kalerkantho

ঈদ নাটকে আলোচনার কেন্দ্রে মোশাররফ করিম

১৯ আগস্ট, ২০১৯ ১৪:৩৮ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



ঈদ নাটকে আলোচনার কেন্দ্রে মোশাররফ করিম

'গত কয়েক ঈদ ধরে মোশাররফ করিমের নাটক একঘেয়ে হয়ে আসছে'- এমন অভিযোগ ছিল। আর এসব অভিযোগের পাশপাশি 'বড় ছেলে' নাটকের পরবর্তী সময়টা ছিল কান্নাকাটিময় নাটকের বাজার। প্রেম হলো, সম্পর্ক হলো- প্রেমে ঝামেলা, সেই ঝামেলা মিটে গেল তারপর আনন্দময়- 'সুখে শান্তিতে বসবাস করিতে লাগিল' টাইপ নাটক দখল করে নিল বাজার। 

এর বাইরে যে ভালো নাটক হচ্ছিল না তা নয়, হচ্ছিল। সেসবের প্রশংসাও আসছিল। কিন্তু কমেডি নাটকের গ্রহণযোগ্যতা প্রশ্নের মুখে দাঁড়াল। স্বাভাবিকভাবে প্রশ্নের মুখে পড়লেন মোশাররফ করিম। নাটক জনপ্রিয় হয়, কিন্তু মোশাররফ করিমের এক কেন্দ্রিক নাটক আর মানুষজন দেখতে চাইছিলেন না বলেই মন্তব্য দর্শকদের। অন্তত সোশ্যাল মিডিয়াকেন্দ্রিক নাটকের গ্রুপগুলো এসব নিয়ে বেশ আলোচনা সমালোচনা ছিল। অবশ্য এ বিষয়ে মোশাররফ করিম নিজেও একটা বক্তব্য দিয়েছেন। 

এক সাক্ষাৎকারে কালের কণ্ঠকে মোশাররফ করিম বলেন, 'আমাদের দেশে পরিচালকেরা মাঝে মাঝে কোনো জখুঁকি নিতে চাননা। যখন একটা বিষয় জনপ্রিয় হয়ে যায়। তখন আর কেউ এক্সপেরিমেন্টাল কাজে ঝুঁকি নেননা। তিনি জানেন ওই প্যাটার্নে করলেই জনগণ নেবে। অতএব ভিন্নভাবে ঝুঁকি নেওয়ার কোনো মানে নেই। এভাবেই একঘেয়ে নাটকের সৃষ্টি হয়েছে।'  

এবারের ঈদে বেশকিছু নাটক হয়েছে। বিগত কয়েক ঈদের পর মোশাররফ করিম ফের আলোচনার শীর্ষভাগে চলে এসেছেন। কেননা এবারের ঈদে তাঁর অভিনীত নাটকগুলো দর্শক বেশ ভালোভাবে গ্রহণ করেছে বলেই মনে করা হচ্ছে। এবারের ঈদে ১৯ টি নাটকে কাজ করেছেন মোশাররফ করিম। এর মধ্যে বেশ কয়েকটি নাটক দর্শকদের নিকট গ্রহণযোগ্যতা পেয়েছে, পেয়েছে প্রশংসা।

রেদওয়ান রনির বিহাইন্ড দ্য পাপ্পি নাটকে মোশাররফ করিমকে পরিচিত চেহারায় দেখা গেলেও দর্শকেরা আনন্দ ও তৃপ্তি নিয়ে নাটক উপভোগ করেছেন। চরত্রের বৈচিত্রতা না থাকলেও কৌতুক ছিল হিউমারে পূর্ণ। দর্শকদের জোর করে হাসতে হয়নি। বর্তমানে যে প্রচেষ্টা অনেক পরিচালকের মধ্যে প্রবল, দর্শকদের এনে দেয় বিরক্তি।

আশ্রয়, এই নাটকের মূল চরিত্র তাহসান হলেও তাঁর বাবার চরিত্রে অভিনয় করে মূল চরিত্রকে তর্কে ফেলে দেন মোশাররফ করিম। নাটকের কনসেপ্টে ভিন্নতা রয়েছে। ভিন্নতা বলতে কথার কথা নয়, এতোদিন শোনা গেছে সন্তান পালক বা দত্তক নেওয়ার। এই নাটকে দেখা গেছে এক বাবা-মাহীন দম্পত্তির বাবা-মাকে দত্তক নিতে। বাবার চরিত্রে মোশাররফ করিমের এই অভিনয় ছুঁয়েছে দর্শক মন। নাটকের গল্পভাবনা ছিল আকবর হায়দার মুন্নার। আর পরিচালনা করেছেন মাবরুর রশিদ বান্নাহ। বান্নাহ নিজেও অবশ্য নিজের নির্মিত নাটকের মধ্যে আশ্রয়কে শীর্ষে রাখছেন।

মুরসালিন শুভ মোশাররফ করিমকে নিয়ে এবারের ঈদে খেলেছেন গেম। এক অনবদ্য চরিত্রে নিয়ে এসেছেন জনপ্রিয় এই অভিনেতাকে। গল্প শুনে মোশাররফ করিমকে যেতে হয়েছে টঙ্গির এক ঘিঞ্জি বস্তিতে। বস্তির মানুষদের সাথে থেকে অভিনয় করেছেন। গোবর, কাঁদা-পানি, মশার কামড়কে উপেক্ষা করে দর্শকদের উফার দিয়েছেন রাজন : দ্য কিং। নাটকের গল্প লিখেছেন অপূর্ণ রুবেল।

শামস করিমের আম্মা vs জান নাটকটি মোশাররফ করিমের জন্য নিশ্চই এক নতুন অভিজ্ঞতা। ভক্তরা পছন্দের তালিকায় এ নাটকটি রাখছেন। পৃথিবীতে যারা সবাইকে খুশি রাখতে চায় তারা আসলে কাউকেই খুশি করতে পারে না তারপরও পরিবারের সবাইকে নিয়ে সুখে থাকার লড়াই তাকে চালিয়ে যেতে হয়। আর বিশেষ করে যারা বিয়ে করে প্রবাসে বসবাস করেন তাঁদের জন্য নাটকটি ভিন্নমাত্রার অভিজ্ঞতার হতে পারে।

তপু খান প্রথমবারের মতো অসম বয়সের একটি সম্পর্ক দেখালেন নাটকে। সাফা কবিররের বিপরীতে অভিনয় করেছেন মোশাররফ করিম।  Deal Done কালাচাঁন নামের এই নাটকটিও মানুষের পছন্দের তালিকায় ঢুকেছে অল্প সময়ের ব্যবধানে। নির্মাতার ভাষ্য প্রচলিত নাটকের গল্পের বাইরে একটি গল্প বলেছি, হতে পারে দর্শকদের পছন্দের কারণ এটি।

মোশাররফ করিম বলেন, 'আসলে কেন মাথা খাটাবো? অমুকে এই জিনিসটা বানিয়েছে এবং সেটা হিট হয়ে গেছে সেটা অনুকরণ করলেই। তাতে  হয় কি যারা সৃজনশীল মানুষ না, তাতেই তাদের হয়ে যায়। রোজগার হয়। আর কোনো ঝামেলা নেই। আর আমরা যারা দাবি করতে চাই যে আমরা সৃষ্টিশীল বা সৃষ্টিশীলতার মধ্যে ঢুকতে চাই, সৃষ্টিশীলতা আমাদের আনন্দ দেয়। তখন আমরা চিন্তায় পড়ে যাই। আমরা যেহেতু নাটক বা সিনেমা বানাই না, সেরকম জিনিস আমাদের কাছে আসতে হবে।' 

হয়তো এবারের নাটকে তেমনই কিছু পেয়েছেন। যার কারণে স্যাক্রিফাইস করতে দ্বিধা করেননি। এর ফল অবশ্য পেলেন হাতেনাতে।

এছাড়াও যেসব নাটকে অভিনয় করেছেন মোশাররফ করিম- মুগ্ধ ব্যাকরণ, সুরত, আনমাইন্ডফুল, কবুল বলিল কে? এটাই ভালোবাসা, বাবা হতে চাই, যমজ ১২, সেই রকম বাকী খোর, ভালোবাসার, সর্দিকাশি, বাদশাহ্ আলমগীরের লটারি, ভিউ বাবা, লুজারস্ ২, জোকার জসিম ও চরিত্র।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা