kalerkantho

বুধবার ।  ১৮ মে ২০২২ । ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৬ শাওয়াল ১৪৪৩  

ওপার বাংলায় বাংলাদেশি ছবি ‘পদ্মার ভালোবাসা’র সাফল্য

রংবেরং প্রতিবেদক    

২১ জানুয়ারি, ২০২২ ১২:১৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ওপার বাংলায় বাংলাদেশি ছবি ‘পদ্মার ভালোবাসা’র সাফল্য

‌'পদ্মার ভালোবাসা' ছবির দৃশ্যে সুমিত সেনগুপ্ত ও আইরিন সুলতানা

বাংলাদেশি ছবি ‘পদ্মার প্রেম’ বাংলাদেশের আগে ভারতে মুক্তি পায় ২০১৯ সালের ২০ সেপ্টেম্বর। হারুন-উজ-জামানের পরিচালনায় নির্মিত ছবিটি তখন পশ্চিমবঙ্গ ও আসামে দারুণ ব্যবসা করে। ছবির নায়ক-নায়িকা বাংলাদেশের সুমিত সেনগুপ্ত ও আইরিন সুলতানা। একই বছরের ১ নভেম্বর ছবিটি মুক্তি পায় বাংলাদেশে।

বিজ্ঞাপন

আগে ভালো ব্যবসা করায় সম্প্রতি নতুন করে ছবিটি ভারতে মুক্তি দিয়েছেন প্রযোজক মোহাম্মদ শাহ আলম। স্বপ্নচূড়া ফিল্ম ইন্টারন্যাশনালের ব্যানারে পশ্চিমবঙ্গের উত্তর চব্বিশ পরগনার মসলেন্দপুরের পূর্বাশা হলে টানা দুই সপ্তাহ চলছে। পশ্চিমবঙ্গের সবচেয়ে বড় প্রযোজনাপ্রতিষ্ঠান শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মসের (এসভিএফ) অঙ্গপ্রতিষ্ঠান এসভিএফ এন্টারটেইনমেন্ট প্রাইভেট লিমিটেডের পরিবেশনায় পূর্বাশাতে ছবিটি চলছে, জানিয়েছেন শাহ আলম। এসভিএফের সঙ্গে চুক্তিনামার একটি কপিও এই প্রতিবেদককে পাঠিয়েছেন প্রযোজক।

আইরিন সুলতানা   ছবি : সংগৃহীত

কলকাতা থেকে শাহ আলম বলেন, ‘আমি অত্যন্ত খুশি। পশ্চিমবঙ্গে ছবিটি ভালো ব্যবসা করছে। তিন বছর আগেও পূর্বাশাতে ছবিটি মুক্তি পেয়েছিল। তখনো দর্শক ছবিটি গ্রহণ করেছিলেন, এখনো ছবিটির চাহিদা কমেনি। খুব শিগগির ভারতের কয়েকটি আঞ্চলিক ভাষায় ডাবিং করে বিভিন্ন প্রদেশে মুক্তি দেব ছবিটি। ’

ছবির অভিনেতা সুমিত সেনগুপ্ত বলেন, ‘ভারতে ছবিটি ভালো চলছে, প্রযোজকের কাছে খবরটি শুনে ভীষণ গর্ববোধ করছি। একজন অভিনেতা হিসেবে এটা অনেক বড় প্রাপ্তি। আমি সব সময় ভালো গল্পের ছবিতে অভিনয় করতে চাই। পদ্মাপারের দুই যুবক-যুবতীর প্রেম নিয়ে এই ছবির গল্প। জীবনঘনিষ্ঠ গল্পটি দর্শকের খুব চেনা মনে হয়েছে। এ জন্যই হয়তো ছবিটি সফল হয়েছে। ’

সুমিত সেনগুপ্ত ।   ছবি : সংগৃহীত

নামভূমিকায় অভিনয় করা আইরিন সুলতানা বলেন, ‘গল্প শুনেই ছবিটিতে অভিনয় করতে রাজি হয়ে গিয়েছিলাম। ডাবিং করার সময়ই মনে হয়েছিল ভালো কিছু হতে যাচ্ছে। মুক্তির এত দিন পরেও দর্শক হলে গিয়ে ছবিটি দেখছে, এর চেয়ে আনন্দের আর কী হতে পারে! ছবির পরিচালক-প্রযোজক থেকে শুরু করে ইউনিটের সবার কাছে কৃতজ্ঞ, তাঁরা এমন একটি ছবিতে আমাকে কাজ করার সুযোগ দিয়েছেন। '



সাতদিনের সেরা