kalerkantho

শনিবার । ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৯ রবিউস সানি ১৪৪১     

বৈশাখী টিভিতে শুরু হলো কার্টুন সিরিয়াল ‘ড্রিম বেবি মংওয়া’

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৫ নভেম্বর, ২০১৯ ১৪:২৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বৈশাখী টিভিতে শুরু হলো কার্টুন সিরিয়াল ‘ড্রিম বেবি মংওয়া’

বৈশাখী টিভিতে শুরু হলো বাংলা ভাষায় ডাবকৃত চীনা কার্টুন সিরিয়াল ‘ড্রিম বেবি মংওয়া’। প্রতি সপ্তাহে দুই দিন শুক্র ও শনিবার সন্ধ্যা ৬টা ১৫ মিনিটে প্রচার হবে এটি। শিশুদের কথা মাথায় রেখেই এই কার্টুন সিরিয়াল প্রচারের উদ্যোগ নিয়েছে বৈশাখী টিভি কর্তৃপক্ষ। 

এ কার্টুন সিরিয়ালের কাহিনি এমন-আরচুয়াং, নিওশখো আর শেওপাও -তিন বন্ধু। আরচুয়াং অতিকায় মোটা, নিওশখো অতি চালাক এবং দুষ্টু আর শেওপাও অতি সহজ সরল। প্রতিনিয়ত অনুসন্ধিৎসু সে। থাকে দাদার সঙ্গে। নিত্যনতুন পুতুল বানানোই তার দাদার নেশা। শেওপাও একদিন দাদার পুতুল সাম্রাজ্যেও ঘরে ঘুরতে গিয়ে রঙবেরঙের পুতুল দেখে কোথায় যেন হারিয়ে যায়। তার হাতের খাবার টেবিলে রেখে দেয় আনমনে। হঠাৎই খেয়াল হয় তার খাবারটা নেই। কোনো এক ইদুর খাবার খেয়েছে ভেবে সে দাদার রুম থেকে চুরি করে আরও খাবার নিয়ে টেবিলে রাখে। লুকিয়ে থাকে ক্যামেরা হাতে। উদ্দেশ্য চোরের ছবি তোলা। এরপর যা দেখে তাতে সে অবাক না হয়ে পারে না। দেখে ছোট্ট একটি পুতুল যার নাম মংওয়া, সে হেটে এসে খাবার খাচ্ছে, আর যায় কোথায় ! শেওপাও তার ছবি তোলে। পুতুল শেওপার অস্তিত্ব টের পেয়ে স্টাচু হয়ে যায়। 

এরপর শেওপাও মংওয়াকে বলে , তুমি ধরা পড়ে গেছ। কথা না বললে তোমাকে শাস্তি দেব। কথা বলে ওঠে মংওয়া। লজ্জা পায় সে। এরপর দুজনের মধ্যে বন্ধুত্ব হয়। মংওয়া পুতুল হলেও সে আসলে সুপার পাওয়ার। শেওপাওর পড়াশোনা থেকে শুরু করে নানা কাজে তাকে সাহায্য করে। ঘটনাটা তার আরচুয়াং, নিওশখোকেও জানায় শেওপাও। এতে রাগ করে মংওয়া। শুরু হয় মংওয়াকে নিয়ে নানা কাণ্ড কারখানা। শিশুমনে নৈতিক শিক্ষা আর অ্যাডভেঞ্চারই এ কার্টুন সিরিয়ালের মূল শিক্ষা। মঙওয়াকে ঘিরেই তাদের যত কৌতুহল।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা