kalerkantho

রবিবার । ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১০ রবিউস সানি ১৪৪১     

বলিউডে পরিচালকদের সঙ্গে নায়িকাদের যত গোপন সম্পর্ক

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৪ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১৮:৪০ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



বলিউডে পরিচালকদের সঙ্গে নায়িকাদের যত গোপন সম্পর্ক

এক সঙ্গে কাজ করতে গিয়ে শুধু সহ-অভিনেতারই প্রেমে পড়েন না নায়িকারা, কখনও কখনও তাঁদের মেন্টর-পরিচালকের প্রতিও আকৃষ্ট হন তাঁরা। এই তালিকায় রয়েছেন বলিউডের নামীদামি নায়িকা-পরিচালকরা।দেখে নেওয়া যাক তাদেরই কাউকে। 

১. মাহি গিলের বলিউডে হাতেখড়ি পরিচালক তিগমাংশু ঢুলিয়ার হাত ধরে ‘সাহেব বিবি অউর গ্যাংস্টার’ ছবিতে। সে সময় নাকি দু’জনকে প্রায়ই একসঙ্গে দেখা যেত। দু’জনের সম্পর্ক নিয়ে জোর গুঞ্জন শুরু হয়েছিল। তবে কেউই কখনও এই সম্পর্কের কথা স্বীকার করেননি।

২. ঊর্মিলা মাতন্ডকরের প্রতি একটা গভীর ভাললাগা ছিল পরিচালক রামগোপাল বর্মার। নিজের বহু ফিল্মে তিনি ঊর্মিলাকে সুযোগ দিয়েছেন। তার মধ্যে ‘রঙ্গিলা’ এবং ‘সত্য’ অন্যতম।

৩. মিস ইউনিভার্স হওয়ার পর মহেশ ভাটের ‘দস্তক’ ছবি দিয়ে বলিউডে নিজের ক্যারিয়ার শুরু করেন সুস্মিতা সেন। এই ছবির চিত্রনাট্য বিক্রম ভাটের লেখা। সে সময় বিক্রম ভাটের সঙ্গে সুস্মিতার সম্পর্ক নিয়ে অনেক জলঘোলা হয়েছিল। এক সাক্ষাত্কারে বিক্রম স্বীকার করেছিলেন, তাঁর ছেলেবেলার বান্ধবী এবং স্ত্রী অদিতির সঙ্গে ডিভোর্স হয়ে গিয়েছিল সুস্মিতার জন্য।

৪. হাতেগোনা কয়েকটি ছবি করেছেন প্রাচী দেশাই। তার মধ্যে অন্যতম হল ‘বোল বচ্চন’। এই ছবির পরিচালক ছিলেন রোহিত শেঠি। প্রাচী নাকি তখন নিজের ছোটখাটো সমস্ত বিষয়েই রোহিত শেঠির থেকে পরামর্শ নিতেন। এমনকি রোহিত তাঁকে শপিং টিপসও দিতেন। দু’জনে লিভ ইন করছেন, বলিউডে এমন গসিপও ছড়িয়েছিল সে সময়।

৫. ‘দেব ডি-’র পর অনুরাগ কাশ্যপ এবং কালকি কোয়েচলিনের মধ্যে সম্পর্ক তৈরি হয়। তাঁদের দু’জনের ঘনিষ্ঠতা বিয়ে পর্যন্ত গড়িয়েছিল। তবে তার পরই সম্পর্ক জটিল হতে শুরু করে। বছর খানেকের মধ্যেই ডিভোর্স হয় দু’জনের।

৬. শিবানী দান্ডেকরর সঙ্গে সম্পর্কে রয়েছেন ফারহান আখতার। এই কাপল প্রায়ই সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজেদের ছবি শেয়ার করেন। ইতিমধ্যেই বাগদান পর্ব সেরে ফেলেছেন এই যুগল। ২০১৬ সালে ১৬ বছরের প্রথম সম্পর্কে ইতি টানেন ফারহান। তারপর তাঁর জীবনে আসেন শিবানী।

৭. জিনাত আমানের প্রতি কতটা টান ছিল দেব আনন্দের? আত্মজীবনীতে ‘রোম্যান্সিং উইথ লাইফ’-এ সে কথা লিখে গিয়েছেন তিনি। ‘হরে রাম হরে কৃষ্ণ’-র বিপুল সাফল্যের পর তাঁদের দু’জনের সম্পর্কের কথা সামনে উঠে আসে।

৮. ওয়াহিদা রহমানকে শুধু খুঁজে বেরই করেননি অভিনেতা-পরিচালক গুরু দত্ত, তাঁকে নিজের অনুপ্রেরণা মানতে শুরু করেছিলেন। পরিচালক হিসেবে তিনি এতটাই পারফেকশনিস্ট ছিলেন যে, ছবির কাজ পছন্দ না হলে ছবিটির ১০০ শতাংশ সম্পূর্ণ হলেও তা বাতিল করে আবার নতুন করে কাজ শুরু করতেন।

৯. পরিণীতি চোপড়া নাকি বারংবার পরিচালকদের প্রেমে পড়েন। এর আগে নাকি ‘লেডিস ভার্সেস রিকি বহেল’ এবং ‘শুদ্ধ দেশি রোমান্স’ ছবির পরিচালক মণীশ শর্মার প্রেমে পড়েছিলেন এই নায়িকা। সে সম্পর্ক ভেঙে যাওয়ার পর তিনি আবার এক সহকারী পরিচালকের প্রেমে পড়েছিলেন।

১০. বলিউডের বিখ্যাত পরিচালক-অভিনেতা রাজ কাপূরের সঙ্গে নার্গিসের সম্পর্ক নিয়ে আজও চর্চা হয় বি-টাউনের বিভিন্ন মহলে। চর্চায় কখনও উঠে আসে রাজ কাপূর-বৈজয়ন্তীমালার সম্পর্কের কথাও। রাজ কাপূর যে এক মহিলাতে সন্তুষ্ট থাকতে পারতেন না, তা নিজের আত্মজীবনী ‘খুল্লম খুল্লা’-তে ঋষি কাপূর জানিয়েছেন।

১১. পরিচালক সাজিদ খান এবং জ্যাকলিন ফার্নান্ডেজের দীর্ঘ তিন বছরের সম্পর্ক ছিল। ২০১৩ সালে তাঁদের ব্রেক আপ হয়।

১২. সুভাষ ঘাইয়ের ১৯৯৭ সালের ছবি ‘পরদেশ’-ই ছিল তাঁর অধীনে মহিমা চৌধুরীর কাজ করা প্রথম এবং একমাত্র সুযোগ। কিন্তু পরিচালক-অভিনেত্রীর এই প্রেম বেশ দিন টেকেনি। মহিমা তাঁর সংস্থার চুক্তি অমান্য করেছেন বলে অভিযোগ করেছিলেন সুভাষ ঘাই।

১৩. মডেল, অভিনেত্রী চিত্রাঙ্গদা সিংহের প্রথম স্বামী ছিলেন গলফ খেলোয়াড় জ্যোতি রণধাওয়া। ২০১৪ সালে দু’জনের ডিভোর্স হয়। তার পর পরিচালক সুধীর মিশ্রের সঙ্গে তাঁর জড়িয়ে পড়া। ‘ইয়ে শালি জিন্দেগি’, ‘ইনকার’ ছবিতে অর্জুন রামপালের বিপরীতে তাঁকে সুযোগ দিয়েছিলেন পরিচালক।

১৪. পরিচালক অনুরাগ কাশ্যপ এবং কালকিকোয়েচলিনের সম্পর্ক জটিল হওয়ার পিছনে অভিনেত্রী হুমা কুরেশির অবদান রয়েছে, ইন্ডাস্ট্রিতে এমনই গুঞ্জন। তাঁদের ডিভোর্সের আগে থেকেই নাকি ক্রমশ হুমার ঘনিষ্ঠ হয়ে পড়েছিলেন অনুরাগ কাশ্যপ। আর এই নিয়েই স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে অশান্তি লেগে থাকত। তবে তাঁদের প্রেমের কথা কখনও অনুরাগ বা হুমা স্বীকার করেননি।

১৫. চিরকালই খোলামেলা পরিচালক বিক্রম ভাট। সুস্মিতা সেনের সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে কখনও লুকোচুরি করেননি। তেমনই সুস্মিতার পর তাঁর আমিশা প্যাটেলের সঙ্গে সম্পর্ক তৈরি হয়েছিল। সেটাও স্বীকার করেছেন তিনি। তবে সে সম্পর্ক কোনও পরিণতি পায়নি।

সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা