kalerkantho

রবিবার। ৩ মাঘ ১৪২৭। ১৭ জানুয়ারি ২০২১। ৩ জমাদিউস সানি ১৪৪২

আটকে গেছে আকবরের চিকিৎসা, যা বললেন জায়েদ

অনলাইন ডেস্ক   

৪ ডিসেম্বর, ২০২০ ১৬:৫২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



আটকে গেছে আকবরের চিকিৎসা, যা বললেন জায়েদ

ডায়াবেটিস, কিডনিসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত গায়ক আকবরকে দেয়া কথা রাখেননি বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান। এতে করে চিকিৎসা থেমে আছে আকবরের। দ্বিতীয় দফায় ভারতে গিয়ে চিকিৎসার অর্থ জোগাতে হিমশিম খাচ্ছে তার পরিবার। 

চলতি বছর গণমাধ্যমে আকবরের অসুস্থতা ও তার করুণ অবস্থার খবর জেনে জায়েদ খান তার পাশে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেন। তার চিকিৎসার যাবতীয় খরচ দেবেন বলেও গণমাধ্যমকে জানান। জায়েদ খানকে আকবরের পাশেও দেখা যায়। মূলত অভিনেতা ডিপজল তদারকি করছিলেন আকবরের চিকিৎসার বিষয়টি।

তবে আকবর বলছেন, দুই দফায় দশ হাজার করে মোট বিশ হাজার টাকা দিয়েই নিজেকে গুটিয়ে নিয়েছে জায়েদ খান। আকবরের চিকিৎসার জন্য আর বাকি লাখ খানেকের মতো টাকার। এই টাকাই নাকি আকবর যোগাড় করতে পারছেন না। জায়েদ খান প্রতিশ্রুতি দিয়েও নাকি কথা রাখেননি এমনটাই বলছেন আকবর। তবে জায়েদ খান বলছেন, পারিবারিক কারণে আকবরের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন নি। তবে পরশু কথা হয়েছে।

আকবর বলেন, গত অক্টোবর উন্নত চিকিৎসার জন্য ইন্ডিয়া  গিয়েছিলাম।চিকিৎসা কিছুটা অসম্পূর্ণ রেখেই চলে আসতে হয় আমাকে। সেখানে কিছুদিন ভর্তি থাকতে হবে। ভর্তি থাকলে কিডনি যতটুকু নষ্ট হয়েছে তার বেশি আর নষ্ট হবে না। এতে করে যে পরিমাণ টাকার প্রয়োজন তার আমার কাছে ছিল না। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যে দুই লক্ষ টাকা চিকিৎসার জন‍্য দিয়েছিলেন সেটা শেষ হয়ে গিয়েছিল। হানিফ সংকেত স‍্যার ভারতে যাওয়ার জন‍্য বড় একটা আর্থিক সাহায্য করেছিলেন।

ঢাকায় ফিরে জায়েদ খানের সঙ্গে যোগাযেগের চেষ্টা করি। মাত্র কিছু টাকা হলেই চিকিৎসা শেষ হবে আমার। এটা জানাই। এরপর থেকেই তিনি আর আমার ফোন ধরছেন না।

তবে জায়েদ খান কালের কণ্ঠকে বলছেন, তার চিকিৎসার সময় আমি পাশে ছিলাম। আমার বাবাকে নিয়ে কয়েকদিন ধরে ব্যস্ত থাকায় আকবর ভাইয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারিনি। পরশুদিন কথা হয়েছে। আকবর ভাই বলুলেন, এক লাখ টাকা যোগাড় করে দিতে। আমি বললাম করে দিচ্ছি। ডিপজল ভাইকে ফোন দিলাম কিন্তু ডিপজল ভাই দুবাই চলে গেছেন। এখন আমি টাকা কিভাবে দেই?

তিনি বলেন, আমি আকবর ভাইয়ের  চিকিৎসায় সব সময় পাশে ছিলাম। একদিন স্কিনের ডাক্তারের কাছে গিয়ে ৪০ হাজার টাকার শুধু পরীক্ষাই করিয়েছি। যশোরে গিয়ে টাকা ফুরিয়ে গেছে, আমাকে ফোন দিয়েছে। আমি বিকাশ করে দিয়েছি। যখন যেভাবে চেয়েছে সহায়তা করেছি। এখন কয়েকদিন ধরে ব্যস্ত থাকায় তার ফোন ধরিনি এজন্য সাংবাদিকদের ফোন দিয়ে দিয়ে বলতে হবে?

আকবর বলেন, 'আমি জায়েদ খানের কাছে ভিক্ষা চাইনা। সে তো সবার কাছে বলেছে আমার চিকিৎসার দায়িত্ব নিয়েছেন। তিনি তো সরকার ও পুলিশদের অনেক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন। সেখানে আমার গান গাওয়ার ব্যবস্থা করে দিক। আমি তাদের কাছ থেকে গান শুনিয়ে চিকিৎসার টাকা নেব। এখন কারও কাছে সহায়তা চাইলে অনেকে ধারণা করছেন আমি মিথ্যে বলে সবার কাছ থেকে টাকা নিচ্ছি। কারণ জায়েদ খান আমার চিকিৎসার দায়িত্ব নিয়েছেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা