kalerkantho

সোমবার । ১৩ আশ্বিন ১৪২৭ । ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০। ১০ সফর ১৪৪২

সুশান্তের চোখে-হাঁটুতে আঘাত; চিকিৎসকের ভার্চুয়াল পোস্ট মর্টেমের ভিডিও ভাইরাল

অনলাইন ডেস্ক   

৪ আগস্ট, ২০২০ ১৭:২৩ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সুশান্তের চোখে-হাঁটুতে আঘাত; চিকিৎসকের ভার্চুয়াল পোস্ট মর্টেমের ভিডিও ভাইরাল

আত্মহত্যা নাকি খুন? ১৪ জুন দুপুরে বলিউড অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুসংবাদ টিভির পর্দায় ভেসে ওঠার পর থেকে এই প্রশ্নেরই উত্তর খুঁজছে গোটা ভারত। সাধারণত সময় খানিকটা কেটে গেল, অঘটনের ক্ষত কার্যত মিলিয়ে যায়। তবে সুশান্তের ক্ষেত্রে তা হয়নি। বরং বিতর্ক ক্রমশই বাড়ছে। আর এই বিতর্কে এবার 'ঘি ঢাললেন' প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের অর্ডিন্যান্স হাসপাতালের চিকিৎসক মীনাক্ষি মিশ্রা। এক ভার্চুয়াল ময়নাতদন্তে চিকিৎসকের দাবি, 'অভিনেতাকে খুন করা হয়েছে!'

সম্প্রতি ভাইরাল হয়েছে ড. মিশ্রার ভার্চুয়াল ময়নাতদন্তের একটি ভিডও। ইউটিউবে পোস্ট করা ভিডিওটিতে সুশান্তের শরীরে আঘাতের চিহ্ন তুলে ধরা হয়েছে। পাশাপাশি ওই চিকিৎসক জানিয়েছেন, অভিনেতার বাঁ চোখের উপরে আঘাতের চিহ্ন এবং ঠোঁটের নীচে দাগ নিয়েও আলাদা করে তদন্ত প্রয়োজন। গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যার সময় এই আঘাতগুলি কীভাবে এলো, তা নিয়েও প্রশ্ন করেছেন ওই চিকিৎসক। ড. মিশ্রার ওই ভিডিও ব্যাপক ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

এমনকী সুশান্তের গলায় যে দাগ দেখা গেছে। তাও সাধারণত গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যার ক্ষেত্রে দেখা যায় না বলেও মনে করছেন ওই চিকিৎসক। আবার অভিনেতার হাঁটুতে আঘাতের চিহ্ন যে রয়েছে, তাও পেন দিয়ে ভিডিওতে চিহ্নিত করেন তিনি।

এমনকী মুম্বাই পুলিশের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন ওই চিকিৎসক। তাঁর কথায় আত্মহত্যার ক্ষেত্রে ফরেনসিক বিশেষজ্ঞরাই ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করতে পারেন। এক্ষেত্রে তা না করে প্রমাণ নষ্টের চেষ্টা করেছে মুম্বাই পুলিশ। উল্লেখযোগ্য, ড. মীনাক্ষি মিশ্রার ওই ভিডিও টুইটারে শেয়ার করেছেন সাংসদ তথা বিজেপি নেতা সুব্রহ্মণ্যম স্বামী। প্রসঙ্গত, শুরু থেকেই সুশান্ত মামলায় সিবিআই তদন্ত দাবি করে এসেছেন তিনি।

গত দেড় মাস ধরে অভিনেতার মৃত্যু নিয়ে তদন্ত চালিয়ে সম্প্রতি মুম্বাই পুলিশ জানিয়েছে, বাইপোলার ডিসঅর্ডারে ভুগছিলেন সুশান্ত সিং রাজপুত। সে জন্য তাঁর চিকিৎসাও চলছিল। খাচ্ছিলেন ওষুধও। এমনকী মৃত্যুর আগে বার বার নিজের নাম গুগল করেন সুশান্ত। যন্ত্রণা সহ্য না করে কীভাবে নিজেকে শেষ করে দেওয়া যায়, ইন্টারনেটে সেই প্রশ্নের উত্তরও খুঁজছিলেন তিনি।

মুম্বাই পুলিশের হাতে যে ময়নাতদন্তের রিপোর্ট এসেছে, তাতে বলা হয়েছে, গলায় ফাঁস লাগানোর কারণে শ্বাসরুদ্ধ হয়ে মৃত্যু হয়েছে সুশান্তের। কিন্তু সুশান্তের ঘর থেকে কোনও সুইসাইড নোট মেলেনি। রহস্য দানা বেঁধেছে এখানেই। তবে রিপোর্টে যাই থাকুক, তদন্তে কোনও ফাঁক রাখা হবে না বলে জানিয়েছে মুম্বাই পুলিশ। 

এই কারণে, অভিনেতার ভিসেরার নমুনা সংরক্ষণ করে রাখা হয়েছে রাসায়নিক বিশ্লেষণের জন্য। এদিকে, মহারাষ্ট্রের যে চিকিৎসকরা সুশান্তের ময়নাতদন্ত করেছিলেন, তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদ করার কথা বিহার পুলিশের তদন্তকারীদের। এইসময়

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা