kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০২২ । ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

চুমুর ছবি নিয়ে ব্যঙ্গ, জবাব দিলেন সুদীপ

বিনোদন ডেস্ক   

৬ অক্টোবর, ২০২২ ১৫:০৭ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



চুমুর ছবি নিয়ে ব্যঙ্গ, জবাব দিলেন সুদীপ

সুদীপ চ্যাটার্জি ও তাঁর স্ত্রী পৃথা

কলকাতার টিভি নাটকের জনপ্রিয় মুখ সুদীপ চ্যাটার্জি। ‘শ্রীময়ী’ ধারাবাহিকের অনিন্দ্য হিসেবে সুদীপের জনপ্রিয়তা আকাশ ছোঁয়া। টিভি অভিনয়ের পাশাপাশি পারিবারিক একজন মানুষ সুদীপ। নিজের স্ত্রীকে অনেক ভালোবাসেন এবং সেই ভালোবাসা জনসম্মুখে  প্রকাশও করেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

তবে সেই ভালোবাসা নিয়েই এবার ব্যঙ্গের শিকার হতে হল এই জুটিকে।  

সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে স্বামীর সঙ্গে তোলা ছবি পোস্ট করেছিলেন সুদীপের স্ত্রী পৃথা। ঠোঁটে ঠোঁট রেখে আদরে সোহাগে স্বামীকে রাঙিয়ে দিচ্ছিলেন পৃথা। পাশাপাশি স্বামীর জন্মদিনে বিশেষভাবে জানিয়েছিলেন শুভেচ্ছাও। কিন্তু, এই জুটির ভালোবাসা হয়ে ওঠে ব্যঙ্গ-সমালোচনার শিকার। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেশ ঝড় ওঠেছে এই জুটির সেই চুমুর ছবিটি নিয়ে।

সুদীপ চ্যাটার্জি ও তাঁর স্ত্রী পৃথা

নেটিজেনদের একজন পৃথার এই ছবিতে কটাক্ষ করে মন্তব্য করেছেন, ‘কম তো বয়স হল না! বাড়িতেই চুমু খেতে পারতেন!’ এমন অনেক কটাক্ষ ও মন্তব্যে বেশ নড়েচড়ে বসেছে অনলাইন দুনিয়া। তাই দূর্গাপূজার শেষদিনে এই ‘ব্যঙ্গাত্মক অপসংস্কৃতি’ থেকে মুক্তি চাইলেন অভিনেতা সুদীপ।

স্ত্রীর দেয়া ছবিটির প্রসঙ্গে সুদীপ বলেন, ‘পৃথার যে ছবিটি নিয়ে ব্যঙ্গ-সমালোচনা হচ্ছে, সেই ছবিটি অনেক বেশি পছন্দও করেছেন সবাই। কিন্তু, যাঁরা ট্রল করছে তারা আমাদের অন্য ছবিগুলো দেখছে কি? যে সমস্ত ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আমরা দিচ্ছি তা কিন্তু তারা দেখছে না। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সকলেই নীতি পুলিশ। তাঁদের কারো প্রতি দায়বদ্ধতা নেই। যাঁরা নেটপাড়ায় সংস্কৃতির কথা বলছেন তাঁরা কি সত্যিই ভারতীয় সংস্কৃতির কথা জানেন?”

সুদীপ আরো বলেন, “একটি পাবলিক ফোরামে অকথ্য কুকথা বলে কিছু মানুষ দাবি করছেন আমরা নাকি নোংরামো করছি। আমার প্রশ্ন, তাঁদের এই ব্যবহার আদতে কতটা সভ্য! এটা কৃতদাস মানসিকতার এতটি প্রতিফলন। অন্যের ক্ষতি করে, তাঁকে কুকথা শুনিয়ে শান্তি পাওয়া, এটা দাস মনোভাব। পৃথা আমাকে জড়িয়ে ধরলে, চুমু খেলে যাঁরা অপসংস্কৃতি বলছেন তাঁদের কি মনে হয় ভালোবাসাটা অপসংস্কৃতি? আর যিনি কুকথা বলে চলেছেন সেগুলো সংস্কৃতি! রাস্তাঘাটেও নীতিপুলিশ সক্রিয়। অনেক সময় রাস্তায় যুগলদের হেনস্থা করা হয়। এমন আচরণ করা হয় যেন তাঁরা কোনো অন্যায় করেছেন। অথচ যাঁরা চুরি ডাকাতি করে ফাটিয়ে দিচ্ছে তাঁদের মাথায় করে রাখা হয়। আমার মনে হয় মানুষের মধ্যে শিক্ষা জাগাটা প্রয়োজন। ’

প্রতিবাদের পাশাপাশি দেশের প্রতি, জাতির প্রতি দায়বদ্ধতা পালনের বার্তা দিয়ে কলকাতাবাসীকে বিজয়ার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন অভিনেতা সুদীপ।

সূত্র : এই সময়



সাতদিনের সেরা