kalerkantho

শুক্রবার । ২৪ মে ২০১৯। ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৮ রমজান ১৪৪০

পণ্য রপ্তানিতে লিড টাইম কমবে

কলম্বো বন্দর ব্যবহারের আহ্বান শ্রীলঙ্কান মন্ত্রীর

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১২ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



শ্রীলঙ্কার উন্নয়ন কৌশল ও আন্তর্জাতিক বাণিজ্য বিষয়ক মন্ত্রী মালিক সামারাবিক্রমা বলেছেন, ইউরোপের বাজারে তৈরি পোশাকের বাজার বাড়াতে শ্রীলঙ্কা বাংলাদেশের সঙ্গে কাজ করতে চায়। বাংলাদেশ কলম্বো বন্দর ব্যবহার করে পণ্য রপ্তানি করলে পণ্য ক্রেতার কাছে পৌঁছানোর সময় (লিড টাইম) কমে আসবে বলে তিনি মনে করেন। এর ফলে রপ্তানিতে খরচ কমার পাশাপাশি বেশি মুনাফা হবে।

গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে শ্রীলঙ্কার বাণিজ্যমন্ত্রীর নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল রাজধানীর কারওয়ান বাজারে তৈরি পোশাক খাতের শীর্ষ সংগঠন বিজিএমইএ নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করে। বৈঠক শেষে শ্রীলঙ্কান মন্ত্রী সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন শিল্প ও বণিক সমিতির ফেডারেশন (এফবিসিসিআই) সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন, বিজিএমইএ সভাপতি মো. সিদ্দিকুর রহমান, সহসভাপতি এস এম মান্নান কচি প্রমুখ বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

শ্রীলঙ্কার বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, পোশাক পণ্য রপ্তানিতে শ্রীলঙ্কার সমুদ্রবন্দর ব্যবহারে দুই দেশের মধ্যে আলোচনা চলছে। তবে ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ অন্যান্য দেশে শুল্কমুক্ত সুবিধা পেতে এ প্রক্রিয়ায় জটিলতা তৈরি হতে পারে। কিভাবে জটিলতা এড়িয়ে একসঙ্গে বিশ্ববাজারে পোশাক রপ্তানি বাড়ানো যায় সে বিষয়ে দুই দেশের প্রতিনিধির সমন্বয়ে পৃথক দুটি কমিটি গঠন করা হবে।

বৈঠক শেষে এক ব্রিফিংয়ে বিজিএমইএ সভাপতি বলেন, শ্রীলঙ্কার সঙ্গে এই আলোচনা সফল হলে লিড টাইম অন্তত ১০ দিন কমে আসবে। মোটামুটি ১৭ থেকে ১৮ দিনের মধ্যে ক্রেতার কাছে পণ্য পৌঁছানো যাবে। বর্তমানে সিঙ্গাপুর বন্দর হয়ে ২৬-২৭ দিন সময় লাগে। তিনি মনে করেন এর ফলে পোশাকের দামও বেশি পাওয়া যাবে। তবে বিষয়টি একেবারে প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে। শ্রীলঙ্কায় নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এবং ঢাকায় শ্রীলঙ্কার রাষ্ট্রদূত বিষয়টি নিয়ে কাজ করছেন। এ বিষয়ে দুটি কমিটি করা হবে। কমিটিই বাকি কাজ এগিয়ে নেবে।

এফবিসিসিআই সভাপতি বলেন, তাঁরা চেষ্টা করছেন দুই দেশ একসঙ্গে কাজ করে পোশাক রপ্তানিতে কিভাবে এগিয়ে যাওয়া যায়। লিড টাইমের দুর্বলতাসহ কিছু ক্ষেত্রে বাংলাদেশের দুর্বলতা আছে এবং কিছু কিছু শক্তিশালী দিকও আছে। ফলে এ ধরনের চুক্তি হলে দুই দেশই লাভবান হবে।

শ্রীলঙ্কার বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, দুই দেশের মধ্যকার বাণিজ্য দিন দিন বাড়ছে। সম্পর্কও বেশ ভালো। শ্রীলঙ্কার অনেকে এ দেশে কাজ করছেন। এ দেশে বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিনিয়োগও করতে চান শ্রীলঙ্কার উদ্যোক্তারা। প্রাথমিকভাবে পোশাক খাত দিয়েই শুরু করতে চান তাঁরা। শ্রীলঙ্কার সঙ্গে মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি (এফটিএ) সম্পর্কে এক প্রশ্নের জবাবে সামারাবিক্রমা বলেন, অক্টোবরের মধ্যেই এ বিষয়ে একটা পর্যায়ে আসা যাবে।

মন্তব্য