kalerkantho

সোমবার। ১৯ আগস্ট ২০১৯। ৪ ভাদ্র ১৪২৬। ১৭ জিলহজ ১৪৪০

সৃষ্টি সুখের উল্লাসে নকীব খান

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৮ জুলাই, ২০১৯ ১৪:০৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সৃষ্টি সুখের উল্লাসে নকীব খান

পৃথিবীর যে কোন দেশ বা জাতীর সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য গড়ে ওঠে কিছু শিল্প সমৃদ্ধ মানুষের অসাধারণ প্রচেষ্টা, পরিবর্তীত ধ্যান-ধারণা, সৃষ্টিশীল শিল্প-কর্মের কল্যাণে বহুমাত্রিক চেতনায় নিজেদের সমগ্র জীবন উৎসর্গ করার মাধ্যমে। এ ধারা প্রজন্মের পর প্রজন্ম বহন করে চলে। বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক জগতও গড়ে উঠেছে একই ধারায়। সঙ্গীতের উত্তরণে যাদের অবদান মৌলিক হয়ে আছে তাদের নামের সংখ্যা কম নয় এবং তাদের শিল্প অবদান অসীম ও অসাধারণ।
আমাদের সঙ্গীত পরিমন্ডলের  স্বপক্ষে ও উত্তরণে-  জিটিভি আয়োজন করেছে ভিন্নধর্মী গবেষণামুলক অনুষ্ঠান নেকটার নিবেদিত  ‘সৃষ্টি সুখের উল্লাসে’। অনুষ্ঠানের মূল প্রতিপাদ্য  ‘শিল্পের সাথে সৃষ্টির গল্প’। এখানে বিভিন্ন সঙ্গীতশিল্পী  আমন্ত্রিত হবেন এবং শিল্পের সাথে তাদের সৃষ্টির যে গল্প এবং সেই শিল্পের পরিবেশনায় এগিয়ে যাবে অনুষ্ঠান। পাশাপাশি বর্নাঢ্য সঙ্গীত জীবনের প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তির কথা বলবেন তিনি। 
মুলত: স্বাধীনতা পূর্ববর্তী সময় থেকে শুরু করে আমাদের স্বাধীনতা লাভের পর প্রায় পঞ্চাশ বছরে সঙ্গীত জগতের এই পথ চলায় যাদের অবদান আমাদের পাথেয় হয়ে আছে,তাদের উপস্থিতিতে শিল্পী ও শিল্প সৃষ্টির গল্প নিয়েই অনুষ্ঠান-নেকটার নিবোদিত  ‘সৃষ্টি সুখের উল্লাসে।
অনুষ্ঠানের প্রথমপর্বে অতিথি হয়েছেন নকীব খান। সঙ্গীতাঙ্গনের একজন উজ্জ্বল নক্ষত্র নকীব খান। অসংখ্য শ্রোতাপ্রিয় কালজয়ী গানের সুরকার, গীতিকার এবং গায়ক তিনি। ‘মন শুধু মন ছুঁয়েছে’, ‘এখন অনেক রাত’, ‘তুমি বললে’, ‘ভাল লাগে জোসনা’, ‘তোরে পুতুলের মতো করে সাজিয়ে’, ‘যদি লক্ষ্য থাকে অটুট’, এমন অসংখ্য গানের সুর¯্রষ্টা নকিব খান। সঙ্গীতের প্রতি ভালোবাসা, সুরের মায়া তাকে প্রতিষ্ঠিত করেছে এক শ্রুতিমাধুর্যপূর্ণ ব্যক্তিত্ব হিসেবে। তার সঙ্গীত জীবনের যত কথা এবং সঙ্গীতের সমসাময়িক বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন এই অনুষ্ঠানে । 
কবি ও উপস্থাপক রেজাউদ্দিন স্টালিন এর সঞ্চালনায়  অনুষ্ঠানটি প্রযোজনা করেছেন সাইফুল ইসলাম সাইফ্ ।  
অনুষ্ঠানটি ১৯ জুলাই থেকে সপ্তাহের প্রতি শুক্রবার রাত ৯টায় জিটিভিতে প্রচার হবে। 

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা