kalerkantho

শুক্রবার । ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৮ রবিউস সানি ১৪৪১     

বঙ্গোপসাগরে ঘূর্ণিঝড়ের কবলে চঞ্চল চৌধুরী

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৮ নভেম্বর, ২০১৯ ২১:০৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বঙ্গোপসাগরে ঘূর্ণিঝড়ের কবলে চঞ্চল চৌধুরী

বঙ্গোপসাগরে শুটিং করতে গিয়ে ঝড়ের কবলে পড়েছেন ‘হাওয়া’ ছবির অভিনয়শিল্পী চঞ্চল চৌধুরীসহ অন্যান্য শিল্পী ও কলাকুশলীরা। এমনটিই জানিয়েছেন ছবির নির্মাতা মেজবাউর রহমান সুমন।

তিনি জানান, ছবির মূল গল্প সমুদ্র মাঝের জেলেদের নিয়ে। তাদের সমুদ্রের জলের সঙ্গে মিশে যাওয়া মাছ ধরার ট্রলারকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে কাহিনি। যেখানে তারা একটানা গভীর সমুদ্রে গিয়ে ১০ থেকে ১৫ দিনের বেশি সময় নিয়ে মাছ ধরে। সেই জেলেদের জীবনী তুলে ধরতে নির্মাণ হচ্ছে সিনেমাটি। একারণে সমুদ্রের গভীরে গিয়ে কাজ করতে হয়েছে। সেন্ট মার্টিন থেকে ট্রলারে দেড় ঘণ্টা চলার পর সাগরের নির্ধারিত স্থানে গিয়ে নোঙর করার পর শুটিং করা হয়েছে। এখন ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’র কারণে এখন আর শুটিং করতে পারছি না।

তিনি আরও জানান, প্রতিদিনের মতই বৃহস্পতিবার (৭ নভেম্বর) সকালে আমরা সেখানে যাই। প্রথমে আমরা বুঝতে পারিনি। কিন্তু দুপুরের পর আবহাওয়া দ্রুত খারাপ হতে থাকে। ঢেউ ভয়ংকর থেকে আরও ভয়ংকর হতে শুরু করে। উঁচু ঢেউ আর বাতাসের তীব্রতায় আমাদের স্থানীয়রা ফিরে আসার তাগিদ দেয়। আমরা ভয় পেয়ে দ্রুত সেখান থেকে ফিরে আসি। কিন্তু আসার সময় খুব খার এক অভিজ্ঞতা হয়। সন্ধ্যার আগে সেন্ট মার্টিনের কাছাকাছি এসে মূল ট্রলার থেকে ছোট ট্রলারে কোনোভাবেই নামতে পারছিলাম না। বিকট স্রোতে আমরা সবাই আতঙ্কে ছিলাম। সঙ্গে বাতাস আর গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি। মনে হচ্ছিল নৌকা একেবার উল্টে যাবে। 

জানা গেছে, ছবির সব শিল্পী ও কলাকুশলীসহ প্রায় দেড় শ জনের মতো সেখানে ছিল। শুক্রবার (৮নভেম্বর) বিকেলে প্রত্যেকে নিরাপদে হোটেলে ফিরে গেছেন। 

‘হাওয়া’ ছবির শিল্পীদের মধ্যে এখন সেন্ট মার্টিনে আছেন চঞ্চল চৌধুরী,  সুমন আনোয়ার, নাজিফা তুশি, রিজভি, নাসির, শরিফুল রাজ,  মাহমুদ প্রমুখ।

বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’র শক্তি আরো বেড়েছে। মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে ৪ নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেতের পরিবর্তে ৭ নম্বর বিপদ সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। আর চট্টগ্রাম ৬ নম্বর বিপদ সংকেত দেখাতে বলেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। আগামীকাল শনিবার সন্ধ্যার পর তা বাংলাদেশের ওপর আঘাত হানতে পারে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা