kalerkantho

শুক্রবার । ২৪ মে ২০১৯। ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৮ রমজান ১৪৪০

হুয়াওয়ে বৈশ্বিক অ্যানালিস্ট সম্মেলন

উদ্ভাবনে গড়ে উঠবে বুদ্ধিবৃত্তিক বিশ্ব

বাণিজ্য ডেস্ক   

১৭ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ের ১৬তম গ্লোবাল অ্যানালিস্ট সামিট অনুষ্ঠিত হয়েছে চীনের শেনজেনে। সামিটে এ বছরের উপজীব্য হলো ‘সম্পূর্ণ সংযুক্ত ও বুদ্ধিবৃত্তিক বিশ্ব গড়া’। হুয়াওয়ের সঙ্গে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের আরো ৬৮০টি শিল্প ও আর্থিক অ্যানালিস্ট, বিশেষজ্ঞ এবং গণমাধ্যমকর্মীরা এই সামিটে অংশ নেন। অংশগ্রহণকারীরা ধারাবাহিকভাবে নতুন নতুন উদ্ভাবনের মাধ্যমে কিভাবে একটি সম্পূর্ণ সংযুক্ত ও বুদ্ধিবৃত্তিক বিশ্ব গড়া যায় সে বিষয়ে আলোচনা করেন।

সামিটে প্রযুক্তি খাতের প্রবণতা ও কৌশলগত বিষয় তুলে ধরে হুয়াওয়ের ডেপুটি চেয়ারম্যান কেন হু বলেন, ‘এরই মধ্যে বুদ্ধিবৃত্তিক বিশ্ব তৈরি হয়েছে। আমরা এটা অনুভব করতে পারি। তথ্য-প্রযুক্তি খাতে বর্তমানে অবিশ্বাস্য উন্নয়নের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে।’ তিনি আরো বলেন, ‘আমাদের ধারণার অনেক আগেই বিভিন্ন জায়গায় ফাইভজি চালু হচ্ছে। এ ছাড়া ইতিহাসে প্রথমবারের মতো ফাইভজি নেটওয়ার্ক উন্নয়নের সঙ্গে সঙ্গে ফাইভজি ডিভাইসেরও উন্নয়ন হচ্ছে। হুয়াওয়ের ধারণা অনুযায়ী, ২০২৫ সালের মধ্যে বিশ্বে ২ দশমিক ৮ বিলিয়ন মানুষ ফাইভজি ব্যবহার করবে। ফলে ব্যবহারকারীদের এই বড় অংশকে সহায়তা করতে একটি খুবই সাধারণ, শক্তিশালী ও বুদ্ধিবৃত্তিক নেটওয়ার্ক উন্নয়ন ও গ্রাহক সেবায় নতুন নতুন মাত্রা যোগ করাই হুয়াওয়ের লক্ষ্য।’

হুয়াওয়ের পরিচালনা পর্ষদের ডিরেক্টর এবং ইনস্টিটিউট অফ স্ট্র্যাটেজিক রিসার্চের প্রেসিডেন্ট উইলিয়াম জু বলেন, ‘হুয়াওয়ে ইনোভেশন ২.০ যুগের দিকেই অগ্রসর হচ্ছে।’ ইনোভেশন ২.০ হলো লক্ষ্যভিত্তিক তাত্ত্বিক জ্ঞান ও নতুন নতুন উদ্ভাবন। ইনস্টিটিউট অব স্ট্র্যাটেজিক রিসার্চ মূলত আগামী পাঁচ বছর বা তার বেশি সময়ের সর্বাধুনিক প্রযুক্তির উদ্ভাবন নিয়ে গবেষণা করবে। জু বলেন, ‘সাধারণ বিজ্ঞান, প্রযুক্তি এবং প্রযুক্তিগত উদ্ভাবনী শিক্ষা গবেষণায় আমরা প্রতিবছর ৩০০ মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করি, যা আমাদের গবেষণা প্রচেষ্টার একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। নতুন নতুন তত্ত্ব ও মৌলিক প্রযুক্তির উদ্ভাবনে হুয়াওয়ে বিশ্বের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের সঙ্গে কাজ করবে।’

মন্তব্য