kalerkantho

শুক্রবার । ১৪ মাঘ ১৪২৮। ২৮ জানুয়ারি ২০২২। ২৪ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

উইকিপিডিয়া কতটুকু সত্য?

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৩০ নভেম্বর, -০০০১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



উইকিপিডিয়া কতটুকু সত্য?

দুই দলের মানুষ আছেন। এদের এক দল যেকোনো তথ্য তুলে ধরতে উইকিপিডিয়াকে রেফারেন্স হিসেবে টানেন। আরেকটি দল বলে থাকেন যে, তারা রেফারেন্স হিসেবে উইকিপিডিয়া ব্যবহার করেন। কিন্তু আসলে গোপনে করেন।

বিজ্ঞাপন

আপনাদের অনেকে নিজেকে তৃতীয় আরেকটি দলের বলে মনে করতে পারেন। অথবা আপনারা আসলে কোন দলের তা হয়তো নিজেরাও জানেন না।

সাত-আট বছর হতে চলেছে স্কুল, মিডিয়া হাউজ বা প্রকাশনি সংস্থার একমাত্র ভরসা হয়ে উঠেছে উইকিপিডিয়া। স্কুলকেই প্রথমে উদাহরণ হিসেবে ধরতে পারেন। কলেজ বা স্কুলে শিক্ষার্থীদের অধিকাংশই উইকিপিডিয়াকে কার্যকর তথ্য সূত্র হিসেবে গ্রহণ করে নিয়েছে। এদের কেউ বলেন, এটা ছাড়া গতিই নেই। আবার অনেকে বলেন, একে সূত্র হিসেবে ব্যবহার করবো কি না, তা নির্ভর করে টিচারের ওপর। তবে অধিকাংশের মতে, এটা গ্রহণযোগ্য।

এদিকে, শিক্ষা-দীক্ষার পথ প্রদর্শকদের অনেকেই একে উত্তম উৎস হিসেবে মেনে নিয়েছেন। আবার অনেকের কাছে তা বড়ই ভয়ানক। এই মহাশক্তিধর সাংস্কৃতিক এবং প্রযুক্তির টানকে মেনে নিতে পারছেন না অনেকে।

দ্য আটলান্টিকের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, অক্সফোর্ড মেডিক্যাল টেক্সবুকের লক্ষণীয় অংশের টেক্সট উইকিপিডিয়া থেকে কপি করা হয়েছে। এটা একটামাত্র উদাহরণ।

বিখ্যাত প্রযুক্তি বিষয়ক ওয়েবসাইট 'সিনেট' এর গাইডলাইনে স্পষ্টভাবে বলা হয়েছে, উইকিপিডিয়া গ্রহণযোগ্য উৎস নয়। তা ছাড়া বোদ্ধা সাংবাদিকরাও একে আস্থাভাজন তথ্যসূত্র বলে মেনে নেন না। তারপরও এদের অনেকেই উইপিডিয়াকে একমাত্র অবলম্বন বলে মেনে নিয়েছেন। তারা আসলে কতটা বস্তুনিষ্ঠ তা প্রশ্নের সম্মুখীন হয়েছে।

ব্যবহারকারীদের প্রদত্ত তথ্য ব্যবহার করা হয় উইকিপিডিয়া থেকে। আটলান্টিকের প্রতিবেদনের আরেক অংশে বলা হয়, ইতিমধ্যে উইকিপিডিয়ার মূল এডিটরদের ২৫ শতাংশ চলে গেছেন। বিগত ৭ বছরে এখানে একই বিষয় দুইবার বা তিনবার উঠে এসেছে ভিন্নভাবে।

বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, পণ্য বা ব্যক্তিগণ একটি বিষয়েই সবচেয়ে বেশি আগ্রহী। তারা উইকিপিডিয়ায় নিজেদের সম্পর্কে কি লেখা হয়েছে এবং কি লেখা থাকা উচিত তা নিয়ে নানা তৎপরতা চালান। বর্তমানে এটি বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় ওয়েসবাইটগুলোর মধ্যে সপ্তম অবস্থানে রয়েছে। এতে প্রতিনিয়ত অসংখ্য মানুষ তাদের নিজস্ব উৎসের তথ্য দিয়ে চলেছেন। এদের অনেকেই নাকি অর্থের বিনিময়ে এডিট করেন।

সর্বসম্প্রতি গিজমোডো তার এক প্রতিবেদনে জানায়, উইকিপিডিয়ার ৩৮১টি অ্যাকাউন্ট ব্যান করা হয়েছে। এরা সবাই এডিটর ছিলেন। কিন্তু সত্যিকার অর্থে কয়জন এডিটর
 



সাতদিনের সেরা