kalerkantho

শুক্রবার  । ১৮ অক্টোবর ২০১৯। ২ কাতির্ক ১৪২৬। ১৮ সফর ১৪৪১              

‘অশ্লীল’ ভিডিও নিয়ে জেসিয়াকে তুলোধুনা সামাজিক মাধ্যমে

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ২২:১৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



‘অশ্লীল’ ভিডিও নিয়ে জেসিয়াকে তুলোধুনা সামাজিক মাধ্যমে

ইউটিউবের জনপ্রিয় কন্টেন্ট নির্মাতা সালমান মুক্তাদির ও ২০১৭ সালের মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ জেসিয়া ইসলামের আপত্তিকর ভিডিও নিয়ে সামাজিক মাধ্যমে ব্যাপক সমালোচনা চলছে।

তবে ভুয়া আইডি খুলে ওইসব আইডি থেকে ভুয়া ভিডিও ছড়ানো হচ্ছে বলে দাবি করেছেন জেসিয়া। এ অভিযোগে তিনি পুলিশের সাইবার ক্রাইম ইউনিটে অভিযোগ করেছেন।

মঙ্গলবার দুপুরে মিন্টো রোডের ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের সাইবার ক্রাইম ইউনিটে যান জেসিয়া ইসলাম। সেখানে তিনি অপপ্রচার ও মানহানির অভিযোগ দায়ের করেন।

জেসিয়ার অভিযোগ দায়েরের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পুলিশের সাইবার অপরাধ বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনার নাজমুল ইসলাম। এরই মধ্যে সাইবার অপরাধ বিভাগ তদন্ত শুরু করেছে।

এ ব্যাপারে জেসিয়া বলেন, কয়েক দিন ধরে আমাকে নিয়ে ফেসবুকে কিছু ভুয়া আইডি আর ভুয়া ভিডিও বানিয়ে সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করতে একটি মহল উঠে পড়ে লেগেছে। অপরাধীদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে অভিযোগ দায়ের করেছি। আশা করছি শিগগিরই পুলিশের সাইবার অপরাধ বিভাগ সংশ্লিষ্টদের খুঁজে বের করে শাস্তির আওতায় নিয়ে আসবে এবং ওই সব ভুয়া কনটেন্ট ইন্টারনেট থেকে মুছে দেবে।’

এদিকে সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া জেসিয়া ও সালমানের কথিত ভুয়া ভিডিও নিয়ে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েছেন সাবেক এ জুটি।

ফেসবুকের বিভিন্ন স্ট্যাটাসে সমালোচনায় তুলোধুনা হচ্ছেন জেসিয়া। অনেকে জেসিয়ার নামে খোলা ভুয়া আইডিকে সত্য মনে করে সেখানে কমেন্ট করছেন।

জেসিয়ার থানায় অভিযোগ করার বিষয় মঙ্গলবার বিকাল ৫টার দিকে ফেসবুকে এক স্ট্যাটাসে জানান তিনি। ওই স্ট্যাটাসে বহু আপত্তিকর কমেন্ট দেখা যাচ্ছে।

মিরাজ মোবারক নামের এক ফলোয়ার লিখেছেন, আগে নিজে ঠিক থাকুন। নিজে সচেতন হলে দুনিয়ার সব কিছু সুন্দর দেখবেন। আর অসুন্দর তখন দেখবেন যখন আপনি তাদের চোখে অসুন্দর।

আজিজুর রহমান শাকিল নামের একজন ব্যঙ্গ করে লিখেছেন, ‘দয়া করে এমন খরবেন (করবেন) লাহ (না)!! হেপিও (চিত্র নায়িকা হ্যাপি) এমনই বলছিলো। পরে মেডিকেলে ১২ ভাই এর জীবনী বেরিয়ে এল!! হে খোদা বাচাও আমাদের এসব কাহিনী থেকে!! আল্লাহ হেদায়েত দান করুক আপনার জন্য আর আপনার বালুপাসা (ভালোবাসা) সালমান এর জন্য এফবিতে (ফেসবুকে) আসতে পারতেছি নাহ।’

সাইফুল ইসলাম লিখেছেন, ‘ছোট মুখে বড় কথা বলা ঠিক না, তার পরও বলতে হয়; কথায় আছে, যত দোষ নন্দ ঘোষ। আপনিও দোষী ওনি (সালমান মুকতাদির) দোষী। আপনি উপরে থু থু মারলে সেটা আপনার গায়ে পড়বে। মুসলিম মেয়ে হয়ে যে সমস্ত পোশাক পরে পিক (ছবি) দেন আর কী বলবো। আমি সংক্ষেপে বুঝি, নিজে ঠিক থাকলে জগৎ ঠিক!!...’

সাগর আহমেদ নামের একজন লিখেছেন, ‘মানলাম যে ভিডিওটা ভাইরাল হইছে সেইটা আপনি না, কিন্তু এই ভিডিও ছাড়াও আপনি কোন ভালো মেয়ের মধ্যে পড়েন না। এখনও সময় আছে ভালো হয়ে যান। না হয় পরে অনেক পস্তাতে হবে। বি দ্র:- সাইবার অপরাধের ভয়ে আপনাকে গালি দেই নাই। না হয় ধুয়ে দিতাম।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা