kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৩ আশ্বিন ১৪২৮। ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১। ২০ সফর ১৪৪৩

ববিতার জন্মদিনে শাকিব প্রকাশ করলেন হৃদয়ের কথা

অনলাইন ডেস্ক   

৩০ জুলাই, ২০২১ ১৫:৪৫ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



ববিতার জন্মদিনে শাকিব প্রকাশ করলেন হৃদয়ের কথা

বাংলা চলচ্চিত্রের জীবন্ত কিংবদন্তি অভিনেত্রী ববিতার ৬৮তম জন্মদিন (শুক্রবার)। তিন শতাধিক চলচ্চিত্রে অভিনয় করার পাশাপাশি দেশ ছাড়িয়ে আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও বাংলাদেশি অভিনেত্রী হিসেবে সুনাম অর্জন করেন তিনি। দেশবরেণ্য এ অভিনেত্রীর জন্মদিন উপলক্ষে চলচ্চিত্রের সফল নায়ক ও প্রযোজক শাকিব খান আবেগতাড়িত হয়ে নিজের ফ্যানপেজ, ইনস্টাগ্রাম ও প্রযোজনাপ্রতিষ্ঠানের পেজে ববিতাকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। 

ববিতার সংস্পর্শে অভিনয় করতে পেরে শাকিব যে নিজেকে অনেকটাই সৌভাগ্যবান মনে করেন তা-ও স্পষ্ট বোঝা গেল লম্বা স্ট্যাটাসে। ববিতার জন্মদিন নিয়ে শাকিবের সেই শুভেচ্ছা বার্তার শেষ দিকে জনপ্রিয় এ নায়ক উল্লেখ করেন, ষাট, সত্তর, আশির দশকে পাশের দেশের সিনেমার অভিনেতা-অভিনেত্রীদের ঘিরে কত কত সিনেমা নির্মিত হচ্ছে; অথচ ববিতা ম্যাডামদের মতো গুণী অভিনয়শিল্পীদের আমরা পরবর্তীকালে আর ব্যবহারই করতে পারলাম না! তাদের জন্য জুতসই গল্প-চরিত্র নির্মাণ করতে পারলাম না!

অনেকটা আফসোসের সঙ্গেই শাকিব লেখেন, হয়তো এসব আফসোসও একদিন ঘুচবে। অন্তত ববিতা ম্যাডামের জন্মদিনে এমন প্রত্যাশাই জানিয়ে রাখলাম।

ববিতাকে নিয়ে জন্মদিনের দেওয়া পোস্টে শাকিব খান শুরুতে উল্লেখ করেন, যেকোনো পেশায়ই চড়াই-উতরাই থাকে। কিন্তু পরামর্শ দেওয়ার সঠিক মানুষটি পেলে চড়াই-উতরাই মোকাবেলা করা যে কারো জন্য সহজ হয়ে যায়। অভিনয় পেশার শুরু থেকে আমি তেমন কিছু গুরুজন পেয়েছি, যারা আমাকে সব সময় সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পরামর্শ দিয়ে গেছেন। অভিনয় শূন্য থেকে শুরু করেছিলাম; কিন্তু তাদের স্নেহ-মমতা আর আশীর্বাদের শীতল পরশ সঙ্গে ছিল বলেই আমি আজকে সবার কাছে শাকিব খান। 

দীর্ঘ ক্যারিয়ারে পথচলায় নানা বাধা-বিপত্তি টপকে আজকে নায়কের শিরোমণি হয়েছেন শাকিব খান। ওই প্রসঙ্গ টেনে ববিতার অবদান উল্লেখ করে ঢাকাই চলচ্চিত্রের অপ্রতিদ্বন্দ্বী এ নায়ক বলেন, অভিনয়ে আসার পর যে কজন অভিভাবক পেয়েছি, তাদের অন্যতম ববিতা ম্যাডাম। তাঁর মতো এমন অভিজ্ঞ, দক্ষ অভিনয়শিল্পী মাথার ওপর ছায়া হয়ে থাকলে সব কিছুই সহজ হয়ে যায়। অনস্ক্রিনে অসংখ্যবার দর্শক তাকে আমার মায়ের ভূমিকায় দেখেছেন, অথচ অফস্ক্রিনেও তিনি আমার কাছে তেমন একজন মমতাময়ী মা।

শাকিব খান আরো বলেন, দেশের সিনেমাপ্রেমী মানুষের কাছে তো বটেই, বিশ্ব সিনেমার ইতিহাসেও যার নাম-ডাক, তিনি আমাদের ববিতা ম্যাডাম। কমার্শিয়াল (বাণিজ্যিক) সিনেমার পাশাপাশি ভিন্নধারার সিনেমায়ও তিনি ছিলেন স্বতঃস্ফূর্ত। তাঁর অভিনয় দেখে মুগ্ধ হননি এমন প্রজন্ম খুঁজে পাওয়া যাবে না। 

যোগ করে শাকিব লেখেন, সেই সত্তরের দশকেই ববিতা ম্যাডাম বিশ্বের বিভিন্ন চলচ্চিত্র উৎসবে ঘুরেছেন। বাংলা সিনেমার প্রতিনিধিত্ব করেছেন। সেই সময়ে দেশের সব গুণী নির্মাতারও পছন্দের তালিকায় ছিলেন আমাদের ববিতা ম্যাডাম। কাজ করেছেন সত্যজিৎ রায়ের মতো পৃথিবীখ্যাত নির্মাতার সিনেমায়ও। 

শাকিব তার স্ট্যাটাসে আরো বলেন, বহুদিন তিনি (ববিতা) সিনেমা থেকে দূরে। তাঁর সাথে আমার প্রায়ই কথা হয়। বর্তমান সিনেমার খোঁজখবর নেন। আগের মতোই মমতাময়ী মায়ের কণ্ঠে সঠিক দিকনির্দেশনা দেন। তাঁর মতো গুণী অভিনয়শিল্পীর সাথে কথা বলতে বলতে মাঝেমধ্যে নিজেদের ব্যর্থতার কথাগুলোও স্মরণ করি। 

সব শেষে সুপারস্টার শাকিব খান বলেন, ষাট, সত্তর, আশির দশকে পাশের দেশের সিনেমার অভিনেতা-অভিনেত্রীদের ঘিরে কত কত সিনেমা নির্মিত হচ্ছে; অথচ ববিতা ম্যাডামদের মতো গুণী অভিনয়শিল্পীদের আমরা পরবর্তীকালে আর ব্যবহারই করতে পারলাম না! তাদের জন্য জুতসই গল্প-চরিত্র নির্মাণ করতে পারলাম না!

হয়তো এসব আফসোসও একদিন ঘুচবে। অন্তত ববিতা ম্যাডামের জন্মদিনে এমন প্রত্যাশাই জানিয়ে রাখলাম। প্রিয় অভিনেত্রী, মাতৃতুল্য অভিভাবক ববিতা ম্যাডামের সুস্থতা ও দীর্ঘায়ু কামনা করছি ... শুভ জন্মদিন ...

এদিকে জন্মদিন উপলক্ষে আগের দিন খোঁজ নিয়ে জানা যায়, এবারের ৬৮তম জন্মদিনটি কানাডায় একমাত্র ছেলে অনিকের সঙ্গে কাটাচ্ছেন ববিতা। কভিডের কারণে গত দুই বছর ঢাকায় গুলশানের বাসায় ছিলেন দেশবরেণ্য এই অভেনেত্রী। অনেক চেষ্টার পর গত সপ্তাহে কানাডায় গিয়েছেন। তাই এবারের জন্মদিন ছেলের সঙ্গেই কাটাচ্ছেন ববিতা।



সাতদিনের সেরা