেগে যেত। এখন থেকে এই ব্যবধান কমে আসবে।

বিজ্ঞাপন

কম্পানিটি ভারতে উৎপাদন বাড়াতে সরবরাহকারীদের সাথে কাজ শুরু করছে। সেপ্টেম্বরে রিলিজের পর দেশটিতে প্রথম আইফোন ১৪এস উৎপাদন অক্টোবরের শেষে কিংবা নভেম্বরে শেষ হতে পারে বলে জানা গেছে।

চায়না থেকে ভারতের চেন্নাই শহরের বাইরে আইফোনের প্ল্যান্টে পণ্য পাঠানো এবং আইফোন ১৪ সংযোজনের প্রক্রিয়াটি খতিয়ে দেখছে অ্যাপলের তাইওয়ান ভিত্তিক সরবরাহকারী ফক্সকন। তাদের করা এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্র এবং চীন সরকারের মধ্যকার রাজনৈতিক উত্তেজনা এবং করোনায় চীন থেকে সরবরাহ ব্যহত হওয়ার কারণে কম্পানিটি চীনের বিকল্প খুঁজছে।

অ্যাপল আইফোন উৎপাদনের বেশ কিছু ক্ষেত্র বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম স্মার্টফোনের বাজার ভারতসহ অন্যান্য দেশে সরিয়ে নিয়েছে।   এছাড়া তারা ভারতে আইপ্যাড সংযোজনের পরিকল্পনাও করছে। ভারত এবং অন্যান্য দেশ যেমন মেক্সিকো এবং ভিয়েতনাম আমেরিকান কম্পানিগুলোর চুক্তিভিত্তিক প্রস্তুতকারকদের কাছে বেশ গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছে। কারণ তারা চীন থেকে বেরিয়ে উৎপাদনে বৈচিত্র্য আনার চেষ্টা করছে।

এর আগে, যুক্তরাষ্ট্র চীনের সেমিকন্ডাক্টর সেক্টরের অগ্রগতি ঠেকাতে এবং মার্কিন কম্পানিগুলোকে রক্ষা করতে চীনের মেমরি চিপ প্রস্তুতকারকদের কাছে আমেরিকান চিপমেকিং সরঞ্জামের চালান সীমিত করেছে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রশাসন যদি এই পদক্ষেপ নিয়ে আগায়, তাহলে দক্ষিণ কোরিয়ার মেমরি চিপের শক্তিশালী দুই প্রতিষ্ঠান স্যামসাং এবং এসকে হাইনিক্স ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশংকা রয়েছে। দুইটি কম্পানিরই বেশ বড় বড় কারখানা রয়েছে।

গত সপ্তাহে নিক্কেই জানিয়েছে যে অ্যাপল সরবরাহকারীরা প্রথমবারের মতো ভিয়েতনামে অ্যাপল ওয়াচ এবং ম্যাকবুক তৈরি করার জন্য আলোচনা করছে।

সূত্র : রয়টার্স।



সাতদিনের সেরা