kalerkantho

শনিবার । ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৯ রবিউস সানি ১৪৪১     

'যৌন-নেশামুক্তি কেন্দ্রে যান'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৬ নভেম্বর, ২০১৯ ১৫:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



'যৌন-নেশামুক্তি কেন্দ্রে যান'

বামে : সোনা মহাপাত্র; ডানে : অনু মালিক

সম্প্রতি বলিউড সঙ্গীত পরিচালক ও 'ইন্ডিয়ান আইডল'-এর বিচারক অনু মালিকের বিরুদ্ধে মিটু-সংক্রান্ত অভিযোগ এনেছেন ভারতের বিনোদন জগতের নারীরা। তবে সব অভিযোগই উড়িয়ে দিয়েছেন অনু মালিক। এদিকে, গায়িকা সোনা মহাপাত্রও সোশ্যাল মিডিয়ায় তাঁর বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন। সেসব অভিযোগের জবাবে ১৪ নভেম্বর টুইটারে একটি দীর্ঘ পোস্ট করেন অনু মালিক। এর প্রতিক্রিয়ায় ১৫ নভেম্বর আরও বিস্ফোরক মন্তব্য করেছেন সোনা মহাপাত্র। অনু মালিককে যৌন-নেশামুক্তি কেন্দ্রে যাওয়ার কথাও বলেছেন তিনি।

অনু মালিক দীর্ঘ সময় পাদপ্রদীপের আলো থেকে দূরে ছিলেন। এরপরে ইন্ডিয়ান আইডল-এর বর্তমান সিজনে বিচারকের ভূমিকায় ফিরেছেন তিনি।  তার কিছুদিন পর থেকেই গায়ক-সঙ্গীত পরিচালকের বিরুদ্ধে একের পর এক মিটু-র ঘটনা সামনে আসতে থাকে। বলিউডের গায়িকা-অভিনেত্রী শ্বেতা পণ্ডিতের অভিযোগ সবচেয়ে মারাত্মক। তাঁর ১৫ বছর বয়সের অভিজ্ঞতা প্রকাশ্যে এনে শ্বেতা অনু মালিককে শিশুকামী বলে অভিযোগ করেন।

শ্বেতার পরে আরও অনেকেই অনু মালিকের বিরুদ্ধে যৌন বিকৃতির অভিযোগ আনেন। সোনা মহাপাত্র অত্যন্ত সরব ছিলেন প্রথম থেকেই। 

এদিকে, ১৪  নভেম্বর টুইটারে একটি দীর্ঘ বিবৃতিতে অনু মালিক জানান, তাঁর বিরুদ্ধে আনা সব অভিযোগই ভিত্তিহীন। তিনি খুবই খারাপ সময়ের মধ্যে ছিলেন। এখন আবার যখন টিভি শোয়ের বিচারক হিসেবে কাজ করে তাঁর গ্রাসাচ্ছাদন চলছে, তখন তাঁর ইমেজ নষ্ট করার চেষ্টায় উদ্যত কিছু মানুষ। তাঁর পরিবার, বিশেষত তাঁর দুই মেয়ের ওপর প্রবল মানসিক চাপ পড়ছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

অনু মালিকের এই অভিযোগের উত্তরে আরও তীক্ষ্ণ হয়েছে সোনার সোশ্যাল মিডিয়া পোস্ট। 

অনু মালিকের ওই পোস্টের উত্তরে সোনা তাঁর নিজের টুইটার পোস্টে লিখেছেন, ভারতে ১৩০ কোটি মানুষ বাস করে। তাঁদের সবাইকে টিভি শোয়ের হোস্ট হয়ে সংসার চালাতে হবে এমন কথা নেই, বিশেষ করে যে নতুন প্রতিভারা সেখানে আসছে, তাদের নিরাপত্তা বিঘ্ন করে তো অবশ্যই নয়। জাতীয় টিভিতে আসার অধিকার আপনার নেই, আপনি কোনও রোল মডেল নন। আপনার ব্রেক নিয়ে কোনও যৌন-নেশামুক্তি কেন্দ্রে যাওয়া উচিত অথবা কোনও মনস্তত্ত্ববিদের পরামর্শ নেওয়া উচিত।

তিনি তাঁর দীর্ঘ টুইটে আরো বলেন, অনু মালিকের মতো একজন যৌন-শিকারীর অন্তরালে সরে যাওয়া উচিত। একদিকে যেমন মিটু-র বিরুদ্ধে সোনার এই সংগ্রাম চলছে, অন্যদিকে তখনই অনু মালিকের বিরুদ্ধে সোনার এই সরব হওয়াকে সমর্থন জানিয়েছেন অভিনেতা অভয় দেওল।

সূত্র : ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস 

 

 

 

 

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা