kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ২ ডিসেম্বর ২০২১। ২৬ রবিউস সানি ১৪৪৩

বিটকয়েন দিয়ে মাদক কেনা হয় আরিয়ানদের জন্য

অনলাইন ডেস্ক   

৬ অক্টোবর, ২০২১ ১২:২০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বিটকয়েন দিয়ে মাদক কেনা হয় আরিয়ানদের জন্য

 শাহরুখ খানের ছেলে আরিয়ান খান গ্রেপ্তার হওয়ার পর ঠিক যেন পেঁয়াজের খোসা ছাড়ানোর মতো একটা একটা করে রহস্য উন্মোচনে ব্যস্ত মাদক নিয়ন্ত্রক সংস্থা (নারকোটিকস কন্ট্রোল ব্যুরো বা এনসিবি)। তদন্ত যত এগোচ্ছে, ততই চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে আসছে এনসিবির তদন্তকারীদের হাতে। 

তারা জানতে পেরেছেন, কর্ডিলিয়া প্রমোদতরীতে শনিবার রাতে যে মাদক আনা হয়েছিল, তা ডার্ক ওয়েব ব্যবহার করে কেনা হয় বিটকয়েনের মাধ্যমে। সোমবারই শ্রেয়স নায়ার নামে এক মাদক পাচারকারীকে গ্রেপ্তার করে এনসিবি। 

তদন্তকারীদের দাবি, ধৃত ব্যক্তি জেরায় জানিয়েছেন, প্রমোদতরীতে ওই রাতে ডার্ক ওয়েবের মাধ্যমে মাদকের অর্ডার পেয়েছিলেন। তার জন্য তাকে কোনো নগদ টাকা দেওয়া হয়নি। পুরো টাকাটাই মেটানো হয়েছিল ক্রিপ্টোকারেন্সি ব্যবহার করে। আর এখানেই সন্দেহ আরো গাঢ় হয়েছে এনসিবির তদন্তকারীদের।

প্রশ্ন উঠছে, তাহলে কি এবার ঘুরপথে মাদকের লেনদেন এবং পাওনা মেটানোর প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। যাতে সহজে বিভিন্ন তদন্তকারী সংস্থার চোখ এড়ানো যায়? শ্রেয়সকে জেরা করে তা জানার চেষ্টা চলছে বলে এনসিবি সূত্রের খবর। ইতিমধ্যেই এ ঘটনায় শাহরুখ খানের ছেলে আরিয়ানসহ আটজনকে গ্রেপ্তার করেছে এনসিবি। আগামী ৭ অক্টোবর পর্যন্ত তাদের নিজেদের হেফাজতে রাখবে এনসিবি।

তবে আরিয়ানকে ওই পার্টিতে কে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন, তার খোঁজ চালাচ্ছেন তদন্তকারীরা। পাশাপাশি আরিয়ান এবং তার বন্ধুদের কাছ থেকে উদ্ধার হওয়া মাদকের টাকা কে বা কারা দিয়েছিল, তারও যোগসূত্র খুঁজছেন তদন্তকারীরা।  শনিবার রাতে যখন প্রমোদতরীতে হানা দেয় এনসিবি, সে সময় আরিয়ানের লেন্স রাখার বাক্স থেকে উদ্ধার হয় মাদক। এ ছাড়া তার বান্ধবীর স্যানিটারি প্যাড এবং অন্তর্বাস থেকেও উদ্ধার হয় মাদক।

এনসিবি সূত্রের খবর, স্যানিটারি প্যাড, ওষুধের বাকসো, জামাকাপড়, অন্তর্বাসের সেলাইয়ের মধ্যেও রাখা ছিল মাদক। খুব সহজে যাতে মাদকের হদিস না পাওয়া যায়, মূলত সেই কারণে সেগুলো এমন সব জায়গায় লুকিয়ে রাখা হয়েছিল বলে অনুমান তদন্তকারীদের।



সাতদিনের সেরা