kalerkantho

ফ্রেশার প্রার্থীরাও সুযোগ পাবে, সবচেয়ে বেশি নিয়োগ হয় সেলস ও মার্কেটিং বিভাগে

চাকরির বিশাল সুযোগ ওষুধশিল্পে

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৭ মার্চ, ২০১৯ ১২:২৫ | পড়া যাবে ৬ মিনিটে



চাকরির বিশাল সুযোগ ওষুধশিল্পে

দেশে দুই শতাধিক দেশি-বিদেশি ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানে প্রতিবছর বিপুলসংখ্যক জনবলের চাকরির সুযোগ হয়। কোন কোন পদে বেশি নিয়োগ হয়, কেমন যোগ্যতা দরকার, নিয়োগের বেলায় কী কী দেখা হয়, নিজেকে কিভাবে তৈরি করতে হবে—এসব নিয়ে বড় বড় প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে লিখেছেন পাঠান সোহাগ

স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যাল লিমিটেডের মানবসম্পদ বিভাগের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার ফখরুল হাসান জানান, বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে ফার্মাসিউটিক্যাল সেক্টর দ্বিতীয় বৃহত্তম সেক্টর। এই সেক্টরে কাজের বিশাল সুযোগ। মার্কেটিং, সেলস, কোয়ালিটি কন্ট্রোল ও ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে বিজ্ঞান, ফার্মেসি, ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে পড়াশোনা করেছে এমন প্রার্থীরাই বেশি সুযোগ পান। মেশিন অপারেটরদের ক্ষেত্রে ডিপ্লোমাধারীদের সুযোগ আছে। ইনসেপ্টা ফার্মাসিউটিক্যাল লিমিটেডের মানবসম্পদ (এইচআর) বিভাগের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, এ প্রতিষ্ঠানে মার্কেটিং, সেলস, মানবসম্পদ, প্রশাসন, ফিন্যান্স অ্যান্ড অ্যাকাউন্টস, প্রডাকশন, মেইনটেন্যান্স, কোয়ালিটি কন্ট্রোল, ইঞ্জিনিয়ারিং, টেকনিক্যাল অপারেশন, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগ, আন্তর্জাতিক বিপণন, ওয়্যার হাউস, আইটি বিভাগসহ প্রায় ২৫টি বিভাগ আছে। এসব বিভাগে নতুনদের কাজের সুযোগ আছে। কোনো কোনো প্রতিষ্ঠান নিয়োগকৃত ফ্রেশার অফিসারদের ১০-৩০ দিন পর্যন্ত প্রশিক্ষণ দেয়। বিভাগভেদে নিয়োগের ক্ষেত্রে ব্যবসায় শিক্ষা, বিবিএ, এমবিএ, ফার্মেসি, জীববিজ্ঞান, অর্থনীতি, রসায়ন বিজ্ঞান, ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে স্নাতক বা স্নাতকোত্তর ডিগ্রিধারীদের বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয়।

তবে অন্য কোনো বিষয়ে পড়াশোনা করলেও চাকরি করতে পারবে, যদি অভিজ্ঞতা থাকে।

এসিআই ফার্মাসিউটিক্যাল লিমিটেডের এইচআর বিভাগের সিনিয়র এক্সিকিউটিভ অফিসার মো. রাফি বলেন, ‘অনেক ক্ষেত্রে নতুনদের প্রাধান্য দেওয়া হয়। তাদের কাজ করার একটা উদ্যম থাকে।’

যেসব পদে বেশি নিয়োগ হয়
এসএমসি এন্টারপ্রাইজ লিমিটেডের এইচআর ম্যানেজার মো. হাফিজ ইমতিয়াজ জানান, প্রত্যেক কম্পানিতে একাধিক বিভাগ আছে। এসব বিভাগে অফিসার, সিনিয়র অফিসার, এক্সিকিউটিভ অফিসার, সিনিয়র এক্সিকিউটিভ অফিসার, প্রিন্সিপাল এক্সিকিউটিভ অফিসার, ডেপুটি ম্যানেজার ও ম্যানেজার পদে নিয়োগ দেওয়া হয়। সবচেয়ে বেশি নিয়োগ হয় বিক্রয় ও বিপণন বিভাগে। আর পরিচালক থেকে ম্যানেজার পর্যন্ত একাধিক পদ আছে। এই পদের নিয়োগগুলো সাধারণত কম্পানির নিজস্ব নিয়মে হয়। এসব পদের জন্য প্রার্থীকে অবশ্যই স্নাতকোত্তর ও অভিজ্ঞতাসম্পন্ন হতে হবে।

আবেদন যেভাবে
বিভিন্ন ওষুধ উত্পাদনকারী প্রতিষ্ঠানের মানবসম্পদ বিভাগে যোগাযোগ করে জানা যায়, বিভিন্ন পদে জনবল নেওয়ার জন্য পত্রপত্রিকা, প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইট কিংবা অনলাইন জব পোর্টালে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়। প্রার্থীরা সরাসরি, ডাকযোগে বা ই-মেইলের মাধ্যমে সিভি পাঠিয়ে আবেদন করতে পারবে।

কোন বিভাগে কী যোগ্যতা
ইনসেপ্টা, এসএমসি, এসিআই, বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যাল মানবসম্পদ ও প্রশাসন বিভাগের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, মার্কেটিং ও সেলস বিভাগে সবচেয়ে বেশি নিয়োগ দেওয়া হয় ‘ফ্রেশার অফিসার’। এই পদে আবেদনের জন্য বিবিএ, এমবিএ, ফার্মেসি, রসায়ন ডিগ্রিধারীদের অগ্রাধিকার দেওয়া হয়। এ ছাড়া বিজ্ঞান বা অন্যান্য বিষয়ে পড়াশোনা করেও আবেদন করা যাবে, যদি অভিজ্ঞতা থাকে।

মানবসম্পদ (প্রশাসন) বিভাগের ফ্রেশার অফিসার পদের জন্য যেকোনো বিষয়ে স্নাতক বা স্নাতকোত্তর ডিগ্রি থাকলেই আবেদন করা যাবে।

বিবিএ, এমবিএ, অর্থনীতি বিষয়সহ যেকোনো বিষয়ে স্নাতকোত্তর থাকলেই ফিন্যান্স অ্যান্ড অ্যাকাউন্টস বিভাগে আবেদন করা যাবে।

প্রডাকশন বিভাগে ডিপ্লোমাধারী, মেইনটেন্যান্স বিভাগে স্নাতক বা স্নাতকোত্তর, কোয়ালিটি অ্যাসিওরেন্সে স্নাতক বা স্নাতকোত্তর (রসায়ন বা প্রাণরসায়ন) এবং

আইটি বিভাগে কম্পিউটার সায়েন্সে স্নাতক বা ডিপ্লোমাধারীরা আবেদন করতে পারবেন।

নিয়োগ পরীক্ষার পদ্ধতি
স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যাল, ইনসেপ্টা ফার্মাসিউটিক্যাল, এসিআই ফার্মাসিউটিক্যাল, এসএমসি এন্টারপ্রাইজ লিমিটেডের মানবসম্পদ বিভাগ সূত্রে জানা যায়, বিভিন্ন পদের জন্য যাঁরা সিভি পাঠান, তাঁদের একটি লিস্ট হয়। সেখান থেকে প্রাথমিকভাবে যোগ্যদের শর্ট লিস্ট করা হয়। তারপর আলাদা বিভাগ অনুসারে একটি নির্দিষ্ট দিন লিখিত পরীক্ষার জন্য ডাকা হয়। এই লিখিত পরীক্ষা বিভাগ অনুসারে ভিন্ন হয়ে থাকে। লিখিত পরীক্ষায় একটি নির্দিষ্ট পাস নম্বর ধরা হয়। যাঁরা পাস করেন, তাঁদের মধ্যে সর্বোচ্চ নম্বরপ্রাপ্তদের ভাইভার জন্য ডাকা হয়। ভাইভায় আলাদা করে পাস করতে হয়। পরে লিখিত ও ভাইভা পরীক্ষায় পাওয়া নম্বরের ভিত্তিতে প্রার্থী নির্বাচন করে নিয়োগ দেওয়া হয়।

এসএমসি এন্টারপ্রাইজ লিমিটেডের কোয়ালিটি কন্ট্রোল ম্যানেজার মো. আনিসুর রহমান জানান, কোয়ালিটি কন্ট্রোল বিভাগে বিষয়ভিত্তিক টেকনিক্যাল প্রশ্ন করা হয়। ফার্মেসি ও রসায়নের ওপর প্রশ্ন থাকে। কম্পানিভেদে পরীক্ষার প্রশ্নের ধরন ও মান নির্ভর করে। মৌখিক পরীক্ষায় সনদ ও অভিজ্ঞতার পাশাপাশি প্রার্থীর চালচলন, কথা বলার ধরন, স্মার্টনেস ইত্যাদি দেখা হয়।

দ্য একমি ল্যাবরেটরিজ লিমিটেডের কোয়ালিটি কন্ট্রোল এক্সিকিউটিভ অফিসার শারমিন আক্তার জানান, নিয়োগের সময় আমি ১০০ নম্বরের পরীক্ষা দিয়েছিলাম। বাংলা, ইংরেজি, গণিত ও সাধারণ জ্ঞানের ওপর মোট ৪০ নম্বর; বাকি ৬০ নম্বর ছিল বিষয়ভিত্তিক টেকনিক্যাল প্রশ্নে। লিখিত পরীক্ষা পাস করার কয়েক দিন পর প্রথম ভাইভা। তারপর দ্বিতীয় ভাইভা। পরে চূড়ান্ত নির্বাচন।

কোনো কোনো প্রতিষ্ঠান বাংলা, ইংরেজি, গণিত, সাধারণ জ্ঞানের ওপর প্রশ্ন করে আবার কোনো কোনো প্রতিষ্ঠান শুধু টেকনিক্যাল প্রশ্ন করে।

আবেদনের আগে
একজন চাকরিপ্রার্থী যে প্রতিষ্ঠানে আবেদন করবেন, সেই প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে ভালোভাবে জানতে হবে। প্রতিষ্ঠানের পণ্য সম্পর্কে ধারণা নিতে হবে। সেই প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে আগ্রহ থাকতে হবে। চাকরিপ্রার্থীদের বিজ্ঞাপনের বিভিন্ন শর্ত পূরণ করার মতো দক্ষতা থাকতে হবে। সাম্প্রতিক বিষয়গুলোর ওপর ধারণা নিতে হবে। বাংলা, ইংরেজির মতো বিষয়গুলোর ওপর বেসিক জ্ঞান থাকতে হবে। এ ছাড়া স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পর্যায়ের বিভিন্ন বিষয়ে ধারণা থাকতে হবে।

বেতন ও সুযোগ-সুবিধা
এসএমসি এন্টারপ্রাইজ লিমিটেডের এইচআর ম্যানেজার মো. হাফিজ ইমতিয়াজ বলেন, ‘বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের বেতনকাঠামো প্রায় একই রকম হয়। আমাদের প্রতিষ্ঠানে একজন ফ্রেশারের বেতন ২০ হাজার টাকা থেকে শুরু হয়।’ অন্যান্য সুযোগ-সুবিধার মধ্যে প্রভিডেন্ট ফান্ড, গ্র্যাচুইটি, বার্ষিক ইনক্রিমেন্ট, দুটি উত্সব ভাতা, বৈশাখী ভাতা, টিএ, ডিএ, প্রতিষ্ঠানের নীতিমালা অনুযায়ী চিকিত্সা তহবিল ও স্টাফ কল্যাণ তহবিল থেকে নির্ধারিত পরিমাণ আর্থিক সুবিধা দেওয়া হয়। যোগ্যতার ভিত্তিতে পদোন্নতির সুযোগ রয়েছে।

কিছু কিছু প্রতিষ্ঠানে কর্মীদের কাজের গুণগত মানের ওপর ভিত্তি করে ইনসেন্টিভ দেওয়া হয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা