kalerkantho

রবিবার । ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১০ রবিউস সানি ১৪৪১     

নারীর ক্ষমতায়নে কাজ করতে চান নেহার বেগম

কুলাউড়া (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি   

১৬ মার্চ, ২০১৯ ১৮:৫২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



নারীর ক্ষমতায়নে কাজ করতে চান নেহার বেগম

নারী নেত্রী নামে কুলাউড়ার সর্বমহলে পরিচিত নেহার বেগম। তিনি বর্তমান কুলাউড়া উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান। নেহার বেগম জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) এর রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত। আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে স্বপদে নির্বাচনে ফুটবল প্রতীক নিয়ে তিনি ভোটের মাঠে সক্রিয় রয়েছেন। তৃণমূল পর্যায়ের সাধারণ ভোটার ও সমাজের পিছিয়ে পড়া অবহেলিত নারীদের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য তিনি পুনরায় এ নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন।  

প্রতীক বরাদ্দের পর নেহার বেগম বিজয়ের লক্ষ্যে উপজেলার প্রতিটি পাড়া-মহল্লায় ভোটারদের সাথে দেখা করে কুশল বিনিময় করে বর্তমান সরকারের উন্নয়নের বার্তা সাধারণ মানুষদের কাছে তুলে ধরে ফুটবল প্রতীকে ভোট কামনা করছেন। শেষমেশ প্রচারণায় তিনি মাঠে সক্রিয় রয়েছেন। যেখানেই তিনি যাচ্ছেন সেখানেই সর্বসাধারণের ভিড় হচ্ছে। হৃদিক ব্যবহার ও উন্নয়ন ভাবনার কথা শুনে মুগ্ধ সব শ্রেণি-পেশার মানুষ। ফুটবল প্রতীকে ভোট দিয়ে তাকে পুনরায় বিজয়ী করার প্রতিশ্রুতিও দিচ্ছেন সাধারণ ভোটাররা।

নারী নেত্রী নেহার বেগম বলেন, ১৯৬৯ সালে ছাত্রলীগের রাজনীতির মাধ্যমে এ জগতে প্রবেশ করে দিন-রাত মানুষের সুখ-দুঃখে পাশে থাকার চেষ্টা করেছি। এরই ধারাবহিকতায় কুলাউড়াবাসীর আন্তরিক ভালোবাসায় প্রত্যক্ষ ভোটে উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর বিভাগীয় পর্যায়ে একবার ও জেলার মধ্যে দুইবার শ্রেষ্ঠ 'জয়িতা' নির্বাচিত হয়েছি।

মানুষের সুখ-দুঃখের ভাগিদার হওয়ার ইচ্ছা পোষণ করে তিনি বলেন, আমি কুলাউড়ার একমাত্র নারী নেত্রী হিসেবে উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে নারীর ক্ষমতায়নের লক্ষ্যে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি। নারীদের নিয়ে এ ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে চাই। সাধারণ মানুষের সুখে না থাকতে পারি, দুঃখে পাশে ছিলাম। প্রতিদ্বন্দ্বীদের ভোটের মাঠে স্বাগত জানিয়ে নেহার বেগম বলেন, আমাদের মাঝে প্রতিযোগিতা আছে তবে প্রতিহিংসা নেই। নির্বাচন একটি গণতান্ত্রিক অধিকার। যে কেউ নির্বাচন করতে পারে তবে সাধারণ মানুষ যোগ্য দেখেই মূল্যায়ন করবে। ভোটারদের বলব, যোগ্য দেখে পক্ষ নিন, বুঝে শুনে ভোট দিন।

নির্বাচনে জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী জানিয়ে নেহার বেগম কালের কণ্ঠকে বলেন, উপজেলা নির্বাচনে সাধারণ মানুষ আমার বিগত দিনের কাজের মূল্যায়ন করবে এটা আমার দৃঢ় বিশ্বাস। আজকের বিশ্বায়নের যুগে আমাদের দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। দেশের উন্নয়নে পুরুষ-মহিলা সমানভাবে কাজ করে যাচ্ছে। নারীর পক্ষে ফেৌজধারী শতশত মামলা সমাধান করে দিয়েছি। প্রান্ত্রিক জনগোষ্ঠী ও তৃণমূল নারীদের অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে নারীর ক্ষমতায়নের জন্য অতীতেও কাজ করেছি ভবিষ্যতে কুলাউড়ায় কাজ করতে চাই। 

নেহার বেগমের সাথে ভোটের মাঠে রয়েছেন উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ফাতেহা ফেরদৌস চৌধুরী পপি (হাঁস প্রতীক) ও জয়পাশার সমাজকর্মী মোসা. শাহানা আক্তার (কলস প্রতীক)। তারাও উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডে সাধারণ মানুষদের কাছে গিয়ে ভোট প্রার্থনা করছেন। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা