kalerkantho

শুক্রবার । ২৪ মে ২০১৯। ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৮ রমজান ১৪৪০

এমএফএস সেবায় সময় সাশ্রয়

পোশাক শ্রমিকদের আর্থিক স্বাধীনতা বেড়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৬ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মোবাইল আর্থিক সেবার (এমএফএস) সুবাদে পোশাক শ্রমিকদের আর্থিক স্বাধীনতা বেড়েছে। এতে কারাখানার উৎপাদনের সময় সাশ্রয়ের পাশাপাশি বছরে বিশাল অঙ্কের অর্থ সাশ্রয় হচ্ছে। গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে দেশের বৃহত্তর এমএফএস সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান বিকাশ ও তৈরি পোশাক প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান আজিম অ্যান্ড সন্সের কর্মকর্তাদের সঙ্গে জাতীয় কয়েকটি প্রত্রিকার সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তাঁরা এসব তথ্য জানান।

তৈরি পোশাক খাতের শ্রমিকদের মজুরি ডিজিটাইজেশন ও মডারাইজেশন নিয়ে এ মতবিনিময়ের আয়োজন করে বিকাশ। এ সময় বিকাশ কর্তৃপক্ষ জানায়, দেশের অর্থনীতিকে গতিশীল করতে বড় ধরনের ভূমিকা রাখছে বিকাশ। শহর ও গ্রামীণ অর্থনীতির মধ্যে একটি সেতুবন্ধ তৈরি করেছে। এ ছাড়া নিম্ন আয়ের মানুষের আয়কে নিরাপদ করেছে। এই সেবাকে কিভাবে আরো নিরাপদ করা যায় এ নিয়ে কাজ করছে বিকাশ।

মতবিনিময়কালে বিকাশের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন চিফ কমার্শিয়াল অফিসার (কমার্শিয়াল ডিভিশন) মিজানুর রশিদ, জেনারেল ম্যানেজার হেড অব করপোরেট কমিউনিকেশন অ্যান্ড পিআর সামশুদ্দিন হায়দার ডালিম, আজিম অ্যান্ড সন্সের পরিচালক সালমান আজিম ও চিফ কমার্শিয়াল অফিসার জাকিউর রহমান প্রমুখ।

শ্রমিকদের মজুরির প্রতি তাদের অধিকার বেড়েছে উল্লেখ করে মিজানুর রশিদ বলেন, একসময় পোশাক খাতের নারী শ্রমিকদের মজুরি তার স্বামী বা নিকটাত্মীয়রা মাস শেষে নিয়ে যেত এখন আর তা হয় না। প্রয়োজনীয় খরচ তার বিকাশ অ্যাকাউন্টের মাধ্যমেই তারা নিজেরা করে থাকে। ফলে আয়ের প্রায় ৪০ শতাংশ শ্রমিকদের নগদ উত্তোলনের প্রবণতা কমেছে।

মিজানুর রশিদ আরো বলেন, বর্তমানে পোশাক খাতের প্রায় এক লাখ ৬০ হাজার শ্রমিক বিকাশের মাধ্যমে মজুরি নিচ্ছে। ২০১৯ সালের মার্চ পর্যন্ত প্রায় ১৭০টি তৈরি পোশাক শিল্প প্রতিষ্ঠান বিকাশের এই সেবা ব্যবহার করছে। সারা দেশে বিকাশের প্রায় দুই লাখ এজেন্ট রয়েছে। ফলে শ্রমিকরা কোনো ধরনের বাড়তি সময় ব্যয় না করেই মজুরির টাকা ক্যাশ আউট করে নিতে পারে। বিকাশ অ্যাকাউন্টে টাকা জমালে ৪ শতাংশ হারে মুনাফা পাওয়ারও সুযোগ রয়েছে। মোবাইল ফিন্যানশিয়াল সার্ভিস বা এমএফএসের মাধ্যমে বেতন বিতরণ করলে প্রায় ৭৫ শতাংশ সময় বাঁচে বলে তিনি জানান।

ডালিম জানান, তৈরি পোশাক খাতের শ্রমিকদের মজুরি বিকাশের মাধ্যমে দেওয়ার ফলে দেশের অর্থনীতিতে তারা অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। আগের চেয়ে তাদের আর্থিক স্বাধীনতা বেড়েছে।

 

মন্তব্য