kalerkantho

মঙ্গলবার । ১০ কার্তিক ১৪২৮। ২৬ অক্টোবর ২০২১। ১৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

ওটিটি প্ল্যাটফর্ম নিয়ন্ত্রণে নীতিমালা প্রণয়নে কমিটি গঠন

অনলাইন ডেস্ক   

৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ১৫:০৭ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ওটিটি প্ল্যাটফর্ম নিয়ন্ত্রণে নীতিমালা প্রণয়নে কমিটি গঠন

হৈচৈ, নেটফ্লিক্স, অ্যামাজন, বঙ্গবিডিসহ ওভার দ্য টপ (ওটিটি) মাধ্যম থেকে অশ্লীলতা রোধ ও রাজস্ব আদায়ের বিষয়ে বিভিন্ন প্ল্যাটফর্ম নিয়ন্ত্রণে খসড়া নীতিমালা প্রণয়নে কমিটি গঠন করেছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)। বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি রাজিক আল জলিল সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে মঙ্গলবার একটি প্রতিবেদন দাখিল করে এ তথ্য উপস্থাপন করা হয়। 

পরে আদালত মামলার পরবর্তী আদেশের জন্য আগামী ১ নভেম্বর দিন ধার্য করেন। ওই দিন সামাজিক মাধ্যম এবং মোবাইলের অ্যাপ সম্পর্কিত যেসব চলমান মামলা আছে, সেই মামলাগুলোর শুনানি গ্রহণ করা হবে বলেও আদেশে জানানো হয়েছে। আদালতে বিটিআরসির পক্ষে কমিটি গঠনের প্রতিবেদন দাখিল করেন ব্যারিস্টার রেজা-ই রাকিব। অন্যদিকে রিটের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন আইনজীবী মো. তানভীর আহমেদ।

আট সদস্যের কমিটিতে বিটিআরসির কমিশনার (এলএল) আবু সৈয়দ দিলজার হোসেনকে আহ্বায়ক এবং উপপরিচালক (আইন) পদবির একজনকে সদস্যসচিব করা হয়েছে। এ ছাড়া সদস্য করা হয়েছে ছয়জনকে। তারা হলেন, বিটিআরসির মহাপরিচালক (এসএস), পরিচালক (আইন), পরিচালক (এসএস), তথ্য মন্ত্রণালয়ের একজন উপযুক্ত প্রতিনিধি (উপসচিবের নিচে নয়), অর্থ, হিসাব ও রাজস্ব বিভাগের একজন প্রতিনিধি (উপপরিচালকের নিচে নয়) এবং বিটিআরসির একজন আইন পরামর্শক।

গত বছরের ১৪ জুন বাংলাদেশি ওয়েব সিরিজের বিতর্কিত অংশ বাদ দিতে সংশ্লিষ্টদের একটি আইনি নোটিশ দিয়েছিলেন আইনজীবী তানভীর আহমেদ। পরে ওই নোটিশের কোনো জবাব না পেয়ে তিনি একই বছরের ১২ জুলাই হাইকোর্টে একটি রিট দায়ের করেন।  এরপর ওই রিটের শুনানি নিয়ে একই বছরের ৮ সেপ্টেম্বর বিতর্কিত ওয়েব সিরিজ থেকে অনৈতিক, নিন্দনীয় ও আইনবহির্ভূত ভিডিওর অংশগুলো সরিয়ে ফেলতে কর্তৃপক্ষের নিষ্ক্রিয়তা এবং খামখেয়ালি কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন হাইকোর্ট। 

পাশাপাশি ওয়েব সিরিজ মনিটরিংয়ের জন্য কেন একটি নীতিমালা তৈরি করা হবে না, তা-ও রুলে জানতে চাওয়া হয়।  সংশ্লিষ্ট বিবাদীদের এ রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছিল।  এ ছাড়া চার সপ্তাহের মধ্যে ইন্টারনেট ও বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে (ওটিটি প্ল্যাটফর্ম) ছড়িয়ে পড়া ওয়েব সিরিজের অনৈতিক, নিন্দনীয় ও আইনবহির্ভূত ভিডিওর অংশগুলো সরিয়ে ফেলতে এবং এসবের সঙ্গে পরিচালক-প্রযোজকসহ জড়িতদের বিষয়ে অনুসন্ধান করে অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিল করতেও নির্দেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। 

পাশাপাশি নেটফ্লিক্সের মতো অন্যান্য ওটিটি প্ল্যাটফর্মগুলো থেকে কিভাবে সরকারি রেভিনিউ সংগ্রহ করা হয়, তা-ও বিটিআরসিকে জানাতে বলা হয়েছিল।  এরই ধারাবাহিকতায় চলতি বছরের ১৮ জানুয়ারি পরবর্তী নির্দেশনায় তিন মাসের মধ্যে ওটিটি প্ল্যাটফর্ম নিয়ন্ত্রণে খসড়া নীতিমালা প্রণয়নের নির্দেশ দেন হাইকোর্ট।

বিটিআরসির চেয়ারম্যান ও তথ্য মন্ত্রণালয়ের সচিবকে ওই খসড়া প্রণয়ন করতে বলা হয়। এ পরিপ্রেক্ষিতে মঙ্গলবার নীতিমালা প্রণয়নসংক্রান্ত কমিটি গঠনের বিষয়ে হাইকোর্টে প্রতিবেদন উপস্থাপন করে বিটিআরসি।



সাতদিনের সেরা