kalerkantho

সোমবার। ১৭ জুন ২০১৯। ৩ আষাঢ় ১৪২৬। ১৩ শাওয়াল ১৪৪০

রমজানে ওমরাহ করলে হজের সওয়াব

মাওলানা আ খ ম আবু বকর সিদ্দিক

১৮ মে, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রমজানে ওমরাহ করলে হজের সওয়াব

হাদিসে রমজান মাসে যেসব আমলের তাগিদ পাওয়া যায় ওমরাহ তার অন্যতম। রাসুলে আকরাম (সা.) বলেছেন, রমজানে ওমরাহ করলে আমার সঙ্গে হজ করার সওয়াব পাওয়া যাবে। তাই সামর্থ্যবান মুসলিমদের ওমরাহ করা উচিত। আমি মনে করি, তা বারবার করা উচিত। হজ ও ওমরাহ পালনের মাধ্যমে মানুষের ভেতর দ্বিনি অনুপ্রেরণা তৈরি হয়।

আল্লাহ ও তাঁর রাসুল (সা.)-এর প্রতি ভালোবাসা তৈরি হয়।

মক্কা-মদিনার পবিত্র ভূমিকে আল্লাহ তার নিদর্শন হিসেবে উল্লেখ করেছেন। কারণ, এ ভূমিতে ইসলামের আগমন হয়েছে এবং ইসলামের প্রতিষ্ঠাকালীন সংগ্রামের স্মৃতি বহন করছে এই ভূমি। তাই মক্কা-মদিনা জিয়ারত করলে মানুষের ঈমান জাগ্রত হয়। ভালো কাজের অনুপ্রেরণা সৃষ্টি হয় এবং মন্দ কাজ থেকে বিরত থাকার সাহস পাওয়া যায়।

অনেকেই বলেন, বারবার হজ-ওমরাহ না করে সেই টাকা গরিব-অসহায়ের মাঝে দান করতে। আমার মনে হয়, এটা অনুচিত। দুটিই ভালো কাজ। দুটি কাজের ব্যাপারেই হাদিসে তাগিদ এসেছে। সুতরাং একটি আমলকে গুরুত্ব প্রদানে অন্যটিকে ছোট করে দেখার সুযোগ নেই। বরং আমরা বলব, আপনি ওমরাহ করুন। ঠিকমতো জাকাত দিন। মানুষকে সহযোগিতা করুন।

হ্যাঁ, হজ-ওমরাহর ক্ষেত্রে রিয়া বা প্রদর্শনপ্রিয়তা একটি ব্যাধি হিসেবে দেখা দিয়েছে। মানুষ ওমরাহ করতে যায় এবং তা ব্যাপকভাবে প্রচার করে, অন্যরা তার প্রচার করুক সেটাও প্রত্যাশা। এটা পরিহারযোগ্য। প্রদর্শন সব আমলেই পরিহারযোগ্য।  আল্লাহ তাআলা আমাদের রিয়ামুক্ত আমল করার তাওফিক দান করুন।

লেখক : অধ্যক্ষ, দারুন নাজাত সিদ্দিকিয়া কামিল মাদরাসা, ঢাকা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা