kalerkantho

পুরুষ নির্যাতনের বিরুদ্ধে মাঠে নামলেন হিরো আলম

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৬ আগস্ট, ২০১৯ ১০:৫৫ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পুরুষ নির্যাতনের বিরুদ্ধে মাঠে নামলেন হিরো আলম

'ঘরে ঘরে পুরুষ নির্যাতন চলছেই। পুরুষদের মনের কষ্ট গুলো সবসময় মনের মাঝে চাপা কষ্টই থেকে যায়। নারী নির্যাতন আইনের অপব্যবহার করে কিছু নারী-পুরুষদের নানাভাবে নির্যাতন করছে। এসবের শক্ত প্রতিরোধ না করলে নারী নির্যাতন আইনের অপব্যবহারের কবলে আমি-আপনি সব পুরুষই নির্যাতনের শিকার হতে পারেন। পুরুষদের মনের বেদনাগুলো আত্মসম্মানের কাছে চাপা পড়ে যায়। নারীদের স্বার্থের ঘটলেই রাজপথে আসে এবং আন্দোলন করে। কিন্তু ঘরে ঘরে পুরুষ নির্যাতন হলেও পুরুষেরা প্রতিবাদ করতে লজ্জা পায়। কিছু কিছু নারী যৌতুক মামলার নামে ব্যবসা খুলে বসেছে, সেগুলো দেখার দায়িত্ব কার?'

গত শনিবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধনের আয়োজন করে বাংলাদেশ পুরুষ অধিকার ফাউন্ডেশন। সেখানে বক্তারা এসব বলেন। উপস্থিত ছিলেন সোশ্যাল মিডিয়ায় আলোচিত আশরাফুল আলম ওরফে হিরো আলম। তিনিও বক্তব্য দেন।

বক্তারা বলেন, স্বামীর টাকা আত্মসাৎ করে অনেক নারী পরকীয়ায় আসক্ত হয়ে চলে যাচ্ছে, এর জন্য কি আইন আছে?  একজন পুরুষের ওপর পুরো পরিবার এবং সংসারের দায়িত্ব থাকে আর একজন নারী বসে বসে খায়। পরিবারের জন্য একজন পুরুষ কতটুকু পরিশ্রম তথা ত্যাগ স্বীকার করতে পারে, সেটা একজন পুরুষই বোঝে। প্রবাসে কষ্ট করে যারা দেশে টাকা পাঠিয়ে স্ত্রী-সন্তান তথা পুরো পরিবারের দেখভাল করছে, সেই প্রবাসী ভাইটিও কেমন আছেন সেটা কি ওই নারীরা বোঝে? 

তারা বলেন,  এই দেশে নারীদের নিরাপত্তার জন্য আইন আছে কিন্তু পুরুষদের নিরাপত্তার জন্য কোন আইন নেই কেন? প্রতিনিয়ত ঘরে ঘরে পুরুষেরা মানসিক নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। পুরুষের কান্না আর নয়, সব লজ্জা ফেলে এবার রাজপথে আসুন। পুরুষ নির্যাতনের একটি শক্ত আইনের দাবিতে রাজপথে নামুন। আমি হিরো আলম বলছি, নারীদের কাছে জিম্মি না থেকে রাজপথে আসুন। পুরুষ হলে নিশ্চয়ই রাজপথে আসবেন।

হিরো আলম বলেন, সংগঠনের চেয়ারম্যান শেখ খাইরুল আলম, মহাসচিব প্রকৌশলী ফারুক শাজেদ শুভ, তাজা খবরের বার্তা সম্পাদক নজরুল ইসলাম দয়া, অ্যাডভোকেট তানভীর এবং লিটন গাজী সহ আমাকে পুরুষ নির্যাতন আইনের দাবিতে ডাকা মানববন্ধনে অংশগ্রহণের জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়। আমি এই দাবিকে স্বাগত জানিয়ে রাজপথে এসেছি। আসুন আমরা পুরুষেরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে নারী নির্যাতন আইনের অপব্যবহার রোধে সংশোধনের দাবিতে এবং পুরুষ নির্যাতন দমন আইনের দাবিতে আন্দোলন করি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা