kalerkantho

শনিবার  । ১৯ অক্টোবর ২০১৯। ৩ কাতির্ক ১৪২৬। ১৯ সফর ১৪৪১         

মির্জাপুরে ভাইস চেয়ারম্যান পদে দুই যুবলীগ নেতার লড়াই

মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি   

২৪ মার্চ, ২০১৯ ২০:৫৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মির্জাপুরে ভাইস চেয়ারম্যান পদে দুই যুবলীগ নেতার লড়াই

টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদে উপজেলা যুবলীগের দুই নেতার ভোটের লড়াই জমে উঠেছে। মির্জাপুর উপজেলা যুবলীগের সাবেক আহ্বায়ক মির্জাপুর কলেজ ছাত্র সংসদের সাবেক জিএস মো. সেলিম শিকদার ও উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আজহারুল ইসলাম ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

জানা গেছে, আগামী ৩১ মার্চ চতুর্থ ধাপে এ উপজেলায় ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, কৃষকলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতাকর্মীরা দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে পছন্দের প্রার্থীদের সাথে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। দুই প্রার্থীই উপজেলার পাহাড়ি এলাকার সন্তান। ১টি পৌরসভা ও পাহাড়ি এলাকার পাঁচটি ইউনিয়নসহ ১৪টি ইউনিয়ন নিয়ে মির্জাপুর উপজেলা গঠিত। এ উপজেলায় ৩ লাখ ২২ হাজার ৮৯৮ জন ভোটার রয়েছে।

উভয় প্রার্থী উচ্চ শিক্ষিত এবং জনপ্রিয়তার দিক থেকেও ভোটারদের কাছে তাদের গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে। সাধারণ ভোটাররা শেষ মুহূর্তের হিসাব নিকাশ কষতে শুরু করলেও সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে কিছুটা হিমশিম খাচ্ছেন। নির্বাচনে কে হারবে এবং কে জিতবে এটা এখন পর্যন্ত কেউ নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না।

মির্জাপুর কলেজছাত্র সংসদের সাবেক জিএস উপজেলা যুবলীগের সাবেক আহ্বায়ক এবং মির্জাপুর উপজেলা কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতির লি. এর সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান সেলিম শিকদার। তিনি স্কুল জীবন থেকেই ছাত্র রাজনীতির সাথে জড়িত। ১৯৯২ সালে সেলিম শিকদার মির্জাপুর কলেজে অধ্যয়নকালে তার রাজনীতি আরো প্রসারিত হয়। পরে তিনি টাঙ্গাইল জেলা ছাত্রলীগের সাথেও যুক্ত হন। সাধারণ শিক্ষার্থীদের মাঝে ব্যাপক জনপ্রিয়তার সৃষ্টি হয় সেলিম শিকদারের। সেই জনপ্রিয়তা কাজে লাগিয়ে ১৯৯৬ সালে মির্জাপুর কলেজছাত্র সংসদের জিএস নির্বাচিত হন। কলেজ জীবন শেষ করে এলাকার সাধারণ সমবায়ীদের সাথে কাজ শুরু করেন। সেখানেও তিনি তার সফলতা পান।

সমবায়ীদের ভোটে তিনি উপজেলা কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতির ভাইস চেয়ারম্যান পদেও নির্বাচিত হন। এরপরই তিনি উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়কের দায়িত্ব পান। সমবায়ীদের সাথে কাজ এবং ছাত্রলীগ ও যুবলীগের রাজনীতি সেলিম শিকদারকে আওয়ামী পরিবারসহ উপজেলার সর্বত্র পরিচিতি করে তুলে। তিনি উড়োজাহাজ প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। 

অন্যদিকে আজহারুল ইসলাম ২০০৪ সালে মির্জাপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। দীর্ঘ ১০ বছর ছাত্ররাজনীতির সাথে জড়িত থেকে উপজেলায় আওয়ামী পরিবারে তার পরিচিতি ঘটে। ২০১৮ সালে তিনি উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক নির্বাচিত হন। তিনি তালা প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

সাধারণ ভোটারদের সঙ্গে নির্বাচন সম্পর্কে আলাপ করে জানা গেছে, নির্বাচনের ফল সম্পর্কে এখন কিছু বলা যাচ্ছে না। কারণ সম্পর্কে জানতে চাইলে তারা জানান, নির্বাচনে সরকার দলীয় লোকের প্রভাবে নির্বাচনের ফলাফল হবে এক রকম এবং দলীয় প্রভাবমুক্ত ও অবাধ নির্বাচন হলে ফলাফল হবে আরেক রকম। ভাইস চেয়ারম্যান পদে দলীয় নির্বাচন না হলেও দুই প্রার্থীর মধ্যে দলীয় সমর্থন পেয়েছেন আজহারুল ইসলাম। তবে এদের মধ্যে বয়সে সেলিম শিকদার বড়। তার রাজনীতি ও জনপ্রতিনিধিত্ব করার অভিজ্ঞতা থাকায় দুই প্রার্থীর মধ্যে তিনিই উপজেলার সর্বত্র বেশি পরিচিত বলে তারা মনে করেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা