kalerkantho

শনিবার । ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৬ রবিউস সানি               

'ওদেরকে আমি খুঁজে বের করেছি'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১০ নভেম্বর, ২০১৯ ১২:২৬ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



'ওদেরকে আমি খুঁজে বের করেছি'

২০১৬-তে স্টার জলসা যখন ‘মেমবউ’ ধারাবাহিকটি লঞ্চ করে তখন অসম্ভব ট্রোল ও মিমের মধ্যে দিয়ে যেতে হয়েছিল এই অভিনেত্রীকে। ২০১৭-র শেষদিকে, ধারাবাহিক শেষ হওয়ার পরে দীর্ঘ সময় বাংলা টেলিভিশন থেকে দূরে থেকেছেন বিনীতা। অ্যাঙ্করিং, স্টেজ শো, গান ইত্যাদি নিয়ে ব্যস্ত থেকেছেন। 

সম্প্রতি আকাশ ৮-এর একটি ক্রাইম স্টোরি-তে দেখা গিয়েছে তাঁকে। কিন্তু ‘মেমবউ’-এর সেই ট্রোল-মিম নিয়ে তাঁর মধ্যে এখনও কোনও অভিমান আছে কি? এই ইমেজ থেকে বেরিয়ে কী কী আগামী পরিকল্পনা রয়েছে তাঁর

‘মেমবউ’ শেষ হয় ২০১৭-র শেষের দিকে। তার পরে ২০১৮ থেকে আমি একটা লন্ডন-বেসড নিউজ চ্যানেল জয়েন করি। আমার কাজটা মূলত ছিল মুম্বাইতে কিন্তু লন্ডনেও গিয়েছিলাম। সেখানে গিয়ে দেখলাম, প্রবাসী বাঙালিরা মেমবউ-কে কী অসম্ভব ভালোবেসে ফেলেছিল। অনেকের সঙ্গে দেখা হয়েছিল যাঁরা কিন্তু কাজটাকে অ্যাপ্রিশিয়েট করেছেন। আর শুধু বাংলার দর্শক নন, বাংলাদেশের দর্শকের থেকেও অনেক ভালোবাসা পেয়েছি। 

তিনি বলেন, 'কলকাতার বাইরে, মুম্বইতেও কাজ করতে গিয়ে, অনেক প্রবাসী বাঙালিরা এসে বলেছেন যে তাঁদের মায়েরা, তাঁদের পরিবারের অনেকই ‘মেমবউ’ খুব পছন্দ করতেন।'

বিনীতা বলেন, 'আমার মনে হয় এই ট্রোলের যে কনসেপ্টটা ছিল, সেটা আমাকে অনেকটা হেল্প করেছে। মানুষের তো প্রশ্ন ছিল প্রাথমিকভাবে যে কেন উইগ, কেন সাদা মুখ… কিন্তু এটা করতে গিয়ে যত মানুষ দেখেছেন সিরিয়ালটা, যদি ট্রোলিং না হতো তাহলে অত দর্শক পেতাম কি না জানি না। আমার ক্ষেত্রে তো ব্লেসিং ইন ডিসগাইজ হয়েছে। মিউজিক ইন্ডাস্ট্রিতেও কতজন আমাকে বলেছেন, তুমি সিরিয়াল করেছিলে না। আসলে কলকাতার বাইরের মানুষ যাঁরা বাংলাকে এবং বাঙালিয়ানাকে খুব মিস করেন, তাঁরাই দর্শক ছিলেন আমার সিরিয়ালের।'

অভিনেত্রী বলেন,  'আমি সেই ট্রোলদের কয়েকজনকে খুঁজে বের করেছি। তারা তো পরে বলেছিল, দিদি কিছু মনে কোরো না। আমরা প্রথমে তো বুঝতে পারিনি। কিন্তু তুমি ট্রোলটাকে এত পজিটিভলি নিয়েছ, কখনও কিছু বলোনি। আমি বললাম, আরে তোমরা তো আমার টিআরপি বাড়িয়েছ, তোমরা তো আমাকে হেল্প করেছ! আসলে সকলের একটাই বক্তব্য ছিল যে একটি বিদেশিনী চরিত্রে কেন একজন বিদেশনীকে কাস্টিং করা হল না, তার বদলে একজন ইন্ডিয়ানকে ওরকম সাজানো হলো কেন। কিন্তু যাঁরা সিরিয়ালটা দেখেছেন, তাঁরা জানেন যে ক্যারল কিন্তু হাফ বিদেশিনী কারণ ওর বাবা বাঙালি।' 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা