kalerkantho

রবিবার। ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮। ১৬ মে ২০২১। ০৩ শাওয়াল ১৪৪২

যানজটের খোঁজ জানাবে পিপ দ্য প্লেস

এই মেগাসিটিতে কোথায় কখন যানজট শুরু হয়ে যায় তা কে বলতে পারে? আগেভাগে সেটা দেখার জন্য গুগল ম্যাপের সাহায্য অনেকেই গ্রহণ করে থাকেন। কিন্তু অনেক সময় এটিও যথাযথ তথ্য দিতে ব্যর্থ হয়। ‘পিপ দ্য প্লেস’ ঢাকা শহরের বিভিন্ন সড়কের লাইভ স্ট্রিমিং করে থাকে। এর মাধ্যমে নির্দিষ্ট কোনো জায়গায় যাওয়ার আগেই দেখে নেওয়া যাবে সেখানকার যানজটের কী অবস্থা। শুধু তা-ই নয়, চাইলে এই সুবিধা নিরাপত্তার জন্যও ব্যবহার করা যাবে। সেবাটি সম্পর্কে জানাচ্ছেন তুসিন আহম্মেদ

১১ এপ্রিল, ২০২১ ১১:০৮ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



যানজটের খোঁজ জানাবে পিপ দ্য প্লেস

যাত্রা হলো শুরু
মুহাম্মদ মোহছিয়ুল হক একজন ইলেকট্রিক ইঞ্জিনিয়ার। চাকরি করতেন টেলিকম সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান রবিতে। রবি তাদের কর্মীদের নিয়ে ২০১৭ সালে একটি প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। প্রতিযোগিতার বিষয়বস্তু ছিল, প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে কিভাবে প্রাত্যহিক জীবনের সমস্যা সমাধান করা যায়। সেখানে রবির কর্মীরা নিজেদের বিভিন্ন ইনোভেশন আইডিয়া সবার সামনে তুলে ধরেন। এই প্রতিযোগিতায় মুহাম্মদ মোহছিয়ুল হকও অংশ নেন। সেখানে তিনি ‘পিপ দ্য প্লেস’-এর আইডিয়া দিয়ে তৃতীয় হন। পরে রবি থেকে ফান্ড পেয়ে এই আইডিয়া বাস্তবায়নের জন্য কাজ শুরু করেন মোহছিয়ুল হক।

এক বছরের বেশি সময় আইডিয়াটি নিয়ে কাজ করেন মোহছিয়ুল হক। তিনি বলেন, ‘শুরুর দিকে এমন প্রকল্প নিয়ে কাজ আগে করেছে এমন কোনো প্রকৌশলী খুঁজে পাচ্ছিলাম না। কয়েকজন প্রকৌশলীকে সঙ্গে নিয়ে রাত-দিন গবেষণা করতে হয়েছে আমাদের। পরে নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে সফল হয়েছি পুরো সফটওয়্যার ও সিস্টেমটি তৈরি করতে। অবশেষে ২০১৯ সালে আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু হয় ‘পিপ দ্য প্লেস’-এর।

যেভাবে কাজ করে পিপ দ্য প্লেস
পিপ দ্য প্লেস প্ল্যাটফর্মটির মাধ্যমে ব্যবহারকারীরা গুরুত্বপূর্ণ সড়ক বা স্থানের সরাসরি লাইভ স্ট্রিমিং দেখতে পারবেন অ্যাপ ও ওয়েবসাইটের মাধ্যমে। প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে সেই স্থানগুলোতে সিসি ক্যামেরা সংযোজন করা আছে। ব্যবহারকারীরা ‘পিপ দ্য প্লেস’-এ লগইন করে সেই স্থানের সরাসরি ভিডিও দেখতে পারবেন।

একজন ব্যবহারকারী ১৬ বার পর্যন্ত ক্লিক করে বিনা মূল্যে সেবাটি ব্যবহার করতে পারবেন। কিন্তু পরে ব্যবহার করতে চাইলে মাসিক ৩০ টাকা হারে চার্জ দিতে হবে। অর্থাৎ একেবারে বিনা মূল্যে ব্যবহার করা যাবে না সেবাটি। এই পর্যন্ত মোট চার লাখ ব্যবহারকারী পি দ্য প্লেস ব্যবহার করেছেন। আর সক্রিয় ব্যবহারকারীর সংখ্যা এখন ৪০ হাজারের বেশি।

যেভাবে ব্যবহার করবেন
পিপ দ্য প্লেস ব্যবহার করতে প্রথমে এই ঠিকানা https://cutt.ly/gcCC51g থেকে অ্যাপটি ডাউনলোড করে ইনস্টল করতে হবে। এরপর ফোন নম্বর, মেইল আইডি দিয়ে নিবন্ধন করতে হবে। ফোন ভেরিফিকেশনের পর অ্যাপটিতে লগইন করা যাবে।

অ্যাপটি চালু করলেই হোম পেজে গুগল ম্যাপের মধ্যে অনেক ক্যামেরার আইকন দেখা যাবে। লোকেশন অনুযায়ী সিসি ক্যামেরার এই আইকনগুলোতে ক্লিক করলে ‘snap’ ও ‘stream’ নামে দুটি অপশন দেখা যাবে।

‘snap’ অপশনে ক্লিক করলে লাইভ স্টিল ছবি আকারে রাস্তার অবস্থা দেখা যাবে। নিচে থাকা ডাউনলোড আইকনে ক্লিক করে চাইলে ছবিটি ডাউনলোড করা যাবে। পাশে থাকা শেয়ার আইকনে ক্লিক করে ছবিটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কিংবা বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ারও করা যাবে।

‘stream’ ক্লিক করলে সরাসরি লাইভ স্ট্রিমিংয়ে সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখা যাবে। অ্যাপটির ওপরে রয়েছে সার্চ বাটন। সেখানে ক্লিক করে কিওয়ার্ডের মাধ্যমে সার্চ করে যে যে লোকেশনে ক্যামেরা আছে তা নির্ধারণ করা যাবে।

অ্যাপটির বামে রয়েছে মেন্যুবার। সেখানে ক্লিক করলে সাহায্য, নিরাপত্তা, প্রমোশন ও সাবস্ক্রাইব অপশন পাওয়া যাবে।

‘My places’ নামের মেন্যুতে ক্লিক করে ব্যবহারকারীর বাসায় কোনো সিসি ক্যামেরা থাকলে তা-ও যুক্ত করা যাবে অ্যাপটিতে।

অ্যাপটির ওপরে রয়েছে নোটিফিকেশন বাটন। অ্যাপে আসা বিভিন্ন বার্তা পাওয়া যাবে এতে। এ ছাড়া রয়েছে যে কোনো লোকেশনকে ফেভারিট বা প্রিয়তে নেওয়ার সুবিধা। রাউট ভিউ ও গ্রুপ ভিউর সুবিধাও পাওয়া যাবে অ্যাপটিতে।

অ্যাপটির ইউএক্স বেশ সহজ সরল। যেকোনো সাধারণ ব্যবহারকারী কয়েক ক্লিকই লগইন করে ব্যবহার করতে পারবে অ্যাপটি।

অ্যাপের সব ফিচার পাওয়া যাবে ‘পিপ দ্য প্লেস’-এর ওয়েবসাইটে। এই ঠিকানায় গিয়ে বিস্তারিত জানা যাবে https://peeptheplace.com/।

নিরাপত্তা
পিপ দ্য প্লেস অ্যাপ ব্যবহার করে লাইভ স্ট্রিমিং দেখে কেউ কি কোনো অপরাধমূলক কাজ করতে পারে? এমন প্রশ্নের জবাবে মুহাম্মদ মোহছিয়ুল হক বললেন, ‘আমরা যে স্থানে ক্যামেরা লাগিয়েছি সেই স্থানগুলো অনেকটা ওপেন পাবলিক প্লেস। সেখানে কারো ব্যক্তিগত তথ্য ফাঁসের কোনো উপায় নেই। আমরা মনে করি, পিপ দ্য প্লেসের মাধ্যমে আরো বেশি নিরাপদ থাকবে মানুষ। কেননা যখন কোনো অপরাধী জানতে পারবে এই পাবলিক স্থানটি সিসি ক্যামেরার আওতায় আছে, তখন অপরাধ করতে সে ভয় পাবে। কেননা সিসি ক্যামেরায় পুরো ঘটনা রেকর্ড হচ্ছে, পরে সেই ফুটেজ ব্যবহার করে অপরাধীকে শনাক্ত করা যাবে।

প্রতিটি স্থানে ক্যামেরা স্থাপনের আগে সরকারের নিরাপত্তা বাহিনী থেকে অনুমোদন নেওয়া হয়েছে।’

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা
প্ল্যাটফর্মটিতে বর্তমানে এক শর বেশি স্থান রয়েছে সিসি ক্যামেরার আওতায়। তবে সারা বাংলাদেশে গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলো এই প্ল্যাটফর্মের আওতায় আনতে আরো কাজ করতে হবে বলে জানান মুহাম্মদ মোহছিয়ুল হক। তিনি বলেন, ‘আমরা সারা বাংলাদেশকে পিপ দ্য প্লেসের আওতায় আনার লক্ষ্যে কাজ করছি। জানি, কাজটা অনেক কঠিন ও সময়সাপেক্ষ। তবে আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাচ্ছি। আমরা চাই, মানুষ কোথাও যাওয়ার আগে সেই লোকেশন বা জায়গাটি সম্পর্কে যেন ধারণা নিতে পারে। অনেকের বাসার সামনে সিসি ক্যামেরা নেই। এমন ব্যবহারকারীদের জন্যও পিপ দ্য প্লেসে সেবা দিতে কাজ করবে।’



সাতদিনের সেরা