kalerkantho

সোমবার। ২৭ মে ২০১৯। ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ২১ রমজান ১৪৪০

আইসিসিবিতে অগ্নিনিরাপত্তা প্রযুক্তির প্রদর্শনী শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৯ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আইসিসিবিতে অগ্নিনিরাপত্তা প্রযুক্তির প্রদর্শনী শুরু

আইসিসিবিতে অগ্নিনিরাপত্তা প্রযুক্তি প্রদর্শনীতে দর্শনার্থীদের ভিড়

উন্নয়নশীল দেশ হওয়ার পথে ক্রমবর্ধমান অর্থনীতিতে বাংলাদেশে বাড়ছে শিল্প-কারখানা। কিন্তু ভবন নির্মাণ ও নিরাপত্তা ব্যবস্থা যথাযথ না হওয়ায় প্রায় দুর্ঘটনায় প্রাণহানি ঘটে। শিল্পক্ষেত্রে সঠিক কর্মপরিবেশ নিশ্চিত করার পাশাপাশি অগ্নিনিরাপত্তা ও নিরাপদ ভবন নির্মাণে আধুনিক প্রযুক্তি প্রদর্শনী শুরু হয়েছে।

রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরার (আইসিসিবি) ২ নম্বর হলে এই প্রদর্শনী চলছে। আগামী ২০ এপ্রিল পর্যন্ত এই প্রদর্শনী চলবে। এতে ভারত, জার্মানি, ইতালি, ফ্রান্স, যুক্তরাজ্য ও বাংলাদেশসহ ৩০টি দেশের ৬০টি প্রতিষ্ঠান অংশ নিচ্ছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় এই প্রদর্শনীর উদ্বোধন করা হয়। ইউনাইটেড বিজনেস মিডিয়া কম্পানি (ইউবিএম) ‘বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক ফায়ার অ্যান্ড সিকিউরিটি এক্সিবিশন অ্যান্ড কনফারেন্স’ এবং ‘অকুপেশনাল সেফটি অ্যান্ড হেলথ (ওএসএইচ)’ প্রদর্শনীর আয়োজন করছে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের মহাপরিদর্শক শিবনাথ রায়। অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব কনস্ট্রাকশন ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি প্রকৌশলী এস এম খোরশেদ আলম, বাংলাদেশ নিটওয়্যার ম্যানুফ্যাকচারার অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিকেএমই) প্রথম সহসভাপতি মনসুর আহমেদ, আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার (আইএলও) আরএমজি প্রজেক্টের চিফ টেকনিক্যাল অ্যাডভাইজার জর্জ ফলার ও ওএসএইচই ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক এ আর চৌধুরী প্রমুখ।

শিবনাথ রায় বলেন, ‘পরিবর্তনশীল বিশ্বে নিরাপত্তা শিল্প-প্রতিষ্ঠানে অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িত। সঠিক নিরাপত্তা ও নিরাপদ পরিবেশ সৃষ্টির মাধ্যমে শিল্প-কারখানাকে এগিয়ে নিতে হবে। নিরাপত্তার অভাবে প্রতিবছরই দেশে মানুষ মারা যায়, আবার অনেকে আহতও হয়। নিরাপদ ভবন নির্মাণ ও একটা মানুষও যেন হতাহত না হয়, সে বিষয়টিকে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। শিল্প-কারখানায় সব নিয়মকানুন মেনে ভবন নির্মাণে জোর দেওয়া হচ্ছে।’

এস এম খোরশেদ আলম বলেন, ‘শত শত শ্রমিকের রক্তে নতুন ভবন তৈরি হয় কিন্তু সঠিক নির্দেশনা না থাকায় দুর্ঘটনা ঘটে, সঠিক নির্দেশনার অভাবেও নির্মাণ সঠিক হয় না। কর্মক্ষেত্র ও শিল্প-কারখানা নিরাপদ করতে সবাইকে একত্রে কাজ করতে হবে। ভবন নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান শুধ ব্যবসার জন্যই নির্মাণ করে না, এখানে মানবিকতাও জড়িত। মানুষের জীবনের নিরাপত্তা দিতে উন্নত ভবন নির্মাণ, যেন কোনো মানুষের প্রাণহানি না ঘটে।

মন্তব্য