kalerkantho

সোমবার। ২৭ মে ২০১৯। ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ২১ রমজান ১৪৪০

পুঁজিবাজারে পাঁচ দিনের তিন দিনই সূচক কমেছে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১২ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চলতি সপ্তাহের পাঁচ কার্যদিবসের তিন দিনই দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সূচক কমেছে। লেনদেন রয়েছে হ্রাস-বৃদ্ধির মধ্যেই, এক দিন বাড়ে তো অন্যদিন কমে। হাতে গোনা কয়েকটি কম্পানি ছাড়া বেশির ভাগ কম্পানির শেয়ারের দামও কমেছে। সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস গতকাল বৃহস্পতিবারও ডিএসইতে সূচক ও লেনদেন কমেছে। একই সঙ্গে বেশির ভাগ কম্পানির শেয়ারের দাম কমেছে।

গতকাল ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৬৪৪ কোটি ৯৮ লাখ টাকা। আর সূচক কমেছে ১.১৩ পয়েন্ট। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ৮০১ কোটি ৯৮ লাখ টাকা আর সূচক কমেছিল ১৯ পয়েন্ট। সেই হিসাবে লেনদেন কমেছে ১৫৭ কোটি টাকা।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, লেনদেন শুরুর পর শেয়ার কেনার চাপ থাকলেও পরে বিক্রির চাপ বাড়ে। দুপুর পৌনে ১২টা পর্যন্ত সূচক বাড়লেও পরে কমেছে। এতে দিনের সূচক কিছুটা কমার মধ্য দিয়ে লেনদেন শেষ হয়েছে। দিন শেষে সূচক দাঁড়িয়েছে পাঁচ হাজার ৪৩৫ পয়েন্ট। ডিএসই শরিয়াহ সূচক ৯ পয়েন্ট কমে এক হাজার ২৬৫ পয়েন্টে ও ডিএসই-৩০ সূচক ৩ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৯২৫ পয়েন্ট। লেনদেন হওয়া ৩৩৭টি কম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে ১১৭টির বা ৩৪.৭১ শতাংশ কম্পানির। অন্যদিকে দাম কমেছে ১৫৬টির বা ৪৬.২৯ শতাংশ কম্পানির আর অপরিবর্তিত রয়েছে ৬৪ বা ১৮.৯৯ শতাংশ কম্পানির দাম।

টাকার অঙ্কে ডিএসইতে সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে সামিট পাওয়ারের। কম্পানিটির লেনদেন হয়েছে ৫৯ কোটি ৪০ লাখ টাকা। দ্বিতীয় স্থানে থাকা খুলনা পাওয়ারের লেনদেন হয়েছে ৫৭ কোটি ৩০ লাখ টাকা আর তৃতীয় স্থানে থাকা ইউনাইটেড পাওয়ারের লেনদেন হয়েছে ৩৭ কোটি ৯০ লাখ টাকা।

সিএসই লেনদেন হয়েছে ২৯ কোটি আট লাখ টাকা। আর সূচক কমেছে ১.৩৯ পয়েন্ট। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ৩৫ কোটি ৬২ লাখ টাকা। গতকাল লেনদেন হওয়া ২২৫টি কম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে ৯২টির, কমেছে ৯৬টির আর অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৭টি কম্পানির শেয়ারের দাম।

মন্তব্য