kalerkantho

মঙ্গলবার । ২১ জানুয়ারি ২০২০। ৭ মাঘ ১৪২৬। ২৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

মোল্লাহাটে প্রতিশ্রুতির মাধ্যমে প্রচারণায় ব্যস্ত প্রার্থীরা, উন্নয়নে বিশ্বাসী জনগণ

মোল্লাহাট (বাগেরহাট) প্রতিনিধি   

২৯ মার্চ, ২০১৯ ২০:৪১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মোল্লাহাটে প্রতিশ্রুতির মাধ্যমে প্রচারণায় ব্যস্ত প্রার্থীরা, উন্নয়নে বিশ্বাসী জনগণ

বাগেরহাটের মোল্লাহাট উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে শেষ মুহুর্তে বর্তমান সরকারের উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরে নানা রকম প্রতিশ্রুতি নিয়ে ভোটারের দ্বারে দ্বারে প্রর্থীরা। এ উপজেলায় তিনটি পদে ১২ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। 

শীর্ষ পদটিতে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী নৌকা প্রতিকে শাহিনুল আলম ছানা এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. মোতাহার হোসেন মোল্লা আনারস ও জাতীয় পার্টির প্রার্থী মো. কামরুজ্জামান নাঙল প্রতিকে। তবে প্রচারণার মাঠে নেই জাতীয় পার্টির প্রার্থী।
 
উপজেলার গাওলা গ্রামের রাসেল মোল্লা বলেন, যে প্রার্থীকে ভোট দিলে উপজেলার উন্নয়ন হবে। যে মানুষের পাশে দাঁড়াবে। আমরা তাকেই ভোট দিব।

গৃহিনী রহিমা খাতুন বলেন, আমরা চাই নারী বান্ধব জনপ্রতিনিধি। তাই যারা নারীদের কথা বলবেন, তাদেরকে ভোট দিব।

কৃষক লোকমান হোসেন বলেন, বর্তমান সরকার দেশের উন্নয়ন করছে। এ উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আমরা নৌকা প্রতিকে ভোট দিব।

আনারস প্রতিকের স্বতন্ত্র প্রার্থী মোতাহার হোসেন মোল্লা বলেন, নৌকার প্রার্থীর হয়ে আমার প্রচার-প্রচারণায় বাধা দিচ্ছে অতি উৎসাহী কতিপয় ব্যক্তি। সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের পরিবেশ থাকলে ভোটাররা কেন্দ্রে আসতে পারলে আমার বিজয় আসবেই, ইনশা-আল্লাহ।
 
আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতিকের প্রার্থী শাহীনুল আলম ছানা বলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান নয় জনগণের সেবক হিসেবে সাধারণ মানুষের পাশে থেকে আমি বর্তামান সরকারের সকল উন্নয়ন বাস্তবায়ন করেছি। সাধারণ মানুষের চাওয়া অনুযায়ী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাকে নৌকা প্রতিকের প্রার্থী করেছেন। জনগণের রায় নিয়ে নিশ্চয়ই বিজয়ী হব।

বিদ্রোহী প্রার্থীর অভিযোগ অস্বীকার করে তিনি আরো বলেন, মোতাহার হোসেন মোল্লা একজন দলছুট রাজনৈতিক। তিনি জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়ায় এসব অভিযোগ করছেন। এদিকে প্রচার-প্রচারণায় পিছিয়ে নেই ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীরাও।
 
মোল্লাহাট উপজেলা সহকারি রিটার্নিং অফিসার প্রবির কুমার মল্লিক বলেন, উল্লেখযোগ্য তেমন কোনো বিশৃঙ্খলার ঘটনা ঘটেনি। নির্বাচন সুষ্ঠু করার লক্ষ্যে যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা