kalerkantho

বুধবার । ২০ নভেম্বর ২০১৯। ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

এদেশের চলচ্চিত্র করতে গিয়ে বাধার সম্মুখীন হয়েছি : জয়া আহসান

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২২ অক্টোবর, ২০১৯ ১২:৩৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



এদেশের চলচ্চিত্র করতে গিয়ে বাধার সম্মুখীন হয়েছি : জয়া আহসান

আমি যখন কাজ করতে যাই তখন নানান রকম বাধার সম্মুখীন হয়েছি। আমি যখন বাংলাদেশে ছবি করি, বা আমি যে ধরনের ছবি করি এটা করা মানে কাদার মধ্যে গলা ডুবিয়ে পা ছড়িয়ে করা একই জিনিস।

সোমবার রাজধানীর বসুন্ধরা ইনটারন্যাশনাল কনভেনশন সিটির নবরাত্রী হলে বসে ভারত-বাংলাদেশ ফিল্ম অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানের আসর।, এখানেই যোগ দিতে আসেন জয়া। রেড কার্পেটে হেঁটে আসার পর সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেন।  এসময় তিনি যৌথ প্রযোজনার নতুন নীতিমালা প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে জয়া এ মন্তব্য করেন।

যাদের পারিশ্রমিক এক লাখ টাকার ওপরে তাদের জন্য বাড়তি কোনো কনভেন্স দেওয়া হবে না। একইসাথে একজনের বেশি সহকারী দেওয়া হবে। চলচ্চিত্র প্রযোজক সমিতির নীতিমালায় নতুন এই সিদ্ধান্ত যুক্ত হয়েছে। এ প্রসঙ্গে জয়া আহসানের অভিমত জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন,  'আমি একজন অভিনেত্রীই নই, আমি একজন প্রযোজকও নিশ্চই বিজ্ঞ লোকেরা আছেন তারা যে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন নিশ্চই বুঝে শুনে নিয়েছেন, আমাদের চলচ্চিত্রের জন্য ভালোই হবে। আমি সাধুবাদ জানাচ্ছি।'

জয়া বলেন, 'চলচ্চিত্র একার জিনিস নয়, এটা আদান প্রদানের মাধ্যমে বাড়ে। এই আদান প্রদান হলে বাংলার লাভ হলে। সবচেয়ে বড় কথা আমরা কীভাবে আমাদের বাংলাকে, বাংলা ভাষাকে কীভাবে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে পৌঁছে দিতে পারি সেটা ভেবেই আমাদের কাজ করা।'

২০১৮ সালের যৌথ প্রযোজনার নতুন নীতিমালা হওয়ার পঅর থেকে একটা চলচ্চিত্রও মুক্তি পায়নি, এ সম্পর্কে প্রশ্ন করা হলে জয়া আহসান বলেন, 'যারা নীতিমালা করেছেন তারা বুঝেশুনেই করেছেন। তবে আমি যেহেতু একজন প্রযোজক, আমি যখন অভিনেত্রী, আমি যখন কাজ করতে যাই তখন নানান রকম বাধার সম্মুখীন হয়েছি। আমি যখন বাংলাদেশে ছবি করি, বা আমি যে ধরনের ছবি করি এটা করা মানে কাদার মধ্যে গলা ডুবিয়ে পা ছড়িয়ে করা একই জিনিস।'

জয়ার বক্তব্য

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা