kalerkantho

বুধবার । ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৮ ডিসেম্বর ২০২১। ৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

মাহির জন্মদিনের উপহার ২০০ আলুপুরি!

মাহতাব হোসেন   

২৮ অক্টোবর, ২০২১ ১৫:৫৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মাহির জন্মদিনের উপহার ২০০ আলুপুরি!

আমি বার্থডে সাধারণত সেলিব্রেট করি না, এটা বরাবরই। হয়তো ঘরোয়াভাবেই করি। তবে এবার রাকিব আমাকে মিথ্যা বলে চমকে দিয়েছে... কালের কণ্ঠের সঙ্গে আলাপকালে চিত্রনায়িকা মাহিয়া অনুযোগের সুরেই যেন বলছিলেন। তাঁর প্রশ্নের প্রসঙ্গের সঙ্গে সমান্তরাল রেখে জিজ্ঞেস করলাম কেমন মিথ্যে? 

তার আগে বলে রাখা ভালো- মাহি সম্প্রতি বিয়ে করেছেন। রাকিব সরকার নামে গাজীপুরের এক রাজনীতিক-ব্যবসায়ীকে বিয়ে করেছেন দেশীয় চলচ্চিত্র জগতের এই নায়িকা। আর বিয়ের পর গতকাল ২৭ সেপ্টেম্বর ছিল মাহিয়া মাহির প্রথম জন্মদিন। এই জন্মদিনে ধাপে ধাপে চমক পেয়েছেন বলে সোশ্যাল হ্যান্ডেলে জানানোর পর বৃস্পতিবার দুপুরে তাঁর সঙ্গে কথা হয় প্রতিবেদকের।

মাহি বললেন, রাকিব আমাকে বলল চলো বাইরে যাই। আমি তাঁকে জানালাম, জন্মদিন সেলিব্রেট করব না। সে বলল, চলো আমরা মাওয়া যাই। সেখানে ইলিশ খাব। আমিও ভাবলাম, হ্যাঁ যাওয়া যায়। লং ড্রাইভ আমার বরাবরই ভালো লাগে। আমি রাজি হলাম যাওয়ার জন্য, তখনই রাকিব প্রথমে আমাকে চমকে দেয়। আমার হাতে একটা জামা তুলে দেয়। একটা জামা গিফট করতেই পারে, এটা তেমন কিছু না। কিন্তু জামাটা আমার পছন্দের। আমার নিজস্ব টেইলরকে দিয়ে সে গোপনে যত্নের সঙ্গে জামাটি বানিয়েছে।

মাহি প্রতিবেদকের সঙ্গে কথার ধারাবাহিকতা অব্যাহত রেখে বলছেন, জামাটি পরেছি। পছন্দের জামাকাপড় পরলে মনে একটা আনন্দের ভাব আসে। আমারও তা-ই। গাড়িতে উঠলাম। মৃদ্য ভলিয়ুমে গান শুনতে শুনতে যাচ্ছি। হুট করে দেখলাম গাড়িটি ৩০০ ফিটের দিকে ঢুকছে। ভাবলাম, এদিকে হয়তো নতুন কোনো পথ আছে মাওয়া যাওয়ার। কিন্তু হুট করে একটা রেস্তোরাঁর দরজায় গাড়ি থেমে যায়। সেখানে ঢুকতেই আমি বিস্মিত হয়ে যাই। বিশাল আয়োজন আমার জন্য। 

সারপ্রাইজড প্রসঙ্গে বলেন, আমার প্রিয় কচুরিপানা আমার হাতে তুলে দেওয়া হয়। আরেকটা মজার বিষয় হলো, গাজীপুরে একটা দোকান রয়েছে, সেখানে আলুপুরি পাওয়া যায়- যেটা আমার খুবই পছন্দের। আমার জন্য ২০০ আলুপুরি আনা হয়েছে। এরপর আমার জন্য তৈরি করা হয়েছে ২৮টি ফানুশ। আমার ২৮তম জন্মদিন উপলক্ষে এক এক করে ফানুশগুলো ওড়ানো হয়, মানে কী বলব- এত ভালো লাগছিল! রেস্তোরাঁজুড়ে আমার সব পরিচিত মানুষজন, যা আমাকে অবাক থেকে অবাক করে দিচ্ছে। অবশ্য রাকিব আমাকে আরো গিফট দিয়েছে, সেটা ছবি দেখলেই বুঝবেন। 

এরপর মাহিয়া মাহির জন্য বড় একটি কেক কাটা হয়। মাহিকে একের পর এক উপহার দেন উপস্থিত শুভাকাঙ্ক্ষীরা। বাসায় ফিরে মাটির চুলায় রান্না করে খাওয়া- এটা ছিল অন্য রকম আনন্দের। এসবে মুগ্ধ মাহি। জন্মদিনে এমন সারপ্রাইজড এর আগে হননি বলে জানান এই নায়িকা। অবশ্য রাকিবের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাতে ভুললেন না।



সাতদিনের সেরা