kalerkantho

মঙ্গলবার । ১২ মাঘ ১৪২৭। ২৬ জানুয়ারি ২০২১। ১২ জমাদিউস সানি ১৪৪২

দেশীয় কতিপয় 'নায়িকা'র যত আবদার

অনলাইন ডেস্ক   

২৪ নভেম্বর, ২০২০ ১৩:৩৩ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



দেশীয় কতিপয় 'নায়িকা'র যত আবদার

নায়িকাদের আবদারে বরাবরই বিরক্ত হন সিনেমার পরিচালকরা। একটা পরিকল্পনাকে নষ্ট করে দেন মাঝেমধ্যে গুটি কয়েক নায়িকা। এমন অভিযোগ নির্মাতাদের মুখে বহুবার শোনা হয়ে গেছে। নায়ক একজন নায়িকা দুজন। একজন পরিচিত চেহারার নায়িকাকে কাস্ট করা হলে অপরজন বেঁকে বসেন, শর্ত জুড়ে দেন, চারটা গানে দুইটায় অবশ্যই তাঁকে রাখতে হবে, কয়টা দৃশ্যে থাকতে হবে সেসব খুঁটিনাটি জেনে নেন। তবে একজন নির্মাতা বলেছেন, উঠতিদের মধ্যে এই প্রবণতা বেশি দেখা যায়, কতিপয় 'নামের নায়িকা'দের কারণে বাকিদেরও বদনাম হয়। 

কিছুদিন আগে শোনা গেল, পরের চলচ্চিত্রে অভিনয়ের শর্তে জনৈক নায়িকা একটি আইটেম গানে অংশ নিয়েছেন। গণমাধ্যমে বিরক্তি প্রকাশ করে মন্তব্য দিয়েছেন নির্মাতা। এমনও শোনা গেছে, একটি ছবিতে একজন নায়িকাকে চুক্তি করা হয়েছে। আরেক নায়িকাকে যখন চুক্তি করা হলো তখন পূর্বের চুক্তি  হওয়া নায়িকা আর ওই সিনেমায় অভিনয় করবেন না। কেন?  নতুন চুক্তিবদ্ধ নায়িকার জন্য তিনি প্রচ্ছন্ন হয়ে যাবেন, অথচ তিনি প্রকটতা প্রকাশ করতেই এই সিনেমায় চুক্তি করেছিলেন। 

সব কিছু ঠিকঠাক থাকলেও অনেক নির্মাতার অভিযোগ, নায়িকা শুটিংয়ের আগের দিন নানা বাহানা শুরু করেন, এমনকি শিডিউলও ফাঁসিয়ে দেন। এসব বিষয়ে নির্মাতারা বিভিন্ন সময় সাংবাদিকদের সঙ্গে খোলামেলা কথা বলেন। এমনকি শুটিং সেটের মেকআপ রুমেও নির্মাতারা বিরক্ত হন। শুটিংয়ের আগের দিন এটা করতে হবে, ওটা করতে হবে। 

ইদানীং কতিপয় প্রযোজক দ্বারা পরিচালককের কাছে  অনুরোধ করার প্রবণতাও বেড়েছে বলে মনে করেন একজন নির্মাতা। দৃশ্য বাড়িয়ে দিতে হবে, এন্ট্রি টাইম এই সময় না, ওই সময়। কিংবা শুরুতেই দিতে হবে। নায়কের দৃশ্য এত বেশি রাখা যাবে না। কতিপয় প্রযোজক আবার সেসব অনুরোধ নিয়ে যান নির্মাতাদের কাছে। সোমবার নির্মাতা সৈকত নাসির নায়িকাদের এমন আবদার নিয়ে একটি পোস্ট দিয়েছেন সোশ্যাল হ্যান্ডেলে।    

সৈকত নাসির লিখেছেন, 'সম্প্রতি একটি সিনেমার জন্য দেশের নামি-দামি কিছু হিরোইনের সঙ্গে মিটিং করেছিলাম, অবাক হয়ে দেখলাম, তাঁদের প্রথম প্রশ্ন- সিনেমায় হিরোইন কয়জন? আমার কয়টা গান? আমার এন্ট্রি কত নাম্বার সিনে? এসবের কোনো উত্তর দিতে আমি কখনোই প্রস্তুত থাকি না। মনে প্রশ্ন জাগে, পৃথিবীর সিনেমার মাপকাঠিতে আমাদের সিনেমা আসলে কোথায় আছে? এদের দিকে অবাক হয়ে তাকিয়ে থাকতে ইচ্ছা করে, কারণ কয়েক দিন পর এই এলিয়েনগুলারে আমরা পয়সা দিয়ে টিকিট কেটে চিড়িয়াখানা অথবা মিউজিয়ামে দেখব।

তিনি বলেন, 'দর্শক দেখতে চায় নতুন কিছু, গল্পের সিনেমা, ঐখানে একটা চরিত্রের এন্ট্রি বা প্রেজেন্টেশন গল্পের মাপকাঠিতে হয়। একটা চরিত্র একজন শিল্পীকে বাঁচিয়ে রাখতে পারে হাজার বছর।' 

একজন নামি নির্মাতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলছিলেন, শাবানা-ববিতাদের আমলে এসব ছিল না। তাঁরা গল্পে ঢুকে যেতেন। এ ছাড়া অন্য নায়িকার সঙ্গে প্যারালাল কাজ করতেও তাঁদের কোনো অনীহা ছিল না। এসব ইদানীং শুরু হয়েছে। এমন অনেক নায়িকা রয়েছে, যারা পুরো সিনেমার শুটিং করে আসছে অথচ জিজ্ঞেস করলে গল্প বলতে পারবে না। তারা ব্যস্ত শুটিং স্পট থেকে ছবি তুলে ফেসবুকে প্রকাশ করতে। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা