kalerkantho

শুক্রবার । ৭ মাঘ ১৪২৮। ২১ জানুয়ারি ২০২২। ১৭ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

মা হচ্ছেন পরীমনি, বাবা শরীফুল রাজ

অনলাইন ডেস্ক   

১০ জানুয়ারি, ২০২২ ১৭:১৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মা হচ্ছেন পরীমনি, বাবা শরীফুল রাজ

ঢাকাই চলচ্চিত্রের আলোচিত নায়িকা পরীমনি মা হতে যাচ্ছেন। বিষয়টি পরীমনি নিজেই নিশ্চিত করে কালের কণ্ঠকে বলেন, 'মা হতে যাচ্ছি এ খবর সত্য। আমার সন্তানের বাবা শরীফুল রাজ। আনন্দের এ খবরটি পেয়ে শরীফুল ও আমি দুজনেই কেঁদে ফেলেছি।

বিজ্ঞাপন

হতে যাওয়া বাবা শরীফুল রাজ কালের কণ্ঠকে বলেন, আমরা গত বছরের ১৭ অক্টোবর বিয়ে করেছি। আমাদের বিয়ে একেবারে গোপনীয়ভাবে হয়েছিল। এখনো সেভাবে জানানো হয়ে ওঠেনি। এরইমধ্যে আমরা আনন্দের খবর পেলাম।

জানা গেছে, গিয়াসউদ্দীন সেলিমের ছবি ‘গুণীন’ চলচ্চিত্রের শুটিংয়ের সময় পরীমনি ও শরীফুল রাজ প্রেমে পড়েন। এরপর গোপনেই বিয়ের কাজ সম্পন্ন করেন।

সোমবার দুপুরে রাজের ফেসবুক থেকে একটি ছবি পোস্ট করা হয়। শরীফুল রাজ সেখানে লিখেছেন, ‘অভিনন্দন রাজ। ধন্যবাদ পরী। '

শরীফুল রাজ জানালেন বিয়ের অনুষ্ঠান করবেন বেশ করেই। আপাতত অনাগত সন্তানের জন্য আমাদের অপেক্ষা ও পরীমনির পরিচর্যার বিষয়টি লক্ষ্য রাখতে হবে।

নির্মাতা গিয়াস উদ্দিন সেলিম বলেন, ‘গুণীন’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে রাজ-পরীর পরিচয়। যতোটুকু জেনেছি, শুটিং সেটেই তারা একে অন্যের প্রেমে পড়েন। সেই সময়েই তারা নাকি বিয়ের সিদ্ধান্তও নিয়ে ফেলেছিলেন। আমরা অবশ্য এ বিষয়ে তখন কিছুই জানতাম না।

শরিফুল রাজের সঙ্গে সম্পর্কের বিষয়টি প্রথম আঁচ পাওয়া যায় ‘গুনিন’ সিনেমার শুটিং চলাকালীন পরীমনির একটি ফেসবুক স্ট্যাটাসে। যেখানে রাজের সঙ্গে একটি ছবি শেয়ার করে হ্যাশট্যাগে পরী লিখেছিলেন, ‘রাজপরী’। তারআগে পরীর জন্মদিনের পার্টিতেও রাজের সঙ্গে পরীর গল্প তৈরি হয়। ]

শরিফুল রাজের সঙ্গে সম্পর্কের বিষয়টি প্রথম আঁচ পাওয়া যায় ‘গুনিন’ সিনেমার শুটিং চলাকালীন পরীমনির একটি ফেসবুক স্ট্যাটাসে। যেখানে রাজের সঙ্গে একটি ছবি শেয়ার করে হ্যাশট্যাগে পরী লিখেছিলেন, ‘রাজপরী’। তারআগে পরীর জন্মদিনের পার্টিতেও রাজের সঙ্গে পরীর গল্প তৈরি হয়।

নড়াইলের মেয়ে শামসুন্নাহার স্মৃতি চলচ্চিত্রে পরীমনি নাম নিয়ে ২০১৫ সালে নামার পর দ্রুতই জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন। ইতোমধ্যে ৩০ টির কাছাকাছি চলচ্চিত্রের সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন তিনি। এদিকে শরীফুল রাজ আইসক্রিম চলচ্চিত্রের মাধ্যমে শোবিজে আলোচনায় আসেন। ন ডরাই চলচ্চিত্রের মাধ্যমে সমালোচকদের দৃষ্টি কাড়েন।

 

 



সাতদিনের সেরা