kalerkantho

মঙ্গলবার । ২১ মে ২০১৯। ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৫ রমজান ১৪৪০

ঢাকায় কালবৈশাখীতে ছয়জনের প্রাণহানি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১ এপ্রিল, ২০১৯ ০১:৪৬ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



ঢাকায় কালবৈশাখীতে ছয়জনের প্রাণহানি

ছবি: কালের কণ্ঠ

ভোর বেলা মেঘলা আকাশ। এরপর দুপুরে ভ্যাপসা গরম। বিকালে আবার মেঘলা আকাশ। সন্ধ্যায় দমকা হাওয়ার সঙ্গে ধূলিঝড়। পরে ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি। তারপর শুরু প্রচণ্ড ঝড়, সঙ্গে কোনো কোনো এলাকায় শিলাবৃষ্টি। বৈশাখের আগেই গতকাল রবিবার রাতে কালবৈশাখীর কবলে পড়েছে রাজধানী। আর তাতে প্রাণ গেছে চারজনের। এ ছাড়া বুড়িগঙ্গা নদীতে নৌকা ডুবে মারা গেছেন দুজন। আহত হয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন শিক্ষার্থীসহ অন্তত অর্ধশত।

গতকাল সন্ধ্যায় রাজধানীতে ঝড় বৃষ্টির সময় বিভিন্ন স্থানে গাছ ভেঙে পড়ে, বিদ্যুতের খুঁটি উপড়ে যায়। কোনো কোনো এলাকায় বিদ্যুতের তার ছিড়ে যায়। কয়েকটি এলাকায় গাছ ভেঙে পড়ে প্রাইভেটকার, অটোরিকশাও ক্ষতিগ্রস্ত হয়। নিহত হন চারজন। তাঁদের একজন চা দোকানি মো. হানিফ (৪৫) মাথায় ইট পড়ে মারা গেছেন পল্টন মোড়ে। আর মিরপুরের পশ্চিম শেওড়া পাড়ার ভবন থেকে ইট পড়ে মারা গেছেন দুলাল (৪০) নামে এক গাড়ি চালক। মিলি ডি কস্তা (৬০) নামের এক নারী গাছের ডাল পড়ে নিহত হয়েছেন সংসদ ভবন এলাকায়। হাসান নামের আরেকজন মাথায় ইট পড়ে নিহত হয়েছেন কদমতলীতে।

আহতদের মধ্যে আছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র রবি, ওমর ও মাহফুজ। তাঁরা সবাই বিশ্ববিদ্যালয়ের এসএম হলের আবাসিক ছাত্র। অন্যরা হলো আল আমিন (১৫), আল আমিন (২১), আল আমিন (১৮), ওবায়দুল (১৪), ইবু (১৪), জোনায়েদ (১৫), আব্দুল খালেক (৫০), রাবেয়া (৩০), সাইফুল (৩০), বিল্লাল (৩৫), আবদুল আজিজ (২৮), মর্জিনা (১৮), আজিজ (৫১), মহিদুল (২৫), হোসেন (১৬)। তারা ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছে। 

পুলিশ জানায়, সন্ধ্যা সোয়া ৬টার দিকে পল্টন মোড়ে চা দোকানি হানিফের মাথায় ইট পড়লে গুরুতর আহত হন তিনি। তাঁকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে গিয়ে গেলে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা। 

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে এক পুলিশ কর্মকর্তা জানান, পল্টন মোড়ে একটি বহুতল ভবনের (মল্লিক কমপ্লেক্স) উপর থেকে বেশ কয়েকটি ইট চা দোকানি হানিফের ওপরে পড়ে। তিনি সেখানে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়েছিলেন। পুলিশ তাঁকে উদ্ধার করে। হানিফের বাড়ি বরিশালের মেহেদীগঞ্জ উপজেলার উলাদিয়া গ্রামে।  

পুলিশ জানায়, ঝড়ের সময় সংসদ ভবন এলাকায় গাছ ভেঙে পড়ে মিলি ডি কস্তা নিহত হয়েছেন। তাঁর বাসা মনিপুরি পাড়ায়। 

ঝড়ের মধ্যে বুড়িগঙ্গা নদীতে নৌকা ডুবে এক নারী ও তাঁর ছেলের মৃত্যু হয়েছে। তাদের পরিচয় তাত্ক্ষণিকভাবে জানাতে পারেনি পুলিশ। কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ওসি শাকের মোহাম্মদ জুবায়ের সাংবাদিকদের বলেন, কেরানীগঞ্জের মাদারীপুর ঘাট দিয়ে কামরাঙ্গীর চরে যাওয়ার সময় ঝড়ের কবলে পড়ে নৌকাটি। 

আবহাওয়া অফিসের দেওয়া তথ্যমতে, গতকাল ঝড়ের সময় ঢাকায় ঘণ্টায় বাতাসের গতিবেগ ছিল ৭৪ কিলোমিটার। সন্ধ্যা ছয়টা থেকে সাতটা পর্যন্ত এই এক ঘণ্টায় রাজধানীতে ১৭ মিলিমিটার বৃষ্টি রেকর্ড করেছে আবহাওয়া অফিস।

ঝড়ের সময় কাকরাইল এলাকায় একটি গাছের ঢাল ভেঙে অটোরিকশা ও প্রাইভেট কারের ওপর পড়ে। এতে প্রাইভেটকারটি বেশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। অটোরিকশা চালক সামান্য আহত হয়েছেন। 

ফায়ার সার্ভিসের নিয়ন্ত্রণ কক্ষের তথ্য অনুযায়ী, রাজধানীর অন্তত ২৫টি স্থানে গাছ ভেঙ্গে পড়ার ঘটনা ঘটেছে। ঝড়ে শাহবাগ থানার সাইনবোর্ড উড়ে গেছে। মিন্টো রোডে পুলিশ ভবনের সামনে বৈদ্যুতিক তার ছিঁড়ে পড়ে। ধানমন্ডি তিন নম্বর সড়কেও গাছের ডাল ভেঙে সড়কে পড়ে। 

রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দে র সামনে থেকে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের গেট পর্যন্ত সড়কটি যানবাহন চলাচলের প্রায় অনুপোযোগী হয়ে পড়ে পাশের বড় বড় গাছের ডাল ভেঙে পড়ার কারণে। আগারগাঁও, চন্দি মা উদ্যানসহ আরো কয়েকটি স্থানেও গাছ উপড়ে সড়কের ওপরে পড়ায় যান চলাচল ব্যাহত হয়ে যানজটও তৈরি হয়।

ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্স সদর দপ্তরের কর্তব্যরত কর্মকর্তা জানান, মগবাজারের আদ্-দ্বীন হাসপাতালের একটি দেয়াল ধসের খবর পাওয়া গেছে। 

মন্তব্য