kalerkantho

মুশফিকের অনন্য কীর্তি

নতুন আলোয় উজ্জ্বল দেশের ক্রিকেট

১৪ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



দেশের ক্রিকেট-ভক্তদের আশা ছিল, সিলেটে রচিত হবে নতুন ইতিহাস। কিন্তু নতুন টেস্ট ভেন্যুতে জয় ধরা দেয়নি। পরাজয়ের তিক্ত স্বাদ নিয়ে ফিরতে হয়েছে ক্রিকেটারদের। একই আশঙ্কা যে ঢাকা টেস্টেও ছিল না, তা নয়। যথারীতি ব্যর্থ টপ অর্ডার, ২৬ রানেই তিন উইকেট খোয়ানোর পর আবার হতাশাই যেন পেয়ে বসতে চেয়েছিল। বীর মুশফিক রুখে দাঁড়ালেন। নিজের ডাবল সেঞ্চুরির পাশাপাশি গড়লেন একাধিক নতুন রেকর্ড। ৫৮৯ মিনিট উইকেটে কাটিয়ে ৪২১ বলে ২১৯ রানের ইনিংসটি মুশফিককে নিয়ে গেল অন্য এক উচ্চতায়। টেস্টে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রানের ইনিংস এটি। বল ও সময়ের হিসাবেও দীর্ঘতম। ইনিংস ঘোষণার পর আবার যখন কিপিং গ্লাভস পরে মাঠে নামলেন মুশফিক, তখন তাঁর নামের পাশে লেখা হয়ে গেছে আরেকটি রেকর্ড। কিপার-ব্যাটসম্যান হিসেবে দুটি ডাবল সেঞ্চুরি করা প্রথম ক্রিকেটার তিনি। ২০১৩ সালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে গল টেস্টে কিপার হিসেবে সবশেষ ডাবল সেঞ্চুরিটিও ছিল তাঁর। নতুন আলোয় উদ্ভাসিত হলো বাংলাদেশের ক্রিকেট। রানের জোয়ারে ভেসে ৫০০ পেরিয়ে ইনিংস ঘোষণা। অথচ কদিন আগেও এই রানের জন্য হাহাকার ছিল। মুশফিকুর রহিমের এই অনন্য ইনিংসটি বাংলাদেশ দলের জন্য এক অনন্য উদাহরণ হয়ে থাকবে। শুরুতেই দল যখন খাদের কিনারে, সেখান থেকে কিভাবে উঠে আসা যায়, তার উদাহরণ সৃষ্টি করলেন মুশফিকুর রহিম। ধৈর্য ও টেম্পারামেন্টের পরীক্ষায় সাফল্যের সঙ্গে উত্তীর্ণ হয়েছেন তিনি।

ক্রিকেট ধৈর্যের খেলা শুধু নয়, খেলোয়াড়দের প্রতিটি বলে পরীক্ষা দিতে হয়। ব্যাটিং, বোলিং, ফিল্ডিং—সব ডিপার্টমেন্টে সাবলীল শৈলী উপহার দিতে না পারলে কোনো ম্যাচই পরিপূর্ণ হয়ে ওঠে না। তার সঙ্গে রক্ষা করতে হয় ধারাবাহিকতা, যার অভাব বাংলাদেশ দলে প্রকট। দলগত অর্জনটাই শেষ কথা, কিন্তু তা অর্জিত হয় প্রতিটি খেলোয়াড়ের পারফরম্যান্স থেকে। খেলায় ধারাবাহিকতা রক্ষায় তাই প্রয়োজন মনঃসংযোগ। মাঠের খেলায় আত্মসমর্পণ করা চলবে না, শেষ বলটি পর্যন্ত লড়াই চালিয়ে যেতে হবে—এই মানসিকতা নিয়ে মাঠে নামতে পারলে জয় অবশ্যম্ভাবী। সে লক্ষ্যেই প্রতিটি খেলোয়াড়কে উজ্জীবিত করতে হবে।

বাংলাদেশ দলের ইনিংস ঘোষণার পর জিম্বাবুয়ের ইনিংসে ধারাবাহিকভাবে উইকেটের পতন ঘটেছে। আজ ও কাল খেলা রয়েছে। এই দুই দিনে বাংলাদেশ দল কী ইতিহাস রচনা করে, সেটাই এখন দেখার বিষয়। খাদের কিনার থেকে যে দল উঠে দাঁড়াতে পারে, তাদের কাছে কোনো কিছুই অসম্ভব নয়। 

 

 

মন্তব্য