kalerkantho

বুধবার । ২৬ জুন ২০১৯। ১২ আষাঢ় ১৪২৬। ২৩ শাওয়াল ১৪৪০

'অথচ আমি পারিশ্রমিক ছাড়াই অনুষ্ঠানটি করে দিতে চেয়েছিলাম'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৯ জুন, ২০১৯ ১৫:২৩ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



'অথচ আমি পারিশ্রমিক ছাড়াই অনুষ্ঠানটি করে দিতে চেয়েছিলাম'

বেসরকারি টিভি চ্যানেল বাংলা ভিশন কিছুদিন আগেই ‘অপরাধী’ খ্যাত গায়ক আরমান আলিফের বিরুদ্ধে শিডিউল ফাঁসানোর অভিযোগ এনেছিল। এবার একই অভিযোগ উঠেছে নতুন প্রজন্মের নিকট জনপ্রিয়তা পেয়ে যাওয়া উঠতি গায়ক মাহতিম সাকিবের বিরুদ্ধে।

অভিযোগটি এনেছে বেসরকারি টিভি চ্যানেল নাগরিক টিভি। আজ রবিবার নাগরিক টিভির অনুষ্ঠান বিভাগের প্রধান কামরুজ্জামান বাবুর ই-মেইল থেকে এক বার্তায় এমনটাই জানানো হয়েছে। সেখানে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘গত এক মাস ধরে নাগরিক টিভির পর্দায় প্রচারণা চলেছে, ঈদের পঞ্চম দিন মাহতিম সাকিব ও ইমরান হোসেন যৌথভাবে সরাসরি গানের মেলা অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন। বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদও প্রকাশ হয়েছে।

কিন্তু শো-এর ঠিক একদিন আগে মাহতিম সাকিব নাগরিক টিভিকে নাকি জানিয়েছেন, 'তিনি শোতে অংশ নিতে পারবেন না। কারণ বগুড়ার একটি শো তিনি হাতে নিয়েছেন এবং সেখানে অনেক টাকায় শোটি পেয়েছেন। এমনটাই এই বেসরিকারি টেলিভিশন কর্তৃপক্ষের।

মাহতিম সাকিবের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি কালের কণ্ঠকে যা বললেন তার অর্থ নাগরিক টিভির সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝি হয়েছে। সাকিব বলেন, 'আমার নাগরিক টিভির শো-টি করার কথা ছিল ঈদের ষষ্ঠদিন, সেই অনুযায়ী বগুড়ায় ঈদের পঞ্চম দিনের প্রোগ্রামটি হাতে নেই। কিন্তু গতকাল রাতে হঠাৎ করে আমাকে জানানো হয় আজ নাকি নাগরিক টিভিতে প্রোগ্রাম, আমি তো অবাক হয়ে যাই, কারণ আজ (রবিবার) আমার বগুড়ায় প্রোগ্রাম।'

মাহতিম সাকিব কালের কণ্ঠকে বলেন, 'আমার সাথে মৌখিকভাবে কথা হয়েছিল। কয়েকবারই কথা হয়েছে। কিন্তু প্রতিবারই আমার সাথে ঈদের ষষ্ঠদিনের আলাপ হয়েছে। তারপরেও যদি ভুল হয় আমি ক্ষমাপ্রার্থী। কিন্তু ভুল বোঝাবুঝির কারণে তারা যেভাবে আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ করছেন তাতে আমি মর্মাহত। এমন তো না যে তাদের সাথে আমার লিগ্যালি কোনো চুক্তি হয়েছে। কিংবা নৈতিকভাবে কথা ভঙ্গ করেছি।'

মাহতিম সাকিব বলেন, 'আমি কোনো পারিশ্রম নেবো না এটা বলেছিলাম। আমার কাছে যখন পারিশ্রমিক জানতে চাওয়া হয় আমি বলেছি আমাকে না দিলেও চলবে কিন্তু আমার সঙ্গের মিউজিশিয়ানদের বিলটা যেন দেয়। এমনটাই আলাপ হয়েছে। আমি অনুষ্ঠান করবো না এমন তো বলিনি। ষষ্ঠদিন হিসেবে আগামীকাল অনুষ্ঠান অবশ্যই করবো। আমার মোবাইল ক্যালেন্ডারেও এটা সেট করা আছে। বলেন, আমি কেন, কী উদ্দেশ্যে শিডিউল ফাঁসাবো?'

টেলিভিশনে প্রোমো দেখেননি? সেখানে তো লেখা বা বলার কথা কোনদিন অনুষ্ঠান প্রচারিত হবে সেটা বলা আছে। এ প্রশ্নের জবাবে মাহতিম সাকিব বলেন, 'সত্যি বলতে সেটা আমি দেখিনি। আর যদি আমি জেনেও থাকতাম যে আমাকে নাগরিক টিভিতে ঈদের পঞ্চম দিন প্রোগ্রাম করতে হবে তাহলে নিশচই প্রোগ্রাম করতাম আর বগুড়ার প্রোগ্রাম হাতে নিতাম না।'

এদিকে কামরুজ্জামান বাবু গণমাধ্যমকে বলেন, 'একজন নতুন শিল্পীর কাছ থেকে এমন অপেশাদারি আচরণ মেনে নেয়া যায় না। যে শিল্পী কেবল গান শুরু করেছেন শুরুতেই যদি এভাবে বেশি টাকার কারণে একটি শিডিউল শো ফাঁসিয়ে দিয়ে অন্য শো নিয়ে নেন, তবে তার কাছে ভবিষ্যতে আমরা আর কী বা আশা করতে পারি। ভবিষ্যতে শাকিবকে নিয়ে আর কেউ কাজ করার কথা চিন্তা করতে পারবে না। তিনি আমাদের সঙ্গে অপেশাদারি আচরণ করলেন।

তবে সংশ্লিষ্টরা মনে করেন, এসব বিষয় নিয়ে পরিস্কার কোনো চুক্তি থাকে না। যার কারণে অভিযোগ গণমাধ্যমেই পাঠানো যায়, আইনিভাবে এর কোনো মূল্য নেই। কিছু টেলিভিশন ও অডিও প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান এমন ফাঁক রেখে কাজ করেন বলেই মাঝে মাঝে এমন পরিস্থিতির উদ্রেক ঘটে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা