kalerkantho

সোমবার  । ১৬ চৈত্র ১৪২৬। ৩০ মার্চ ২০২০। ৪ শাবান ১৪৪১

বাংলাদেশের নায়িকা থেকে যে কারণে মোদির দলে অঞ্জু ঘোষ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৬ জুন, ২০১৯ ০৯:৪৮ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



বাংলাদেশের নায়িকা থেকে যে কারণে মোদির দলে অঞ্জু ঘোষ

‘বেদের মেয়ে জোসনা’ খ্যাত অভিনেত্রী অঞ্জু ঘোষ ভারতের ক্ষমতাসীন বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন। গতকাল বুধবার পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ তাঁকে আনুষ্ঠানিকভাবে বরণ করেন।

তবে অঞ্জু ঘোষের নাগরিকত্ব নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। তবে অঞ্জু ঘোষ দাবি করেছেন, তিনি ভারতের নাগরিক। দিলীপ ঘোষ অঞ্জুর হাতে বিজেপির পতাকা তুলে দিয়ে বলেন, ‘বেদের মেয়ে জোসনা দলে এলেন।’ সল্টলেকে তাঁর বাড়ির পাশেই থাকেন অঞ্জু।  

অঞ্জু ঘোষের দাবি, ভারতীয় নাগরিককে বিয়ে করেছেন তিনি। বিবাহসূত্রে ভারতের নাগরিকত্ব পেয়েছেন। সংবাদ সংস্থা এএনআই দাবি করেছে, নাগরিকত্ব নিয়ে তাদের প্রশ্ন এড়িয়ে যান অঞ্জু ঘোষ।

লোকসভা নির্বাচনে সময় বাংলাদেশের অভিনেতা ফেরদৌস ও গাজী আব্দুন নূর তৃণমূলের হয়ে প্রচারের অংশ নেন। তখন বিজেপি এর বিরোধীতা করে। খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এ নিয়ে কথা বলেন।

অঞ্জু ঘোষ জন্মসূত্রে বাংলাদেশি নাগরিক। ১৯৮৯ সালে বাংলাদেশে মুক্তি পেয়েছিল তাঁর ছবি ‘বেদের মেয়ে জোসনা’।  অঞ্জুর নায়ক ছিলেন ইলিয়াস কাঞ্চন। ওই ছবিটি ব্যাপক সাফল্য পায় বাংলাদেশে। ১৯৯১ সালে পশ্চিমবঙ্গে চলচ্চিত্রটির রিমেক মুক্তি পায়। ওই ছবিতেও মূল ভূমিকায় ছিলেন অঞ্জু ঘোষ। তবে রিমেকে নায়ক হন চিরঞ্জিত।

২৩ বছর আগে, ১৯৯৬ সালে দেশ ছাড়েন অঞ্জু ঘোষ। তখন থেকেই কলকাতায় বসবাস করছেন এই নায়িকা। গত বছর ঢাকায় এসেছিলেন অঞ্জু ঘোষ। 

‘বেদের মেয়ে জোসনা’ খ্যাত অভিনেত্রী অঞ্জু ঘোষ ভারতের ক্ষমতাসীন বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন। আজ বুধবার পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ তাঁকে আনুষ্ঠানিকভাবে বরণ করেন। তবে অঞ্জু ঘোষের নাগরিকত্ব নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। তবে অঞ্জু ঘোষ দাবি করেছেন, তিনি ভারতের নাগরিক। দিলীপ ঘোষ বলেন, নরেন্দ্র মোদির সরকার যে উন্নয়ন করছে, তার সাথে তিনি সম্পৃক্ত হতে চান। তাকে আমরা বিজেপিতে স্বাগত জানাই।

দিলীপ ঘোষ অঞ্জুর হাতে বিজেপির পতাকা তুলে দিয়ে বলেন, ‘বেদের মেয়ে জোসনা দলে এলেন।’ সল্টলেকে তাঁর বাড়ির পাশেই থাকেন অঞ্জু।   অঞ্জু ঘোষের দাবি, ভারতীয় নাগরিককে বিয়ে করেছেন তিনি। বিবাহসূত্রে ভারতের নাগরিকত্ব পেয়েছেন। সংবাদ সংস্থা এএনআই দাবি করেছে, নাগরিকত্ব নিয়ে তাদের প্রশ্ন এড়িয়ে যান অঞ্জু ঘোষ।

লোকসভা নির্বাচনে সময় বাংলাদেশের অভিনেতা ফেরদৌস ও গাজী আব্দুন নূর তৃণমূলের হয়ে প্রচারের অংশ নেন। তখন বিজেপি এর বিরোধীতা করে। খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এ নিয়ে কথা বলেন।

অঞ্জু ঘোষ বললেন কলকাতা চলে যাওয়ার কারণ

অঞ্জু ঘোষ জন্মসূত্রে বাংলাদেশি নাগরিক। ১৯৮৯ সালে বাংলাদেশে মুক্তি পেয়েছিল তাঁর ছবি ‘বেদের মেয়ে জোসনা’।  অঞ্জুর নায়ক ছিলেন ইলিয়াস কাঞ্চন। ওই ছবিটি ব্যাপক সাফল্য পায় বাংলাদেশে। ১৯৯১ সালে পশ্চিমবঙ্গে চলচ্চিত্রটির রিমেক মুক্তি পায়। ওই ছবিতেও মূল ভূমিকায় ছিলেন অঞ্জু ঘোষ। তবে রিমেকে নায়ক হন চিরঞ্জিত।

২৩ বছর আগে, ১৯৯৬ সালে দেশ ছাড়েন অঞ্জু ঘোষ। তখন থেকেই কলকাতায় বসবাস করছেন এই নায়িকা। কলকাতায় বেশ কিছু চলচ্চিত্রেও অভিনয় করেছেন তিনি। অঞ্জুর প্রকৃত নাম অঞ্জলি। ১৯৭২ থেকে ১৯৮১ সাল পর্যন্ত চট্টগ্রামের মঞ্চনাটকে অভিনয় করেন। ১৯৮২ সালে চলচ্চিত্র নির্মাতা এফ কবির চৌধুরী চলচ্চিত্রে আনেন তাঁকে। অঞ্জুকে নিয়ে তৈরি করেন ‘সওদাগর’। এরপর ১৯৮৯ সালে ‘বেদের মেয়ে জোসনা’ তাঁকে এনে দেয় তুমুল জনপ্রিয়তা। ঢালিউডে প্রায় ৫০টি ছবির অভিনেত্রী তিনি।

কলকাতায় বেশ কিছু চলচ্চিত্রেও অভিনয় করেছেন তিনি। গত বছর ৫ সেপ্টেম্বর ঢাকায় আসেন অঞ্জু ঘোষ। ১০ সেপ্টেম্বর ঢাকা ত্যাগ করেন তিনি। 

অঞ্জুর প্রকৃত নাম অঞ্জলি। ১৯৭২ থেকে ১৯৮১ সাল পর্যন্ত চট্টগ্রামের মঞ্চনাটকে অভিনয় করেন। ১৯৮২ সালে চলচ্চিত্র নির্মাতা এফ কবির চৌধুরী চলচ্চিত্রে আনেন তাঁকে। অঞ্জুকে নিয়ে তৈরি করেন ‘সওদাগর’। এরপর ১৯৮৯ সালে ‘বেদের মেয়ে জোসনা’ তাঁকে এনে দেয় তুমুল জনপ্রিয়তা। ঢালিউডে প্রায় ৫০টি ছবির অভিনেত্রী তিনি। গত বছর ৫ সেপ্টেম্বর ঢাকায় আসেন অঞ্জু ঘোষ। ১০ সেপ্টেম্বর ঢাকা ত্যাগ করেন তিনি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা