kalerkantho

রবিবার । ২৬ জুন ২০২২ । ১২ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৫ জিলকদ ১৪৪৩

বাংলাদেশে উদ্বোধন হলো চীনের হিকভিশনের কারখানা

অনলাইন ডেস্ক   

২৬ মার্চ, ২০২২ ১৭:৫৩ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



বাংলাদেশে উদ্বোধন হলো চীনের হিকভিশনের কারখানা

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে

ব্রাজিল ও ভারতের পর তৃতীয় দেশ হিসেবে বাংলাদেশে হিকভিশন ব্র্যান্ডের নজরদারী সরঞ্জাম উৎপাদন কারখানা উদ্বোধন হলো। ২৫ মার্চ গাজীপুরের কালিয়াকৈরের বঙ্গবন্ধু হাই-টেক সিটি’তে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম প্রধান অতিথি হিসেবে এই কারখানার উদ্বোধন করেন। এ সময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বিকর্ণ কুমার ঘোষ এবং হিকভিশন সাউথ এশিয়ার প্রেসিডেন্ট হুগো হুয়াং। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন এক্সেল টেকনোলজিস লিমিটেড এবং এক্সেল ইন্টেলিজেন্ট সলিউশন্স লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক গৌতম সাহা।

বিজ্ঞাপন

উদ্বোধনকৃত এই কারখানায় বিশ্বখ্যাত নিরাপত্তা নজরদারী সলিউশন ব্র্যান্ড ‘হিকভিশন’-এর অত্যাধুনিক নিরাপত্তা নজরদারী যন্ত্রপাতি তৈরি হবে। বাংলাদেশে হিকভিশনের প্রথম ও জাতীয় সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান এক্সেল টেকনোলজিস লিমিটেডের সহযোগী প্রতিষ্ঠান এক্সেল ইন্টেলিজেন্ট সলিউশন্স লিমিটেড বঙ্গবন্ধু হাই-টেক সিটি’র সেবা ভবনে প্রাথমিক পর্যায়ের এই কারখানা স্থাপন করেছে। চীনের শীর্ষস্থানীয় নিরাপত্তা নজরদারী সমাধান প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান হিকভিশন ডিজিটাল টেকনোলজি কো. লি. এতে কারিগরী সহায়তা প্রদান করছে।

উদ্বোধনী অুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জিয়াউল আলম বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু হাই-টেক সিটি-তে বাংলাদেশের প্রথম নিরাপত্তা নজরদারী সরঞ্জামের উৎপাদন কারখানা উদ্বোধন করতে পেরে আমি আনন্দিত। আমাদের দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতে বিনিয়োগ বৃদ্ধি পাচ্ছে, এই উৎপাদন কারখানা স্থাপন তার সম্যক উদাহরণ, আর হিকভিশনের মতো বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় নিরাপত্তা নজরদারী পণ্য বাংলাদেশে তৈরি হচ্ছে, এটি আমাদের জন্য এক বিশাল অর্জন। এভাবে এখন আমাদের দেশে অনেক ডিভাইস তৈরি হওয়ার ফলে ‘মেইড ইন বাংলাদেশ’ কর্মসূচি গতি পাচ্ছে। এ কারণে খুব শীঘ্রই সরকার ‘মেইড ইন বাংলাদেশ নীতিমালা’ ঘোষণা করতে যাচ্ছে। সরকার টেন্ডারে স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত পণ্যকে অগ্রাধিকার দিচ্ছে, যাতে করে দেশে তৈরি পণ্যের বাজার সৃষ্টি হয়, উৎপাদন বৃদ্ধি পায় এবং দেশীয় চাহিদা মিটিয়ে রপ্তানী করা যায়। অন্যদিকে, সরকারি দপ্তরগুলোতে তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার বৃদ্ধি পেয়ে তা অপরিহার্য হয়ে উঠেছে। সরকার প্রায় তিন হাজার পাবলিক সার্ভিস দিচ্ছে, যেসবের মধ্যে অধিকাংশেই তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহূত হচ্ছে। ’ 

অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি, বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বিকর্ণ কুমার ঘোষ বলেন, ‘বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষ ইকোসিস্টেম এবং ক্রসকাটিং কার্যক্রমের অপরিহার্য অংশ। অন্যদিকে, আমরা সরাসরি বিদেশী বিনিয়োগ উৎসাহিত এবং তাদেরকে বিশেষ সুযোগ-সুবিধা প্রদান করছি। তাই কর্তৃপক্ষের সহায়তায় বেশ কিছু হাই-টেক পার্কে ইতোমধ্যে দেশি-বিদেশি বিভিন্ন ব্র্যন্ডের ল্যাপটপ সহ অন্যান্য ডিভাইস তৈরি শুরু হয়েছে। হাই-টেক পার্কগুলোতে পূর্ণমাত্রায় উৎপাদন শুরু হলে বাংলাদেশ আইসিটি পণ্য উৎপাদনের হাবে পরিণত হবে। ’


কারখানায় চলছে হিকশিভন ব্র্যান্ডের নজরদারী সরঞ্জামের উৎপাদন 

অনুষ্ঠানের অপর বিশেষ অতিথি, হিকভিশন সাউথ এশিয়ার প্রেসিডেন্ট হুগো হুয়াং বলেন, ‘আজ হিকশিভনের জন্য একটি অত্যন্ত খুশির দিন। কারণ, চীনের বাইরে ব্রাজিল ও ভারতের পর তৃতীয় দেশ হিসেবে বাংলাদেশে হিকশিভন ব্র্যান্ডের পণ্য উৎপাদন শুরু হলো। এতে কারিগরী সহায়তাদান করতে পেরে আমরা আনন্দিত ও গর্বিত। হিকভিশন বিশ্বের এক নম্বর নিরাপত্তা নজরদারী যন্ত্রপাতি নির্মাতা হলেও অন্যান্য হাই-টেক পণ্য উৎপাদন, প্রযুক্তি উদ্ভাবন এবং সেবা প্রদান করছে, যেমন- রোবটিক্স, আইওটি, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ইত্যাদি। ’

এক্সেল টেকনোলজিস লিমিটেড এবং এক্সেল ইন্টেলিজেন্ট সলিউশন্স লিমিটের ব্যবস্থাপনা পরিচালক গৌতম সাহা বলেন, ‘প্রাথমিক পর্যায়ের এ শিল্প কারখানাকে বৃহদাকারে রূপদানের জন্য বঙ্গবন্ধু হাই-টেক সিটিতে আমাদেরকে ইজারাদানকৃত দুই একর জমির উন্নয় কাজ চলছে। আশা করা যাচ্ছে আগামী বছরের মধ্যে বঙ্গবন্ধু হাই-টেক সিটিতে অধিক পরিমাণে হিকভিশন সিকিউরিটি ক্যামেরা ও আনুষঙ্গিক স্টোরেজসহ অন্যান্য যন্ত্রাংশ উৎপাদন শুরু করা যাবে। তাতে নিরাপত্তা নজরদারী যন্ত্রপাতির দেশীয় চাহিদা মিটিয়ে অচিরেই রপ্তানী করা যাবে। তাছাড়া পরবর্তীতে ক্রমান্বয়ে এখানে অন্যান্য ব্র্যান্ডের ডিজিটাল ডিভাইস, নেটওয়ার্কিং, টেলিকম, এআই ও রোবটিক্স যন্ত্রপাতি উৎপাদন করা হবে। ’

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানশেষে বঙ্গবন্ধু হাই-টেক সিটিতে বৃহদাকারে নিরাপত্তা নজরদারী যন্ত্রপাতিসহ অন্যান্য ডিজিটাল ডিভাইস এবং নেটওয়ার্কিং, টেলিকম, এআই ও রোবটিক্স যন্ত্রপাতি তৈরির জন্য কারখানা স্থাপনের জন্য দুই একর জমির মাটিভরাটসহ উন্নয়ন কাজের আনুষ্ঠানিক সূচনা করা হয়।   



সাতদিনের সেরা