kalerkantho

বুধবার । ২৯ বৈশাখ ১৪২৮। ১২ মে ২০২১। ২৯ রমজান ১৪৪২

সুহানার দুই ছবি নিয়ে প্রতিক্রিয়া

অনলাইন ডেস্ক   

১৬ মার্চ, ২০২১ ১৩:০৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সুহানার দুই ছবি নিয়ে প্রতিক্রিয়া

শাহরুখ খানের মেয়ে সুহানা। বাবার খ্যাতির আলোয় কিছুটা আলোকিত বরাবরই। নিজে বড় হওয়ার পর অভিনয়কে পেশা হিসেবে না নিলেও, বলিউডে তাঁকে নিয়ে কম গুঞ্জন শোনা যায় না। কখনও আকর্ষণীয় ড্রেস পরে বাবার সঙ্গে পার্টিতে, তো কখনও সমুদ্র সৈকতে বিকিনি পরা সুহানার ছবি নেটদুনিয়ায় ভাইরাল। তবে তিনি যাই-ই করুন, যেভাবেই থাকুন না কেন, ফটোগ্রাফারদের ক্যামেরা তাঁর পিছু ছাড়ে না। যে কোনও ভাবে সুহানাকে দেখা গেলেই, ফ্লাশের ঝলকানি অবধারিত। 

তবে বাবার কড়া শাসন, এখনই গ্ল্যামার জগতের দিকে পা বাড়িয়ে দেওয়া বরদাস্ত নয়। আগে পড়াশোনা, তারপর যেমন ইচ্ছে পেশায় যেতে পারো। কোনও বাধা নেই। তাই জাহ্নবী কাপুর, সারা আলি খানদের মতো এখনও সুহানাকে পর্দায় দেখতে পাননি দর্শকরা। হয়তো ইচ্ছে থাকলেও, সুহানা মন খুলে তা বলতে পারেননি। 

বলিউড বাদশা শাহরুখ খানের একমাত্র কন্যা সুহানা খান। তবে আপাতত পরিবারের সাথে থাকেন না তিনি। বরং মুম্বাই থেকে বহু দূরে রয়েছেন এই স্টার কিড। কারণ, ব্রিটেনের আরডিংলে কলেজের পর, বর্তমানে চলচ্চিত্র নির্মাণ নিয়ে নিউইয়র্কে পড়াশোনা করছেন সুহানা। তাই এখনও পর্যন্ত বলিউডে পা নয়, ব্যস্ত রয়েছেন পড়াশোনাতেই।

আর সেখান থেকেই মাঝেমধ্যে এমন কিছু ছবি পোস্ট করেন যার অর্থ উদ্ধার করতে নেয়ে-ঘমে ওঠেন ইন্টারনেট প্রজন্মরা। সম্প্রতি নিউ ইয়র্কে এক যুবকের সঙ্গে বাহুবন্ধনে দেখা গেল সুহানাকে। অবশ্য সুহানার অন্য একটি ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট থেকে ছবিটি পোস্ট করা। আর এতেই হইচই পড়ে গেছে। কেননা কার সঙ্গে শাহরুখের মেয়ে প্রেম করছেন তা নিয়ে তো কম আলোচনা হয় না। এবার এই ছবিটি সেসব আলোচনায় একটু ঘি ঢেলে দিলো বটে। 

তবে আরেকটা ছবি সুহানা নিজেই পোস্ট করেছেন। যেখানে অত্যন্ত আবেদনময়ী হিসেবে ধরা দিয়েছেন সুহানা। এই ছবি নিয়ে নানা রকম মন্তব্যে তোলপাড় নেটিজেনরা।

অন্যদিকে পড়াশোনার পাশাপাশি সোশ্যাল মিডিয়াতেও সমানভাবে সক্রিয় তিনি। আর সেখানে তার বন্ধু ও অনুসারীর সংখ্যা প্রচুর। মাঝেমধ্যেই নিজের কাটানো বিভিন্ন মুহুর্তের ছবি তিনি শেয়ার করেন তাদের সাথে। যা দেখে প্রশংসায় পঞ্চমুখ হন সবাই। আসলে তিনি এমন সব লাস্যময়ী ছবি পোস্ট করেন, যা দেখে পুরুষ অনুগামীদের হৃদস্পন্দন বাড়তে বাধ্য।



সাতদিনের সেরা