kalerkantho

শুক্রবার । ৪ আষাঢ় ১৪২৮। ১৮ জুন ২০২১। ৬ জিলকদ ১৪৪২

জমে উঠেছে সৌদি জামাই বিদায় রজনী

অনলাইন ডেস্ক   

১৭ মে, ২০২১ ১৪:৩৩ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



জমে উঠেছে সৌদি জামাই বিদায় রজনী

জমে উঠেছে বৈশাখী টিভির ৭ পর্বের ধারাবাহিক সৌদি জামাই- বিদায় রজনী। সাজ্জাদ স্বপনের রচনায় ফজলুল হকের পরিচালনায় নাটকটি প্রচার হচ্ছে প্রতিদিন সন্ধ্যা ৬.২০ মিনিটে। অভিনয়  করেছেন মীর সাব্বির, নাদিয়া আহমেদ, তারিক স্বপন, হান্নান শেলী, সাবেরী আলম, ফারজানা রিক্তা, আবদুল্লাহ রানা, রাইসা রিয়া, শামীম প্রমুখ।  

নাটকের কাহিনি হলো, সৌদি জামাই জগলুল খোশমেজাজে গান গাইতে গাইতে নতুন বউ কবিতাকে নিয়ে ভ্যানে চড়ে বাড়ি ফিরছে। সঙ্গে রয়েছে জগলুলের বন্ধু অলিউল্লাহ। অলিউল্লাহ্ বন্ধু জগলুলের ওপর রাগ করে সারাটা পথ পোটটা মাছের মতো গাল ফুলিয়ে বসে আছে। তার মন-মেজাজ খারাপ থাকার কারণটা হচ্ছে- ফিরে আসার সময় জগলুল তার একমাত্র সুন্দরী শ্যালিকাটিকে সঙ্গে আনেনি। কিন্তু জগলু অলিউল্লার রাগের কারণটি কিছুতেই বুঝতে চাইছিল না। অবশেষে কবিতা জগলুলকে বুঝিয়ে বলে- ‘তুমি যেমন নতুন বউ নিয়ে গান গাইতে গাইতে বাড়ি ফিরছ, তেমনি অলি ভাইয়েরও নতুন বিয়াইন নিয়ে গান গাইতে গাইতে বাড়ি ফেরার ভীষণ শখ ছিল।’ এ কথা শুনে আফসোস করে জগলুল বলে-‘ ইস্ সি রে, ব্যাপারটা একদম মনে ছিল না।’ সঙ্গে সঙ্গে অলিউল্লাহ্ বলে- ‘তাতে কী? এখন তো মনে পড়েছে? ভ্যানটা আবার ঘোরালেই তো সব ঝামেলা ক্লিয়ার হয়ে যায়।’ জগলু কিছুতেই আর ভ্যান ঘোরাতে রাজি হয় না। এই একটা কারণেই সারাটা পথে দুই বন্ধুর খুনসুটি চলতেই থাকে। 

ওদিকে জগলুর শ্বশুরবাড়ির এলাকার চেয়ারম্যান দ্বিতীয় বিয়ে করার পর থেকে প্রথম স্ত্রীর চোখ রাঙানিটা আরো খানিকটা বেড়ে গেছে। আর দ্বিতীয় স্ত্রী এলাচি বেগমকে নিয়ে মনে মনে একটু ঝামেলায়ও আছেন তিনি। তার কাছে তার দ্বিতীয় স্ত্রীর কথাবার্তা, আচার-আচরণে তাকে ভালোবাসে মনে হলেও মনের কোথায় যেন বলে ওঠে-এলাচি বেগম আসলে তাকে ভালোবাসে না। অবশ্য ঘটনা সত্যও বটে। এলাচি বেগম ভালোবাসে চেয়ারম্যানেরই প্রাইভেট সেক্রেটারি হিরুকে।

এদিকে হিরুর প্রতি চৌকিদার নিবারণের আবার বেজায় ক্ষোভ। তার কারণটা হচ্ছে প্রাইভেট চাকরি করে হিরু তার মতো একজন সরকারি চাকরিজীবীকে তুই-তোকারি করে কথা বলে। নিবারণ হিরুকে অনেক বোঝানোর চেষ্টা করেছে- আপনি বলতে না পারলেও নিবারণকে যেন হিরু অনন্ত তুমিটা বলে। কিন্তু না, কোনোভাবেই নিবারণ হিরুকে তুই-তোকারি থেকে ফেরাতে পারে না। নিবারণ বুঝতে পারে, হিরুর সঙ্গে চেয়ারম্যানের দ্বিতীয় স্ত্রীর একটা গোপন সম্পর্ক আছে। কিন্তু সব সময়ই সে তা অল্পের জন্য হাতেনাতে ধরতে পারে না। এ নিয়ে মোটামুটি টম অ্যান্ড জেরির একটা খেলা চলতে থাকে হিরু আর নিবারণের সঙ্গে।

বাসর রাতের রোমান্টিক মুহূর্তে সৌদি থেকে জগলুল কফিলের ইমার্জেন্সি কল আসে। জগলুকে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব সৌদি আরব ফিরে যাওয়ার কথা বলে। বাসর রাতে এমন একটি কথা শুনে দুজনেরই মন খারাপ হয়ে যায়। কবিতা কাঁদে। জগলুল কবিতাকে সান্ত্বনা দিতে পারে না। কবিতার মুখের দিকে ফ্যালফ্যাল করে তাকিয়ে থাকে। এদিকে হিরু এলাচি বেগমকে নিয়ে পালিয়ে যায়। নিবারণ শেষ বেলায় এসেও হিরু আর এলাচিকে হাতেনাতে ধরতে পারে না। অন্যদিকে জগলুলের সৌদি আরবে চলে যাওয়ার সময়ও ঘনিয়ে আসে। একদিকে জগলুল আর কবিতার বিরহ, অন্যদিকে হিরু আর এলাচির মিলন আর চেয়ারম্যানের স্ত্রী হারানোর বেদনা। এভাবেই শেষ হয় বৈশাখী টিভির সাত পর্বের কমেডি নাটক ‘সৌদি জামাই- বিদায় রজনী’ নাটকের কাহিনি।



সাতদিনের সেরা